• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন |

জয়পুরহাটের জামালগঞ্জ কয়লার খনি বাস্তবায়নে উদ্যোগ

joypurhat-koyla_2211জয়পুরহাট: উত্তরবঙ্গের বহুল প্রত্যাশিত জয়পুরহাটের জামালগঞ্জ কয়লার খনি প্রকল্পটি বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহন করেছে বর্তমান সরকার। আজ শুক্রবার বিদ্যুৎ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সরেজমিন পরিদর্শন আসছেন। প্রকল্পটি পরিত্যক্ত ঘোষণার দীর্ঘ দিন পর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একজন প্রতিমন্ত্রীর আসার খবরে এলাকার মানুষের মনে আশার সঞ্চার হয়েছে।
জয়পুরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন জামালগঞ্জ কয়লা খনি প্রকল্পটি বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া সার্বক্ষণিকভাবে তদারকি করছেন।
১৯৬২ সালে খনিটির সন্ধান পাওয়া যায়। ১৯৬২-৬৬ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘ ও তৎকালীন খনিজ সম্পদ বিভাগ যৌথভাবে জামালগঞ্জে জরিপ চালায়। এ সময় ৭টি গ্যাসের স্তর আবিষ্কার করা হয় এবং এগুলো ৬৭০ মিটার থেকে ১১৬০ মিটার পর্যন্ত মাটির গভীরে রয়েছে বলে জানা যায়। সরকারিভাবে এখানে ৬ একর জমি অধিগ্রহন করে জরুরীভাবে মেহমান খানা, কোয়ার্টার গুদাম ঘরসহ কয়েকটি বিল্ডিং নির্মান করা হয়। কর্মকর্তারা কাজও শুরু করেন কিন্তু ১৯৮১ সালে কর্মকর্তারা হঠাৎ করে ঐ স্থান ত্যাগ করে চলে যান।
জিওলজিক্যাল সার্ভে রিপোর্ট সূত্রে জানা যায়, জামালগঞ্জ কয়লার খনির ১১৬৬ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে কমপক্ষে ১৪০০ মিলিয়ন টন উন্নতমানের বিটুমিন্যাক কয়লার মজুদ রয়েছে। দ্বিতীয় পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় জামালগঞ্জ কয়লা খনি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ৪০ কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রাসহ ৮০ কোটি টাকার প্রকল্প ব্যয় বরাদ্দ করা হলেও প্রকল্পটি আলোর মূখ দেখেনি।
জয়পুরহাটের জামালগঞ্জ কয়লার খনি থেকে কয়লা উত্তোলনে ব্যয় বেশি হওয়ার কারণ দেখিয়ে এটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়। তবে পেট্র্রোবাংলার মতে এখানে আছে প্রচুর পরিমাণে কোল্ড ব্যান্ড নামে এক প্রকার মিথেন গ্যাস। কয়লার উপরিভাগের গ্যাস উত্তোলনের পরই সম্ভব হবে কয়লা উত্তোলন করা। এতে উত্তোলন ব্যয় কম হবে কয়েকগুন। স্থানীয়রা বলছেন কয়লা উত্তোলন করা হলে স্থানীয়ভাবে যেমন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে তেমনি জালানী সমস্যার সমাধান হবে। তাই বর্তামান সরকারের আমলে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন ও প্রথমে গ্যাস উত্তোলনের লক্ষ্যে গত বছর ১২, ১৩ ও ১৪ জুন দরপত্রও আহবান করা হয়। এতে অষ্ট্রেলিয়া, কানাডা, চীন , ভারতসহ বেশ কয়েকটি দেশ অংশগ্রহণ করে।
উন্মুক্ত ভাবে কয়লা উত্তোলন করলে আবাদি জমি আর বসতবাড়ির ক্ষতির আশংকা রয়েছে। সেকারনে অন্য কোন পদ্ধতি অবলম্বন করে কয়লা উত্তোলন করার দাবি জানান ঐ এলাকার আজিজুল ইসলাম।
জয়পুরহাটের জামালগঞ্জ কয়লাখনির সার্বিক রক্ষণাবেক্ষণ ও নিরাপত্তার অভাবে দরজা-জানালা চুরি হয়ে যাচ্ছে বলে জানালেন জামালগঞ্জ কয়লা খনির হিসাব কর্মকতা মোখলেছার রহমান ।
অবশেষে দীর্ঘ দিন পর হলেও মন্ত্রীর আগমনের মধ্যে দিয়ে পরিত্যক্ত এই কয়লা খনি প্রকল্পটি আলোর মুখ দেখবে এমন আশায় বুক বাঁধছেন এলাকাবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ