• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০৩:০০ অপরাহ্ন |

ভারতীয় পত্রিকায় ‘দুই ভায়রা’র প্রশংসা

MUSFIQ-1425989552খেলাধুলা ডেস্ক : অ্যাডিলেড ওভালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়ের অন্যতম দুই নায়ক মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। সম্পর্কে তারা ভায়রা ভাই।
বাংলাদেশের জয়ের পর এ দুজনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে ওঠে ভারতীয় পত্র-পত্রিকা। এই সময় পত্রিকার সাংবাদিক রূপক বসু এ দুই ভায়রার প্রশংসা করে একটি নিবন্ধ লিখেছেন। রাইজিংবিডি পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো-
মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের আত্মীয়তার সম্পর্ক নিয়ে বিভিন্ন রকম কথা উঠেছিল। অনেকে তো বলতে শুরু করেছিলেন, পারিবারিক সম্পর্কের কারণেই ভায়রাভাই মাহমুদউল্লাহকে দলে রাখছেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম!
কিন্তু অ্যাডিলেড ওভালে সোমবার এই ‘দুই ভায়রা’র ব্যাটে ভর করেই ইতিহাস রচনা করল বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডকে ১৫ রানের লজ্জায় ডুবিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।
ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ক্রিকেটে যেমন দীর্ঘ দিনের ‘জুটি’ ভায়রাভাই লক্ষ্মীরতন শুক্ল ও সৌরাশিস লাহিড়ির, তেমনই বাংলাদেশের হিট জুটি মাহমুদউল্লাহ-মুশফিক। ইংল্যান্ডকে হারাতে মাহমুদউল্লাহর রান ১০৩, মুশফিকের ৮৯। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম সেঞ্চুরির মালিক হিসেবে বাংলাদেশের ক্রিকেটে এখন মহানায়কের আসনে মাহমুদউল্লাহ।
মাহমুদউল্লাহর আদি বাড়ি ময়মনসিংহ হলেও ঢাকাতেই বেড়ে উঠেছেন তিনি। মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান মাহমুদউল্লাহ বাংলাদেশ ক্রিকেটে শ্রদ্ধার পাত্র খালেদ মাহমুদ সুজনের হাত ধরে ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে  ওঠেন। সুজনকে বাংলাদেশ ক্রিকেটে ‘চাচা’ বলে চেনে সবাই। আর সেটা শুধু নামে নয়, অভিভাবকের মতোই মাহমুদউল্লাহকে হাতে ধরে তৈরি করেছেন চাচা।
বাংলাদেশে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, মাহমুদউল্লাহ সে দেশের ক্রিকেটে বেশ প্রথম সারির তারকা, বিপিএলে তার দর উপরের দিকে। বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা যাদের পঞ্চপা-ব বলে ডাকেন, তাদেরও একজন মাহমুদউল্লাহ। বাকি চার জন সাকিব আল হাসান, মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিম।
তা হলে কেন বাকি চার জনের মতো বিশ্ব ক্রিকেট মহলে খ্যাতি নেই মাহমুদউল্লাহর? বাংলাদেশের ক্রিকেট মহল বলছে, প্রতিভার অভাব নেই, কিন্তু ধারাবাহিকতার অভাবই মাহমুদউল্লাহর শত্রু। আট বছর ধরে আন্তজার্তিক ক্রিকেট খেলছেন। ২৩ টেস্টে ১২৮৫ রান। ১১৪ ওয়ানডেতে করেছেন ২৩৩৯ রান।
নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে সেঞ্চুরি আছে মাহমুদউল্লাহর। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অভিষেক টেস্টে এক ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন এই অলরাউন্ডার। ডান হাতি ব্যাটের সঙ্গে তার অফ স্পিনও বড় ভরসা বাংলাদেশের। এত কিছুর পরও মাঝেমাঝে ফর্ম হারিয়ে টিমে থেকে গিয়েছেন! তখনকার অধিনায়ক মুশফিকের দিকে সে সময় আঙুল তুলেছেন কেউ কেউ।
সোমবার অবশ্য দুই বোনের ‘লেডি লাক’ বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করল। ২০১১ সালে জান্নাতুল কাউসার মিষ্টির সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল মাহমুদউল্লাহর। আর গত আগস্টে তার বোন জান্নাতুল কিফায়াত মুন্ডির সঙ্গে জীবনের বাইশ গজে জুটি বেঁধেছেন মুশফিক।
দুই বোন এখন অস্ট্রেলিয়াতেই রয়েছেন তাদের স্বামীদের সঙ্গে। ২৯ বছরের জীবনে মাহমুদউল্লাহর স্ত্রীর অবদান যে অনেকখানি সেটা অ্যাডিলেডে ঐতিহাসিক ম্যাচের পর বোঝা গেছে। মাহমুদউল্লাহ নিজেই বলেছেন, ‘আমি আমার সাফল্য স্ত্রী ও সন্তানকে উৎসর্গ করছি।’
এমনিতে এ সময়টা উৎসবমুখর হয়ে ওঠে বাংলাদেশ। মার্চে স্বাধীনতা দিবস ও এপ্রিলে বাংলা নববর্ষ ঘিরে। সেখানে মাহমুদউল্লাহর সেঞ্চুরি যেন সোনার বাংলাকে আরো বেশি উজ্জীবিত করে দিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ