• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:৫১ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে নির্মাণ শ্রমিকদের বিরুদ্ধে মামলা

Mamlaমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর : দিনাজপুরে কারারক্ষীদের সাথে নির্মাণ শ্রমিকদের মারামারির ঘটনায় কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। কারারক্ষী মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে ১৯ ফেব্রুয়ারী রাতে এই মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২৭।
এদিকে মামলার প্রতিবাদে জেলা কারাগার উন্নয়নের নির্মাণ কাজ বন্ধ রেখেছে নির্মাণ শ্রমিকরা। দু’এক দিনের মধ্যে নির্মাণ শ্রমিকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার ও দোষী কারারক্ষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে গোটা জেলায় নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিবে বলে হুশিয়ারী দিয়েছে নির্মাণ শ্রমিকরা।
অপরদিকে জেলা কারাগারের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়ায় নির্ধারিত সময়ে কারাগার উন্নয়ন কাজ শেষে কর্তৃপক্ষের নিকট কাজ বুঝিয়ে দেয়া সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদাররা।
মামলার বাদী কারারক্ষী (নং-৩২৪৩৩) মোহাম্মদ আলী মামলায় উল্লেখ করেন, ১৯ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার দুপুর আনুমানিক ১২টায় ডিউটি চলাকালে কারাগারের আংশিক নির্মাণ কাজের উপর অরবিন্দু শিশু হাসপাতালের বিপরীত দিকে গেটে শ্রমিক সাইদুল ইসলাম বস্তায় করে কাঠ বাইরে নিয়ে যাওয়ার সময় সরকারী সম্পদ মনে করে আমি তাকে কি নিয়ে যাচ্ছ জিজ্ঞেস করলে উৎশৃঙ্খলভাবে বলেন তোমাকে বলতে হবে না এবং বলে আমার লেবার এখান থেকে কি নিয়ে যাক তা তোমাকে দেখতে হবে না। এ সময় বস্তাসহ সাইদুলকে আটক করলে সাব-ঠিকাদার নুরুর অন্যান্য শ্রমিক মো. সাইদুল ইসলাম, জিয়াউর রহমান, মো. তারেক, আবু, শাওন, সালামসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজন শ্রমিক সঙ্গবদ্ধ হয়ে আমাকে আকস্কিক আক্রমন করে এলোপাথারা কিল, ঘুষি দিয়ে শারিরিকভাবে আঘাত ও জখম করে।
আহত অবস্থায় অফিসে এসে ঘটনাটি রিজার্ভ প্রধান কারারক্ষী নং-০৩৫৩৪ মো. ওয়াহেদুল আলম সিদ্দিকীকে জানালে তাৎক্ষনিক আমাকে কারা হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে  উন্নত চিকিৎসার জন্য আমাকে দিনাজপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
এই ঘটনার প্রেক্ষিতে কারারক্ষী মোহাম্মদ আলী কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় মো. সাইদুল ইসলাম (৩০), মো. তারেক (৩০), মো. জিয়াউর রহমান, (৫৭), আবু (২৩), শাওন (২০), মো. সালামসহ (৪৩) অজ্ঞাত আরো ৫/৭ জনকে আসামী করা হয়। মামলা নং-১৭, ধারা ১৪৩/১৮৬/৩৩২/৩৫৩ দন্ড বিধি, তারিখ-১৯-০২-২০১৫।
তবে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন নির্মাণ শ্রমিক জানান, গত ১৯ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার আনুমানিক দুপুর ১২টায় সাইদুল ইসলাম নামে এক নির্মাণ শ্রমিক বস্তায় ভরে নির্মান সামগ্রী এক স্থান হতে অন্য স্থানে নিয়ে যাওয়ার সময় মোহাম্মদ আলী নামের এক কারারক্ষীর সাথে ধাক্কা লাগে। নির্মাণ শ্রমিক বস্তারভর্তি নির্মাণ সামগ্রী যথাস্থানে রেখে ফিরে আসার পর কারারক্ষী মোহাম্মদ আলী নির্মাণ শ্রমিক সাদেককে কোন কথা না বলে ২/৩টি থাপ্পর মারে। এ সময় ওই শ্রমিক থাপ্পর মারার কারণ জানতে চাইলে পুনরায় আরো ২/৩ টি থাপ্পর মারে। পাশে থাকা সালাম ও তারেক নামে দু’শ্রমিক প্রতিবাদ করলে কারারক্ষী ক্ষিপ্ত হয়ে ওই দু’শ্রমিকের উপর ঝাপিয়ে পড়ে ও তাদের সার্টের কলার ধরে টানাহেঁছরা করে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত শ্রমিক নেতা সাব-ঠিকাদার জেলা নির্মাণ মিস্ত্রি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নুরু এগিয়ে এসে দু’শ্রমিককে ছাড়াতে গেলে তাদের ছেড়ে দিয়ে কারারক্ষী মোহাম্মদ আলী শ্রমিক নেতা নুরুল ইসলাম নুরুর সার্টের কলার ধরে জেল সুপারের নিকট দিয়ে যেতে চায়। এতে শ্রমিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে এবং কারারক্ষী মোহাম্মদ আলীকে মারধর করে ও নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।
এ ঘটনার পর ওইদিন রাতে কারারক্ষীর মোহাম্মদ আলীর উপর হামলা ও মারধরের অভিযোগে মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর নির্মাণ শ্রমিকরা জেলা কারাগার উন্নয়ন নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেয়।
বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা জানায়, নির্মাণ শ্রমিকদের নামে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার ঘটনার সাথে জড়িত কারারক্ষী মোহাম্মদ আলীসহ অন্যান্য কারারক্ষীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নিলে শ্রমিকরা গোটা জেলায় নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিবে।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর জেলা নির্মাণ মিস্ত্রি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. শাহাবুদ্দীন খোকন জানান, জেল সুপারসহ সংশ্লিষ্টদের সাথে আলোচনা করে দ্রুত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে। আশা করি দু’এক দিনের মধ্যে ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান হবে।
জেলা নির্মাণ মিস্ত্রি শ্রমিক ইউনিয়নের উপদেষ্টা রবিউল আউয়াল খোকা জানান, জেলা কারাগারের উন্নয়ন কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন করতে শালিসি বৈঠকে মাধ্যমে এ ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান করা উচিত। তিনি বলেন, শ্রমিকরা একেবারেই অশিক্ষিত বা স্বল্প শিক্ষিত তাই তাদের জ্ঞান কম। এ কারণে জেল কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের এই বিষয়টি মাথায় রেখে উভয়ের মাঝে আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করবেন। অন্যথায় শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে দিলে শুধু জেল কারাগারের উন্নয়ন কাজ নয়, গোটা জেলায় নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে জেলাবাসি সমস্যায় পড়বে।
উল্লেখ্য, দিনাজপুর জেলা কারাগার উন্নয়ন নির্মাণ কাজে নিয়োগ পান ঠিকাদার মো. আনোয়ারুল ইসলাম, মো. রেজানুল হক, মাহবুব আলম বকুল, মো. নুরুল ইসলাম নুরু, এহতেশাম ও মো. আলাউদ্দীন নামে ছয় ঠিকাদার। আগামী জুন মাসে উন্নয়ন কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ইতোমধ্যে সিংহভাগ কাজ শেষ হয়ে গেছে। নির্মাণ শ্রমিকদের সাথে বর্তমানে উদ্ভুত সমস্যা দ্রুত সমাধান না করলে সময়মত অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত করে কর্তৃপক্ষের নিকট নিকট কাজ বুঝিয়ে দেয়া সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছেন ঠিকাদারেরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ