• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন |

খানসামায় স্কুল লেভেল ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের টাকা নিয়ে তামাশা !

Durসিসি নিউজ: দিনাজপুরের খানসামার ১৪২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্কুল লেভেল ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের  ১৬ লাখ ৮৪ হাজার টাকা নিয়ে ৪ কর্মকর্তা উধাও হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।  স্কুলের ব্যাংক একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করে ওই কর্মকর্তার হাতে তুলে দেয়ায় বিপাকে পড়েছে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা।

সূত্র মতে, ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে স্কুল লেভেল ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের ২য় পর্যায়ের আওতায় উপজেলার ১৪২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে এককালীন ১২ হাজার করে মোট  ১৬ লাখ ৮৪ হাজার টাকা প্রদান করে। যা দিয়ে স্কুল পরিচালনা কমিটি প্রয়োজন অনুযায়ী গোটা বছরে শিক্ষা সংক্রান্ত উপকরণ ক্রয় করবে। আর এটি সঠিক বাস্তবায়নের জন্য দেখভাল করবেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।  আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ওই অফিসের ৪জন সহকারী শিক্ষা অফিসার দলবদ্ধ হয়ে প্রধান শিক্ষকদের কাছ থেকে বাধ্যতামূলক ভাবে ওই টাকা হাতিয়ে নেয়। বিনিময়ে গোটা বছরের জন্য তারা নিজেরাই পছন্দ মতো শিক্ষা উপকরণ প্রদান করবে।  আর কোন প্রতিষ্ঠান নিজেই উপকরণ ক্রয় করলে তা নিম্নমানের উল্লেখ করে টাকা তছরুপে দায়ী ও উপকরণ বাতিল করার হুমকি প্রদান করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন প্রধান শিক্ষক জানান,  বিগত বছরের প্রথম পর্যায়ের টাকা একই পদ্ধতি গ্রহণ করে নিম্নমানের উপকরণ প্রদান করেছিল। যার মূল্য কখনও সাত হাজার টাকার বেশী হবে না। ফলে ১৪২টি প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ৭ লাখ টাকা আত্মসাত করেছে। একই পদ্ধতিতে এ বছরেও একই কায়দায় প্রধান শিক্ষকদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়। তারা পার্শ্ববর্তী জেলা শহরের আদ্য অক্ষর (স) নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগসাজশে নিম্নমানের মালামাল প্রদানের সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করে।

ঠিক এ সময়ে গত ২২ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ড. মো: আবু হেনা মোস্তফা কামাল (এনডিসি)’র স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে উপজেলা শিক্ষা অফিসের  ওই ৪ জন সহকারি শিক্ষা অফিসারকে সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন উপজেলায় বদলী করেছে । প্রজ্ঞাপনে জানা গেছে, সহকারি শিক্ষা অফিসারদের মধ্যে মো: বজলুর রশিদকে সিলেটের বিয়ানীবাজারে, মো: আব্দুস ছামাদকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায়, মো: রুহুল আমিনকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় এবং মো: আজমল হোসেনকে সন্দীপ উপজেলায় বদলী করেছেন। প্রজ্ঞাপনে বদলীকৃত সহকারি শিক্ষা অফিসারদেরকে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কর্মস্থলে যোগদান করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে তাদেরকে তাৎক্ষণিক অবমুক্ত করা হবে বলেও উল্লেখ রয়েছে। অপরদিকে কুড়িগ্রামের উলিপুর থেকে মো: আবু মোত্তালেব আলম ও মো: বুলবুল আহমেদ, ভুরুঙ্গামারী থেকে মো: বোরজাহান কবীর, এবং চিলমারী থেকে মো: জাহেদুল ইসলামকে খানসামা উপজেলায় বদলী করা হয়েছে।

একটি সূত্র জানায়, বদলী হওয়ার পরও ওই চার সহকারী শিক্ষা অফিসার নিম্নমানের ওইসব মালামাল প্রতিষ্ঠানগুলোতে পাঠানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু শিক্ষকের একটি অংশ এটি প্রতিহতের ঘোষণা দেয়ায় তা ব্যর্থ

 হয়েছে। অপরদিকে ব্যাংক একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করায় এবং দীর্ঘদিনেও উপকরণ না মেলায় প্রধান শিক্ষকরা বিপাকে পড়েছে।

প্রধান শিক্ষকরা শিক্ষকদের একাধিক সূত্র জানায়, ওই ৪ সহকারি শিক্ষা অফিসার দীর্ঘ দিন ধরে নানা ধরণের অনিয়ম দুর্নীতি করে আসছিলেন। তারা ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে উপজেলার বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষা উপকরণ ক্রয়ের জন্য প্রদত্ত স্লিপের ১২ হাজার করে টাকা বাধ্যতামূলক ভাবে শিক্ষকদের কাছ থেকে গ্রহণ করে এ পর্যন্ত কোন উপকরণ প্রদান করেনি। এছাড়াও বিগত ২০১৩-১৪ অর্থ বছরের স্লিপের ১১ হাজার করে টাকা নিয়ে নিম্নমানের মালামাল প্রদান করেন বলেও তারা জনান। তবে সহকারি শিক্ষা অফিসারদের বদলীর ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুস সালামের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, বদলীর সুনির্দিষ্ট কোন কারণ আমার জানা নেই। এটি কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ