• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন |

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি এলাকার তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঝুঁকিপূর্ণ

Boropukuria Coal khoni দিনাজপুর/পার্বতীপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া বাজার দাখিল মাদরাসাসহ তিনটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এক হাজার শিক্ষার্থী ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করছে। জানা গেছে, বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি থেকে কয়লা উত্তোলনের ফলে এ এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। ফলে খনি কর্তৃপক্ষ সাড়ে তিন বছর আগে এলাকাটিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করে। পরবর্তীকালে এলাকার জমিসহ স্থাপনা অধিগ্রহণ করে খনি কর্তৃপক্ষ তিপূরণ প্রদান করলেও স্থানান্তর করা হয়নি এ তিনটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বর্তমানে বড়পুকুরিয়া দাখিল মাদরাসা, বড়পুকুরিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও বড়পুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনেই চালু রাখা হয়েছে শিক্ষাকার্যক্রম। এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো যেকোনো সময় দেবে ঘটতে পারে অনাকাক্সিত ঘটনা। জানা গেছে,র্ বড়পুকুরিয়া বাজারে কয়লাখনির কারণে ভূমি অবনমন হয়ে জলরাশি সৃষ্টি হয়েছে বাজার এলাকার ঈদগাহ মাঠসহ বিশাল এলাকাজুড়ে। সে জলরাশির ধারেই বড়পুকুরিয়া দাখিল মাদরাসা। মাদরাসার ঘরগুলোর এখন জরাজীর্ণ দশা। দীর্ঘ দিন ধরে কোনো মেরামত করা হয়নি। জরাজীর্ণ হেলে পড়া ঘরেই ক্লাস করছে মাদরাসার ছাত্রছাত্রীরা। ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকরা জানান, দিনে কয়েকবার করে ভূকম্পন হয়, কম্পনের সময় তারা প্রাণভয়ে ক্লাস ছেড়ে বাইরে চলে আসেন। একই কথা বলেন এলাকার বাসিন্দারা। তারা জানান, মাদরাসাসংলগ্ন জিগাগাড়ী গ্রামের বাসিন্দারা এখন বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন। মাদরাসা কর্তৃপক্ষ খনি থেকে ক্ষতিপূরণ বাবদ টাকা পেলেও তারা মাদরাসাটিকে স্থানান্তর করছেন না। এ জন্য মাদরাসার শিক্ষার্থীসহ অভিভাবকেরা উদ্বিগ্ন। তারা মাদরাসার সুপারসহ ম্যানেজিং কমিটিকে বারবার অনুরোধ করেও কোনো ফল পাননি বলে অভিযোগ করেন। একই অবস্থা মাদরাসার ২০০ গজ পূর্বে অবস্থিত বড়পুকুরিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও বড়পুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। এলাকাবাসী ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে অধ্যয়নরত শিার্থীদের অভিভাবকেরা অভিযোগ করেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা থেকে স্থানান্তর করার দাবিতে কয়েক দফায় মানববন্ধনসহ একাধিক কর্মসূচি পালন করা হলেও কর্তৃপরে টনক নড়েনি।এ দিকে বড়পুকুরিয়া বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, মাদরাসার জরাজীর্ণ ঘরগুলো এখন অপরাধীদের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে সেখানে বসে জুয়া ও নেশার আসর। এ ছাড়া চলে অসামাজিক কার্যকলাপ। তারা বলেন, গত ১ মার্চ অসামাজিক কর্মে লিপ্ত থাকার অপরাধে মাদরাসা থেকে এক তরুণ ও এক তরুণীকে আটক করেছে বড়পুকুরিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দের পুলিশ। এর কয়েক মাস আগেও একই ঘটনা ঘটেছিল। এই বিষয়ে মাদরাসার সুপার আনিসুর রহমান বলেন, মাদরাসার জায়গা কেনার চেষ্টা চলছে। কিছু দিনের মধ্যেই কেনা হয়ে যাবে।বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির কয়লা উত্তোলনের কারণে এ এলাকায় ভূমি অবনমন হতে শুরু হলে খনি কর্তৃপ ২০১১ সালে এ এলাকাটিকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করে বাড়িঘর, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে ক্ষতিপূরণ দেয়। এরপর এ এলাকার বাসিন্দারা তাদের ঘরবাড়ি ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান গুটিয়ে অন্যত্র চলে গেলেও এখনো এ তিনটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়ে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ