• রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:১২ পূর্বাহ্ন |

সোহাগের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

__________,(________)___,_____________ _____ 11-02-2015পার্বতীপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মোস্তফাপুর ইউনিয়নয়ের হাবিবপুর গ্রামের ৪১ একর ৩০ শতক জমি নিয়ে সংর্ঘষের ঘটনায় আদিবাসীদের তীরবিদ্ধ হয়ে নিহত শাফিকুল ইসলাম সোহাগের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার এবং দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবীতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয় আদিবাসীরা নিজেদের কুর্কম ডাকতে নিজেরাই নিজেদের বাড়িঘর ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে।
মঙ্গলবার সকালে দিনাজপুর প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে জিয়াউল হক লিখিত বক্তব্যে জানান, পার্বতীপুর উপজেলার ৭নং মোস্তফাপুর ইউনিয়নের হাবিবপুর চিরাকুঠা আদিবাসী গ্রামের ৪০ একর ৩০ শতক জমির মধ্য হতে ১৯৭৯ সালে তাদের পিতা মৃত মোহাম্মদ আলী ১৯ একর ২৪ শতক ভুমি মো. জিয়াউল হক ও তার ছোট ভাই জহুরুল হকের নামে খরিদ করেন।
সেই থেকে ২/৩ বছর ভোগদখলের পর বিবাদীগন ১৯৮২ সালে ২৪৫/৮২ মামলা আনয়ন করে এরপর আমরা ১৯৮৭ সালে ১২৭/৮৭ স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা মামলা আনয়ন করলে মামলা ২টি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে। তার পর থেকে জমিটিতে আমরাই ভোগদখল করছিলাম। এরপর হঠাৎ করেই ২৪ জানুয়ারীর এই ঘটনা ঘটিয়েছে আদিবাসীরা।
হাবিবপুর মন্ডলপাড়া গ্রামের জিয়াউল হক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত ২৪ শে জানুয়ারি সকালে জহুরুল ইসলাম নিজ জমিতে পানি সেচ প্রদানকালে তার উপর আদিবাসীরা তীরধনুক,চাইনিজ কুড়াল বল্লম ও অন্যান্য দেশীয় অশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা চালায় এ সময় তাকে এলোপাতারী কুপিয়ে আহত করে।
এসময় জহুরুলের ছেলে শাফিকুল ইসলাম সোহাগ পিতাকে নিসংস্ব ভাবে মারতে দেখে এগিয়ে গেলে আদিবাসীরা তাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে জমিতে েেফেল দেয় এবং সেখানেই তাকে পরপর ৩টি তীরবিদ্ধ করে হত্যা করার পর বীরদর্পে নিজেদের বাড়িতে চলে যায় এবং সেখানে গিয়ে নিজেরাই নিজেদের বাড়িঘর ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগ করেছে। অবস্থার এক পর্যায়ে গ্রামবাসীরা হামলাকারী আদিবাসীদের গ্রাম ঘিরে ফেলে এবং পুলিশে খবর দেয়।
গ্রামবাসীদের মাধ্যমে এই ঘটনার সংবাদ পেয়ে প্রথমে পার্বুতীপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে আসেন,অবস্থা বেগতিক দেখে তারাই জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানালে পরবর্তীতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ এবং বিজিবি এসে আদিবাসী গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১৯ জনকে আটক করে।
জয়াউল হক সাংবাদিকদের জানান,তাদের লাগানো আগুনের মিথ্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে নিরীহ কয়েক হাজার গ্রামবাসীকে আর এই মামলার আসামি খুজতে হয়রানি করা হচ্ছে গ্রামবাসীকে। আমরা হত্যাকারীদেও গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চাই।
সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জিয়াউল হক জানান,আদালতের মাধ্যমে পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ওই ১৯ একর ২৪ শতক জমিতে তারাই র্পুবাপর আবাদ করে আসিছিলেন,আদিবাসীরা জোরপূর্বক জমিতে অনধিকার প্রবেশ করে হত্যাকান্ড ঘটিয়ে তৈরি করা সহিংসতার দায়ভার গ্রামবাসীর ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন শাফিকুল ইসলাম সোহাগ হত্যা মামলার বাদী মো. মাহমুদুল হক,আমিনুল ইসলাম ও মো. আজিম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ