• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১১:৫০ অপরাহ্ন |

মানুষ পুড়ে মারাই বড় ক্ষতি

Pabna-Pic-PUST-F-Minister-01.03.2015পাবনা: টানা অবরোধের সঙ্গে যুক্ত হওয়া হরতালে মানুষ পুড়ে মারাই বড় ক্ষতি বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

তিনি বলেন, ‘মানুষ পুড়ে মারার চেয়ে আর বড় ক্ষতি কি হতে পারে? বিএনপি-জামায়াত জোট আন্দোলনের নামে আগুন সন্ত্রাসের কর্মকাণ্ড করে যানবাহনে আগুন দিয়ে যখন ফায়দা হাসিল করতে পারছেন না, তখন একাত্তরের গণহত্যার মতোই সাধারণ মানুষ পুড়ে হত্যা করে নিজেদের লালসা মিটিয়ে উল্লাস করছে।’

রোববার পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীনবরণ, বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সপ্তাহ শুরু এবং ইন্টার ইউনিভার্সিটি আইটি ফেয়ার-২০১৪’র বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বিএনপি-জামায়াত জোট পরিকল্পিতভাবে দেশের ক্ষতি আর উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করতে চায় দাবি করে তিনি বলেন, ‘দেশটাকে একাত্তরের শত্রু বিএনপি-জামায়াতের ভীতির হাত থেকে উদ্ধার করতে হবে।’

চলমান অবরোধ-হরতালেও আমদানি-রপ্তানি অব্যাহত আছে দাবি করে মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের এই পরিকল্পিত অস্থিরতার মধ্যেও বিনিয়োগ, আমদানি-রপ্তানিসহ জিডিপি অর্জন কিন্তু থেমে নেই। গত ৫ বছরের ব্যবধানে ৫০ শতাংশ দরিদ্র থেকে হ্রাস পেয়ে বর্তমানে ২২ শতাংশ এবং ১৭ শতাংশ হতদরিদ্র হ্রাস পেয়ে ১১ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে। এছাড়াও দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে এই বৈষম্য হ্রাস পেয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন।

পাবিপ্রবি’র ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আল-নকীব চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি, সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুরজ্জামান নূর এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স, জেলা পরিষদ প্রশাসক এম সাইদুল হক চুন্নু, জেলা প্রশাসক (ভারপ্রাপ্ত) মোল্লা মাহমুদ হাসান, পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘অগ্রগতির লড়াই চলছে, কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে চাই। বর্তমান সরকার প্রধানের কিছুই চাওয়া পাওয়ার নেই। শুধু স্বপ্ন সোনার বাংলা গড়ার। আর এই সোনার বাংলা গড়তে প্রশিক্ষিত যুব সমাজ গড়ে তুলতে হবে। আর এই লক্ষ্য নিয়েই সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।’

এ সময় তিনি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করে কোন মহৎ আদর্শ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না বলেও মন্তব্য করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘মহাযুদ্ধ শেষে আবার জঙ্গিদমন যুদ্ধে নামতে হবে। ৫২, ৭১ ও ৯০ এই তিনদাগেই রয়েছে বাংলাদেশের অর্জন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ আর নব্বইয়ের গণঅভ্যত্থান আন্দোলনই বাংলাদেশের গণতান্ত্রিত চর্চার মুলমন্ত্র ‘

মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী ইনু বলেন, ‘পাকিস্তানী দোষর রাজাকাররা নিজেদের খোলস পাল্টে ক্ষমতায় এসে সোনার বাংলাকে যে অপবিত্র করেছিল, তার পবিত্রতা রক্ষা করতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের আন্তর্জাতিক মানের বিচারের মুখোমুখি করে জেল, যাবজ্জীবন ও ফাঁসির সন্মুখিন করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্র নির্ভেজাল। সামরিক শাসন কখনও কল্যাণকর হতে পারে না। মানব নামক দানবদের সাথে সংলাপপন্থীরা মিটমাটের চেষ্টা চালাচ্ছেন। কিন্তু জঙ্গিবাদী, রাজাকার ও দানব নামক আগুন সন্ত্রাসের সাথে কোন সংলাপ হতে পারে না।’

এর আগে বাংলা বিভাগের প্রমথ চৌধুরীর ‘সবুজপত্র’ গবেষণাপত্রের মোড়ক উন্মোচন, নবীন শিক্ষার্থীদের গ্রহণ, প্রবীনদের বিদায়, ইন্টার ইউনিভার্সিটি আইটি ফেয়ার-২০১৪’র বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণী, সপ্তাহব্যাপী ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে উদ্বোধন করা হয়। এছাড়াও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ