• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন |

মানুষকে হত্যা সহ্য করা হবে না : প্রধানমন্ত্রী

Hasinaসিসি নিউজ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষকে হত্যা করা সহ্য করা হবে না। বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদার বিরুদ্ধে খুনের মামলা হয়েছে। তাদের কোনো ক্ষমা নেই। এদেশের মাটিতেই তার বিচার হবে। জঙ্গিবাদ আমরা মেনে নেবো না। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সকলকে রুখে দিতে হবে। খালেদা জিয়াকে শাস্তি পেতেই হবেই। জঙ্গি নেত্রীর বিচার হবেই হবে। তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া অফিসের মধ্যে বসে মানুষ হত্যা করবেন। আমারা সহ্য করবো না। আজ শনিবার বিকালে রাজধানীর স্যারওয়ার্দী উদ্যানে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে তিনি একথা বলেন।
এর আগে শনিবার বিকেল ৩টা ১৫ মিনিট আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় এ সমাবেশ। এতে সভাপতিত্ব করছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি সভাস্থলে পৌঁছেছেন বিকেল ৩টা ১০ মিনিটে। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতে মধ্য দিয়ে এ সমাবেশ শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা সমাবেশে উপস্থিত আছেন।
আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষের অধিকার আমাদের প্রতিষ্ঠা করতেই হবে। ২১ বছর মানুষ স্বাধীনতার ইতিহাস উচ্চারণ করতে পারেনি। ২১ বছর বঙ্গবন্ধুর ভাষন বাজাতে দেয়া হয়নি। কিন্তু কেউ দমিয়ে রাখতে পারে না। তা আজকে সৃষ্টি করেছে। আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হয়েছে।
অপরাধ করে কেউ পার পাবে না উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, একটা কথা স্পষ্ট বলতে চাই যে দেশের মানুষের জন্য জাতির পিতা কষ্ট করে গেছেন, লাখো শহীদ রক্ত দিয়ে গেছেন, যে দেশের মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার রক্ষার জন্য আমরা সংগ্রাম করেছি, গ্রেনেড হামলা, বোমা হামলা, গুলি মোকাবেলা করে এগিয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের অগ্রগতি ব্যহত করা, এদেশের মানুষকে হত্যা করা আমরা বরদাস্ত করবো না। এদেশের মানুষের রক্ত নিয়ে যারা খেলছে তাদের শাস্তি বাংলার মাটিতে হবেই হবে। জঙ্গী-সন্ত্রাসীদের কোন ক্ষমা নেই।
দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তির দোসররা আবার বাংলাদেশের মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে পেট্রোলবোমা মেরে সাধারণ মানুষ, শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষকে হত্যা করছে। আজকেই এই সভায় আসার সময়ও আমাদের বিভিন্ন মিছিলের ওপর বোমা হামলা হয়েছে। অনেকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এটা কারা করেছে? বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াই এটা করেছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি (খালেদা জিয়া) নির্বাচনে আসেন নাই। নির্বাচন প্রতিহতের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। নির্বাচনে কোন রাজনৈতিক দল আসবে কি না, এটা যে কোনো রাজনৈতিক দলের সিদ্ধান্ত। তার ভুলের মাসুল বাংলার জনগণ কেন দেবে ? দেশের মানুষের শান্তি বেগম খালেদা জিয়ার মনে অশান্তি লাগে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এক বছর বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে ছিল। বিএনপি নেত্রী আবার মানুষ হত্যা শুরু করেছেন। দেশের মানুষ শান্তিতে থাকলে বিএনপি নেত্রীর ভালো লাগে না। তার মনে অশান্তির আগুন জ্বলে ওঠে। তিনি হরতাল ডাকেন, অবরোধ ডাকেন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া বাড়ি ছেড়ে দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে বসে আছেন। ওখানে বসে উনি কোন বিপ্লব করছেন তা আমি জানি না। ওখানে বসে থাকার মাজেজাটা কী তাও আমরা জানি না। খালেদা জিয়া নিরাপত্তা চেয়ে চিঠি দেন। আবার পুলিশ পাঠালে বলেন অবরুদ্ধ করে রেখেছে। পুলিশ সরাল বলেন কেন পুলিশ সড়ানো হল। তাহলে আমরা যাব কোথায় ?
বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে ঘটতে থাকা এসব নাশকতা আর সহ্য করা হবে না মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ দেশের মানুষের রক্ত নিয়ে যারা খেলছে তাদের শাস্তি একদিন এদেশের মাটিতে হবে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে শুধু দুর্নীতি করে এতিমদের টাকা মেরে দেয়ার মামলা নয়, খুনের মামলা, খুনের হুকুম দাতার মামলাও হয়েছে। খুনির যা শাস্তি সেই শাস্তি উনাকে একদিন পেতেই হবে।
তিনি বলেন, আমাদে দেশে এক শ্রেণীর মানুষ আছে, বিএনপি যাই করুক, মানুষ মারুক, উনারা চোখে দেখেন না। উনারা শিক্ষিত মানুষ, ইউনিভার্সিটির শিক্ষক, তারপরও চোখে দেখেন না। আমাদের কিছু শিক্ষিত লোক আছে, এগুলো বোঝেনও না, দেখেনও না। কেউ চোখ থাকতে অন্ধের ভাব ধরলে দেখাবে কে ? এই ভণিতা এখন খালেদা জিয়াও শুরু করেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ