• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন |

পটুয়াখালীতে কৃষকের বন্ধু ড্রোন

Patuakhali-Drone_-Agricultuar-BM-up01-e1425473415389পটুয়াখালী: দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বপ্রথম বাংলাদেশে কৃষি গবেষণায় ব্যবহার করা হচ্ছে চালক বিহীন উড়ন্ত যান ড্রোন। দীর্ঘমেয়াদী খাদ্য স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন বজায় রাখতে উপকূলীয় এলাকা বরিশাল বিভাগে কৃষি উন্নয়নে গবেষণার কাজ শুরু করেছে অত্যাধুনিক এ যন্ত্রটি।

প্রায় একমাস ধরে দক্ষিণাঞ্চলের পটুয়াখালী সদরের জৈনকাঠি, কলাপাড়ার পূর্বআমীরাবাদ ও বরিশাল সদরের উলানবাদনা গ্রামে ড্রোন দিয়ে এগিয়ে চলছে কৃষি গবেষণা।

বাংলাদেশ সরকারের প্রতিরক্ষা ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনক্রমে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বাংলাদশে কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, নেদারল্যান্ডের টুয়েন্ট বিশ্ববিদ্যালয় এবং আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম উন্নয়ন কেন্দ্র যৌথভাবে ‘স্টারস’ প্রকল্প কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এ প্রকল্পের আওতায় দেশের কৃষি গবেষণায় আধুনিক, উন্নত এবং কার্যকর প্রযুক্তি ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে। এর সহায়তায় কৃষক জমিতে পরিমিত সার প্রয়োগ এবং রোগ-পোকামাকড়ের আক্রমণ দমন করার বার্তা বা তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম গবেষণা কেন্দ্রের গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ জানান, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন উন্নত দেশে কৃষি গবেষণায় সফলভাবে ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে।

কলাপাড়ার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের পূর্বআমিরাবাদ গ্রামের কৃষক মো. সরোয়ার জানান, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ড্রোনের সাহায্যে আমার চাষ করা জমির ভুট্টা, মুগডাল, গমের প্লট পর্যবেক্ষণ ও পরীক্ষা নিরীক্ষা শুরু হয়। বিভিন্ন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে ড্রোনটিতে ক্যামেরা সংযুক্ত করে সেটা উড়ায়। তারা ছবি ও ভিডিও নিয়ে নিয়ে চলে যায় গবেষণাগারে।

কৃষক সরোয়ার আরো জানান, স্টার প্রকল্পের আওতায় সাড়ে ১২ হেক্টর জমিতে ফসল চাষ করেছি। এর ভেতরে আড়াই হেক্টরে ভুট্টা, সাড়ে তিন হেক্টরে মুগডাল, সাড়ে ছয় হেক্টরে গম চাষ করেছি। প্রথম দিকে গবেষকরা এক সপ্তাহ পর দুই বার পরীক্ষা নিরীক্ষা চালান। এখন ১৫ দিন পর পর ড্রোন নিয়ে পরীক্ষার জন্য আসেন জমির কাছে। পরীক্ষা নিরীক্ষার পর এলাকার জমিতে কখন পানি সেচ করা হবে, কী পরিমাণ সার কখন প্রয়োগ করতে হবে, ফসলের বালাইদমনসহ নানা বিষয়ে নির্দেশিকা প্রদান করবে। যা দিয়ে ভবিষ্যতে অধিক লাভের জন্য চাষাবাদ করতে পারবো। এমনকি মাটি ও পানির লবণাক্ততা পরীক্ষার জন্য একটি মেশিন নিয়ে প্রতি সপ্তাহে পরীক্ষা চালান গবেষকরা। এ গবেষণার মাধ্যমে আমননির্ভর এক ফসলী জমিতে কীভাবে একাধিক ফসল ফলাতে পারি সে বিষয় দিক নির্দেশনা দেয়া হবে।
জানতে চাইলে এসময় নীলগঞ্জ ইউনিয়নের কুমিরমারা গ্রামের কৃষক সুলতান গাজী  বলেন, শুষ্ক মওসুমে আমাদের জমি পতিত থাকে। সে জমিতে যদি কম পরিশ্রমে এবং কম খরচে গম, ভুট্টা ও ডাল চাষ করে অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জন করা যায়, তবে কেন আমাদের জমি পতিত রাখবো? বোরো চাষে যে পরিশ্রম ও খরচ তার চেয়ে গম, ভুট্টাসহ অন্যান্য ফসল ফলাতে পারি। আগামী বছর আমার জমিতেও শুষ্ক মওসুমে চাষবাদ শুরু করবো। কেননা ড্রোন দিয়ে গম, ভুট্টাসহ অন্যান্য ফসল উৎপাদনের নির্দেশিকা আমাদের তো দিবেই এ গবেষকরা। তা হলে আমরা কেন ঘরে বসে থাকবো?

এসময় কলাপাড়ার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা কৃষি ডেভলপমেন্ট অফিসার মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন জনান, ড্রোনের পাশাপাশি কুমিরমারা খালের পানির লবণাক্ততা পরিমাপের জন্য ওয়াটার ইসি মিটার ব্যবহার করি এবং মাটির লবণাক্ততা পরিমাপের জন্য ইএম-৩৮ মিটার ব্যবহার করে রেকর্ড সংগ্রহ করে গবেষণা কাজে লাগাই। এজন্য বলতে গেলে প্রতিদিন এবং প্রতি সপ্তাহে আমাদের সবাইকে মাঠে থাকতে হচ্ছে কৃষকের সঙ্গে। আমরা চাই আমাদের গবেষণায় বাংলাদেশের কৃষি ক্ষেত্রে আধুনিকতার ছোঁয়ায় টেকসই অর্থনৈতিক সাফল্য আসুক।

আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম গবেষণা কেন্দ্রের গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ আরো জানান, শুধু কৃষি গবেষণায় ব্যবহৃত ড্রোন রিপোর্ট কন্ট্রোল প্রোগ্রাম নিয়ন্ত্রিতভাবে ফসলের ক্ষেতের ৬০ মিটার উপর দিয়ে উড়ে যায়। একই সঙ্গে ধান, গম, ভুট্টা ও মুগডালসহ বিভিন্ন ফসলের স্থির ছবি, ভিডিও সংগ্রহ করে। সংগৃহিত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে ফসলের পানি এবং সারের ঘাটতি নিরীক্ষণ করা সম্ভব হয়। যাতে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় সেচ ও সার প্রদানের সময়সূচি তৈরি করা যায়। এছাড়া নির্দিষ্ট কোনো রোগ বা পোকার আক্রমণ হলে তা জানা যায়। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী প্রয়োজনীয় দমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়। এ পদ্ধতিতে সঠিক তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে ফসল উৎপাদনের বিভিন্ন সমস্যা কম সময়ে ও কম শ্রমে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়। ফলে কৃষকের সার ও সেচের পানির অপচয় এবং কীটনাশকের অপব্যবহার রোধ করা সম্ভব হবে। এ গবেষণার পরে কৃষকদের একটি নির্দিশিকা দেয়া হবে। যার মাধ্যমে কৃষকরা কখন, কী পদ্ধতিতে জমিচাষ করবে, কখন জমিতে সেচ দেবে, কখন বালাই দমন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে, কখন সার প্রয়োগ করবে, কখন ফসল তুলবে-এসব বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পেয়ে থাকবে। এ গবেষণার মাধ্যমে নীলগঞ্জের কুমিরমারা খালের পানি এবং পূর্বআমীরাবাদ গ্রামের জমির লবণাক্ততা পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য অত্যাধুনিক ইএম-৩৮ যন্ত্র ব্যবহার করছি। যন্ত্রের মাধ্যমে গবেষণা প্লটের একটি মানচিত্র নির্ধারণ করা হয়। লবণের মাত্রা নির্ধানের সেই মানচিত্রানুযায়ী কখন কোন সময় কী পরিমাণ পানি দিয়ে কী উপায়ে মাটির এবং পানির লবণাক্ততা রোধ বা হ্রাস করা যায় সে বিষয়ে কৃষকদের নির্দেশিকা দেয়া হবে।

আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম উন্নয়ন কেন্দ্রসহ অন্যান্য দাতা সংস্থার সহায়তায় গত ১৪ ডিসেম্বর জার্মান থেকে কৃষি গবেষণার জন্য দুটি ড্রোন সংগ্রহ করা হয়। পরিচালনার জন্য জার্মান থেকে বিশেষ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ। এরপর বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়েজিত বাহিনীর কাছে ড্রোনের মাধ্যমে কৃষি গবেষণার সামগ্রীক বিষয় অবহিত করা হয়। শর্তসাপেক্ষে ব্যবহারের অনুমোতিক্রমে ডিজিএফআইয়ের প্রতিনিধিদের তত্ত্বাবধানে ড্রোন দিয়ে কৃষি গবেষণার কাজ শুরু করা হয়। এমনকি ড্রোন পরিচালনার সঙ্গে থাকা চার কর্মকর্তার তথ্য ডিজিএফ আইয়ের দপ্তরে হস্তান্তর করা হয়। কলাপাড়ার নীলগঞ্জে ড্রোন দিয়ে গবেষণা পরিচালনার সময় পটুয়াখালীতে সরকারের একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা উপস্থিত থেকে তদারকি করেন বলে জানিয়েছেন গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ