• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১১:১১ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাটে পুকুরের মাছ লুট: থানায় মামলা

kurigramরাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রাজারহাটে পুকুরের মাছ লুট করার সময় পুকুর মালিকের কলেজ পড়ুয়া পুত্র প্রতিবাদ করলে সন্ত্রাসীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এ খবর ছড়িয়ে পরলে পুকুর মালিক সুশীল চন্দ্র রায় ঘটনাস্থলে পৌছে মাছ লুটের ঘটনা জানতে চাইলে সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে আবারও হামলা চালিয়ে ১০ ব্যক্তিকে আহত করে। এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার নাজিমখাঁন ইউপির রামকৃষ্ণ এলাকায়। মামলার বিবরণে প্রকাশ, নাজিমখাঁন ইউপির রামকৃষ্ণ এলাকার মৎসচাষি সুশীল চন্দ্র রায় (৫০) এর নিজস্ব সম্পত্তির পুকুরে সন্ত্রাসী কায়দায় মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে গত ২২-০২-২০১৫ইং দুপুরে তার ছোট ভাই ললিত চন্দ্র ও নরেশ চন্দ্র রায় জোর পূর্বক পুকুরে জাল ফেলে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরে। এসময় সুশীলের কলেজ পড়–য়া পুত্র মাছ ধরতে বাধা দেয়ায় ক্ষিপ্ত হইয়া সন্ত্রাসীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এবং সন্ত্রাসীদের হামলায় আরও ৯ ব্যক্তি আহত হয়। আহতরা হলো- সুজন চন্দ্র রায় (২০), ছিদাম চন্দ্র (৪০), ফুলবাবু (৩৮), লজেন চন্দ্র (৩৫), ফুলরাণী (৩১), শংকর (৪১), নিতাই চন্দ্র (২৫), শ্রীকান্ত রায় (৭০)। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে রাজারহাট হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে  সুশীল চন্দ্র রায় বাদি হয়ে রাজারহাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-১৯, তাং-২৭-০২-২০১৫ইং। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই শাহীন বলেন, তদন্তপূর্বক গতরাতে মামলাটি রেকর্ডভুক্ত হয়েছে। এবং আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

পাঠ্যবই বিক্রির অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে
কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলাধীন হরিশ্বর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা বৃহস্পতিবার প্রায় ৭ মন ওজনের পুরনো পাঠ্য বই অফিসে জমা দেয়ার নাম করে বাজারে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই প্রতিষ্ঠানের এসএমসির সভাপতি ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এসএমসির সভাপতি মোঃ আব্দুল লতিফ মোল্লা বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে হঠাৎ প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা উপজেলা শিক্ষা অফিসে জমা দেয়ার নাম করে পুরনো পাঠ্য বই আড়াই মন ধারন ক্ষমতা সম্পন্ন তিনটি বস্তায় ভরিয়ে ভ্যানে উঠিয়ে নিয়ে যান। পরে জানতে পারি তিনি ওই বই গুলো খোলা বাজারে বিক্রি করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে সহকারী এক শিক্ষক এ প্রতিবেদককে জানান, তিনি তার ইচ্ছামত প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করেন। অপরদিকে প্রথম শ্রেণী হতে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের হাতে নিষিদ্ধ ঘোষিত নোট বই তুলে দেয়ার একাধিক অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার মোঃ আফজাল হোসেনের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, আমি ওই প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব প্রাপ্ত ক্লাস্টার। পুরনো বইগুলো অফিসে জমা দেয়ার ব্যাপারে তিনি আমাকে কিছুই বলেননি। এবং লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
প্রধান শিক্ষক মোঃ গোলাম মোস্তফা বলেন, স্কুলে আসেন। তারপর সাক্ষাতে কথা বলি, বলে তিনি ফোনটি কেটে দেন। সবমিলিয়ে ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের যেন অন্ত নেই। তিনি শিক্ষকতার পাশাপাশি ওকালতি পেশা সহ বিভিন্ন তদবিরে ব্যস্ত থাকেন সব সময়। স্কুলে ঠিকমত উপস্থিত না থেকেও হাজিরা খাতায় নিয়মিত স্বাক্ষর করে বিল উত্তোলন করে আসছেন। সম্প্রতি তাকে কুড়িগ্রাম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তাকে সতর্ক করে দিয়েছেন। তার পর ও তিনি বহাল তবিয়তে ওই প্রতিষ্ঠানে বীর দর্পে চাকুরী করে আসছেন। এর শেষ কোথায় তা জানতে চান এলাকাবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ