• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১২:১৯ অপরাহ্ন |

কিশোরগঞ্জে ১৩টি পরিবারের ৩০ ঘর পুড়ে ছাই

Fire Pic-Nilphamariসিসি নিউজ: ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে নীলফামারীর কিশোরঞ্জে ১৩টি পরিবারের ৩০টি ঘরসহ সর্বস্ব পুড়ে ছাই হয়েছে। এসময় চারটি গরু অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। সোমবার ভোরে উপজেলার গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম দলিরাম গ্রামে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ২০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি ক্ষতিগ্রস্তদের।
ক্ষতিগ্রস্তদের বরাত দিয়ে গাড়াগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিপ্লব কুমার রায় দিপু বাবু জানান, গ্রামের আব্দুল হামিদের গোয়াল ঘরে মশার কয়েল থেকে আগুনের সুত্রপাত হলে মুহুর্ত্বের মধ্যে আশপাশ ছড়িয়ে পড়ে। এতে হামিদসহ ওই গ্রামের ১৩টি পরিবারের ৩০টি ঘর, ঘরে থাকা ধান,চাল, আলু ও ঘরে থাকা আসবাবপত্রসহ সর্বস্ব পুড়ে ছাই হয়েছে। এসময় গ্রামের বাবুল হোসেন গোয়াল ঘরে থাকা ৩টি ও আব্দুল হামিদের গোয়াল ঘরে থাকা ১টি গরু অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। খবর পেয়ে নীলফামারীর ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট দুই ঘন্টার প্রচেষ্টায় আগুণ নিয়ন্ত্রনে আনে। অগ্নিকান্ডে ১৩টি পরিবারের অন্তত ২০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেন ক্ষতিগ্রস্তরা।
এদিকে দুপুরে কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রশিদুল ইসলাম সরকার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিদ্তিকুর রহমান ঘটনাস্থ পরির্দশ করে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা প্রনয়ন করার নির্দেশ দেন বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান।
নীলফামারী ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে সিনিয়র স্টেশন অফিসার এনামুল হক জানান, গোয়াল ঘরে মশা তারানোর কয়েল থেকে আগুনের সূত্রপাতা হয়। এতে ওই গ্রামের ১৩ পরিবারের ১৯টি শয়ন ঘর, ৮টি রান্না ঘর ও ৩টি গোয়াল ঘর ভষ্মিভুত হয় এছাড়াও চারটি গরু অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। প্রাথমিক ভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১০লাখ টাকা ধারণা করা হচ্ছে।
কিশোরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সিদ্দিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা প্রণয়ন করার জন্য প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কাছে দিতে বলা হয়েছে। তালিকা আসা মাত্র ক্ষতিগ্রস্থদের সরকারি সহযোগীতা প্রদান করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ