• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:১৭ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে চালকল মালিকরা আর্থিক বিপর্যয়ের মুখে ॥ বেকার কয়েক হাজার শ্রমিক

chatal-ho-thereport24-1মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুরে চালকর শালিকরা আর্থিক বিপর্যয়ের মূখে পড়েছে। হরতাল-অবরোধ ও রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং শুল্কমুক্ত ভারত থেকে এলসি’তে প্রচুর চাল আসায় দিনাজপুরে চাল শিল্প এই বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে।
বর্তমান বাজারে কৃষকরা ধানের মূল্য পাচ্ছেন না। দিনাজপুরে ৭০ শতাংশ চালকল বন্ধ হয়ে গেছে। হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। মিল মালিকদের গুনতে হচ্ছে লোকসান। ব্যাংক ঋণের সুদ পরিশোধ করতে না পারায় মিল মালিকরা দেউলিয়া হওয়ার আশংকা প্রকাশ করেছেন।
চাল শিল্পকে রক্ষার স্বার্থে দিনাজপুর চাল কল মালিক গ্রুপ ইতোমধ্যেই জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী, বাণিজ্যমন্ত্রী ও খাদ্যমন্ত্রীকে স্মারকলিপি দিয়েছেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুর চাউল কল মালিক গ্রুপর সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম হামিদুর রহমান।
অপরদিকে দিনাজপুর থেকে চাল সরবরাহ না হওয়ায় ট্রাক মালিকরাও লোকসান গুনছে। চাল আড়ৎদার ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারত থেকে শুল্কমুক্ত চাল আমদানী করায় ঢাকা চট্টগ্রামসহ দক্ষিণ বঙ্গে চাল সরবরাহ প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। এ চিত্র দিনাজপুরে কৃষক, মিল মালিক ও চাল আড়ৎদার ব্যবসায়ীদের ভাবিয়ে তুলেছে।
দিনাজপুর চাউল কল মালিক গ্রুপের সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম হামিদুর রহমান জানান, দিনাজপুরে ১৩০টি অটোসহ প্রায় ২১’শ চালকল রয়েছে। ভারত থেকে আমদানীকৃত চালের উপর শুল্ক আদায় করা হলে দেশী চাল ও ভারতীয় চালের মূল্যে সামঞ্জস্য হবে কিন্তু ভারতীয় এলসি চাল শুল্কমুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশী আমন চাল  থেকে ১’শ থেকে দেড়’শ টাকা কমে এলসির চাল বিক্রি হচ্ছে। ফলে দেশীয় চালের সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। মিল মালিকরা হতাশ হয়ে পড়েছে।
চালকল মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব রেজা হূমায়ন ফারুক চৌধুরী শামীম বলেন, দেশের হিলি,  বেনাপল, সোনা মসজিদ, ভোমরাদহসহ বিভিন্ন স্থলবন্দর দিয়ে এলসিতে শুল্কমুক্ত চাল আসছে। ফলে শুল্কমুক্ত হওয়ায় ভারতীয় চাল দিনাজপুরে প্রতি কেজি স্বর্ণা চাল বিক্রি হচ্ছে ২৭/২৮ টাকায়। অথচ বাংলাদেশের (দিনাজপুরে) কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয়সহ ছাটাই পর্যন্ত ১ কেজি চালের মূল্যে দাড়ায় ৩০ টাকা। মিনিকেট প্রতি কেজি চালের মূল্যে দাড়াচ্ছে ৪০ থেকে ৪২ টাকা। বিআর ২৮ প্রতি কেজি ৩২ থেকে ৩৩ টাকা,  মোটা স্বর্ণ প্রতিকেজি ২৮ থেকে ৩০ টাকা। এছাড়াও ধানের মূল্যে ১৩’শ ৫০ টাকা থেকে ১২’শ ৫০ এ  নেমে এসেছে। তারপরও খরিদদার নেই। এ অবস্থায় লোকসান গুনতে গুনতে প্রায় ৭০ শতাংশ চালকল বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। মিলের হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় কৃষক, মিল মালিক ও শ্রমিকদের বাঁচাতে হলে এলসিতে আসা চালের উপর শুল্ক নির্ধারন করতে হবে।
দিনাজপুর খাদ্য শস্য আড়ৎদার মালিক গ্রুপের সভাপতি প্রতাপ কুমার শাহা পানু বলেন, হরতাল অবোরধে ব্যবসা নেই। ঢাকা, চিটাগাংয়ের মালিকরা অতিরিক্ত চাল মজুদ করছে না। এ ছাড়াও এলসিতে শুল্কমুক্ত প্রচুর ভারতীয় চাল আসছে। এই চালের দাম দিনাজপুরের উৎপাদিত চালের চেয়ে অনেক কম। ফলে দিনাজপুরের চাল বাইরে যাচ্ছে  না। যেখানে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩ হাজার মেট্রিক টন চাল দিনাজপুর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম অভিমুখে পাঠানো হতো। বর্তমানে সেখানে আড়াই থেকে ৩’শ মেট্রিক টন চাল যাচ্ছে ঢাকা-চট্টগ্রামে।
দিনাজপুর ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি মো. শহিদুল ইসলাম জানান, প্রতিদিন ২ থেকে আড়াই’শ ট্রাক চাল নিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম অভিমুখে রওনা হতো। বর্তমানে চাল নিয়ে ১০ থেকে ১৫টি ট্রাক দিনাজপুর ছেড়ে যাচ্ছে। অনান্য মালামাল পরিবহন হচ্ছে ৮০/৯০টি ট্রাকে। নিরাপত্তা নেই, ভাড়া নেই। এ অবস্থায় ট্রাক মালিকদের ব্যবসায় ধস নামছে ও শ্রমিকরা বেকার হয়ে পড়ছে। মিল মালিক ও  আড়ৎদাররা চাল সরবরাহ না করায় ট্রাক মালিক ও শ্রমিকদের লোকসান গুনতে হচ্ছে।
এদিকে দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারন বিভাগের উপ-পরিচালক মো. আব্দুল হান্নান সিসি নিউজকে জানান, রোপা আমনে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ৪৯ হাজার ৭১৩ হেক্টর। অর্জিত হয়েছে ২ লাখ ৫২ হাজার ৮৫০ হেক্টর। চাল আকারে উৎপাদন ৭ লাখ ৫ হাজার ১৫০ মেট্রিক টন। এর মধ্যে হাইব্রিড ২০, উপশি ৩১ ও স্থানীয় ১৪ জাত রয়েছে। কৃষি খাতে উৎপাদন খরচ হয় প্রতি কেজিতে ১৬ টাকা।
দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল কাদির জানান, রোপা মৌসুমে দিনাজপুরে ১৮টি মিলের সাথে চুক্তি হয় ৩৩ হাজার ৪২৪ মেট্রিক টন চাল ক্রয়ের। প্রতি কেজি চালের মূল্যে ৩২ টাকা। এর মধ্যে ১০ হাজার মেট্রিক টন চাল শ্রীলংকায় রপ্তানী করা হয়েছে।
দিনাজপুর চাউল কল মিল মালিক গ্রুপের সভাপতি হামিদুর রহমান এ সরকারি চাল ক্রয়ের সূত্র ধরে বলেন, উৎপাদিত চাল থেকে মাত্র ৩৩ হাজার ৪২৪ মেট্রিক টন চাল সরকার ক্রয় করেছে। অবশিষ্ট ৬ লাখ ৭১ হাজার ৭২৬ মেট্রিক টন চাল মিলে রয়েছে। এসব লোকসান করে বাজারেই বিক্রি করতে হবে। এলসিতে শুল্কমুক্ত চাল আসার কারনে কৃষক, চাউল কল মালিক, আড়ৎদার ও ট্রাক মালিকদের লাখ লাখ টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে।
দিনাজপুর এনএ মার্কেটের ব্যবসায়ী আকবর আলী জানান, ৫০ কেজির বস্তা দেশি স্বর্ণা ১৫’শ ৫০ ও এলসিতে আসা স্বর্ণা ১৪’শ ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ