• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০২:২২ অপরাহ্ন |

পৌর মেয়রের লাশ মিললো আজিমপুর গোরস্থানে

Lasরাজশাহী: নিখোঁজ রাজশাহীর নওহাটা পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল গফুরের সন্ধান মিলেছে। তবে জীবিত নয়, মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে তাকে। আব্দুল গফুরকে হত্যার পর ঢাকার আজিমপুর গোরস্থানে দাফন করা হয়েছিল।
কথিত চিকিৎসক জান্নাতুন সালমা মীম রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বিষয়টি স্বীকার করার পর মঙ্গলবার দুপুরে পবা থানা পুলিশের একটি দল আজিমপুর গোরস্থানে পৌঁছে। পরে বিকেল পাঁচটার দিকে তার লাশ উত্তোলন করা হয়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পবা থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, আজিমপুর গোরস্থানের রেজিস্ট্রি খাতায় মেয়র গফুরের মৃত্যু ৩ জানুয়ারি ও দাফন ৬ জানুয়ারি উল্লেখ করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মিম মেয়র আব্দুল গফুরকে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করেছেন।

তবে পরপর দুই দিন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়ার সময় বিষয়টি মীম অস্বীকার করেন। সে কারণে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের গত সোমবার আরো সাত দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়।
এরপর মীমের দেয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মঙ্গলবার দুপুরে আজিমপুর গোরস্থানে মীমকে নিয়ে উপস্থিত হলে গোরস্থানের কেয়ারটেকার মেয়র গফুরকে দাফনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, কথিত চিকিৎসক মীম গোরস্থানে মেয়র গফুরকে তার ভাই হিসেবে পরিচয় দেয়।
মেয়র গফুর ৩ জানুয়ারি মারা যান। তার লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে রাখা ছিলো। পরে সেখান থেকে ৬ জানুয়ারি আজিমপুর গোরস্থানে দাফন করা হয়।
মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মেয়র গফুরের লাশ আজিমপুর গোরস্থান থেকে উত্তোলন করা হয়।
এরআগে গত ১৯ জানুয়ারি পৌর মেয়রের বর্তমান স্ত্রী ফজিলাতুন্নেসা পারুল বাদি হয়ে পবা থানায় অপহরণের মামলা দায়ের করেন।
নওহাটা পৌরসভা ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পৌর মেয়র গফুর ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন।
এদিকে, মামলার পরে কথিত চিকিৎসক জান্নাতুন সালমা মীমকে ঢাকা থেকে আটক করা হয়। পরে ৩১ জানুয়ারি মীমের দু’বোন জান্নাতুন নাইম ও জান্নাতুন ফেরদৌসকে নওগাঁ ও ঢাকা আটক করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ