• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন |

হত্যাকারীদের চিনতে পারবেন অভিজিতের স্ত্রী

Ovijidসিসি ডেস্ক: ‘সাহায্যের জন্য অনেক ডাকাডাকি করলেও কেউ এগিয়ে আসেনি।সবাই হা করে তাকিয়ে দেখছিল। রক্তের স্রোত বয়ে যাচ্ছিল। তবুও কেউ আসেনি। অবশেষে এক ফটোগ্রাফার এগিয়ে আসেন। তিনি একটি সিএনজি ডেকে আনেন। অভিজিৎকে সেটাতে তুলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ততক্ষণে অভিজিৎ চলে গেছেন না ফেরার দেশে। তার চিন্তায় আমিও অজ্ঞান হয়ে যাই।’

মঙ্গলবার রাতে অভিজিতের বাবা অজয় রায়ের সঙ্গে কথা হয়। তিনি জানান, রাফিদা আহমেদ বন্যার সঙ্গে তার কথা হয়েছে। বন্যা এভাবে তার শ্বশুরের কাছে ঘটনার বর্ণনা দেন।

বন্যা বলেন, ‘সেদিনের দুঃস্মৃতি আজও তাড়া করে। প্রিয়তম স্বামীকে হারানোর দৃশ্য চোখের সামনে ভেসে ওঠে। খুনিদের দেখলে চিনতে পারব। অন্তত একজনকে, যার খোঁচা খোঁচা দাড়ি ছিল মুখে। আরো দুজন কাছেই দাঁড়িয়েছিল।’
গত ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে বইমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির কাছে দুর্বৃত্তদের চাপাতির আঘাতে নিহত হন অভিজিৎ। তার স্ত্রী বন্যা আহত হয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে আছেন। এরই মধ্যে মামলার তদন্ত করতে গোয়েন্দা পুলিশের পাশাপাশি মার্কিন তদন্ত সংস্থা এফবিআইয়ের কর্মকর্তারা বাংলাদেশে অবস্থান করছেন। হত্যাকাণ্ডের আলামতগুলো যুক্তরাষ্ট্রের ল্যাবে পরীক্ষার জন্য অনুমোদন দিয়েছেন আদালত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ