• মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৯:০৪ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১১ জনপ্রতিনিধিকে বরখাস্তের প্রস্তাব

Dinajpur Map-1দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে দুই উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১১ জন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিকে বরখাস্তের প্রস্তাব স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে। ৫ জানুয়ারীর জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও পরবর্তী সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে এই ১১ জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে ২১টি মামলায় পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দায়ের করায় তাঁদেরকে বরখাস্ত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়।
দিনাজপুর স্থানীয় সরকার বিভাগের দায়িত্বশীল একটি সূত্রে জানা গেছে, ৫ জানুয়ারীর জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও পরবর্তী সময়ে সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে দিনাজপুরের নির্বাচিত ২ জন উপজেলা চেয়ারম্যান, ২ জন ভাইস চেয়ারম্যান, ৪ জন ইউপি চেয়ারম্যান এবং ৩ জন ইউপি মেম্বারকে বরখাস্ত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে। এদের সকলের বিরুদ্ধে পুলিশ মামলা তদন্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র পেশ করেছে।
সূত্রটি জানায়, জেলা জামায়াতের সাবেক আমীর ও চিরিরবন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দীন মোল্লার বিরুদ্ধে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে দায়েরকৃত মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয় ২০১৪ সালের ৭ মে। ঘোড়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি শাহ মোঃ শামীম হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয় ২০১৪ সালের ১৪ আগষ্ট।
চেহেলগাজী ইউপি চেয়ারম্যান ও দিনাজপুর সদর উপজেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি আনিসুর রহমান বাদশার বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় দায়েরকৃত ৩টি মামলার মধ্যে ১টিতে অভিযোগপত্র পেশ করা হয়। অপর ২টি মামলা সিআইডি তদন্ত করছে। খানসামা উপজেলা জামায়াতের আমীর ও ভেড়ভেড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হক সিরাজীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে দায়েরকৃত মামলায় অভিযোগপত্র পেশ করা হয়েছে। চিরিরবন্দর উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক ও নশরতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরে আলম সিদ্দিকী নয়নের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে দায়েরকৃত মামলায় ২০১৪ সালের ৭ মে আদালতে অভিযোগপত্র পেশ করা হয়। পার্বতীপুর উপজেলার বিএনপি নেতা রামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহাদৎ হোসেন সাদোর বিরুদ্ধে দন্ডবিধি আইনে দায়েরকৃত মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয় ২০১৪ সালের ২১ নভেম্বর।
কাহারোল উপজেলা জামায়াতের আমীর ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল করিম মাষ্টারের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ২টি মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ দ্রুত বিচারে ১টি ও দন্ডবিধি আইনে অপর মামলাটি দায়ের করা হয়। ঘোড়াঘাট উপজেলা জামায়াতের আমীর ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন আলমের বিরুদ্ধে ৮টি মামলা দায়ের করা হয়। সব ক’টি মামলা বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা হয়। ৮টির মধ্যে ৪টি মামলার অভিযোগপত্র ২০১৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর, ১৭ নভেম্বর, ২৭ আগষ্ট ও ২৪ আগষ্ট আদালতে পেশ করা হয়। বাকী ৪টি মামলা পুলিশী তদন্তে রয়েছে।
দিনাজপুর সদর উপজেলার চেহেলগাজী ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বার ও চেহেলগাজী ইউনিয়ন বিএনপি নেতা মোঃ নাজির হোসেন, ঘোড়াঘাট উপজেলার বুলাকীপুর ইউনিয়নের বিএনপি নেতা ওয়ার্ড মেম্বার মাহফুজুর রহমান লাভলু এবং একই ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বার বিএনপি নেতা মো. সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ৩টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে নাজির হোসেনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হলেও লাভলু ও সাইপুলের মামলা তদন্তাধীন রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ