• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন |

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানি স্বাভাবিক

hiliমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর : ২০ দলীয় জোটের ডাকা টানা অবরোধ-হরতালে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে। প্রভাব পড়েনি রাজস্ব আয়ে। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির প্রহরায় দ্বিগুণ ভাড়ায় পণ্যসামগ্রী দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করা হচ্ছে।
হিলি স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিন পণ্য আমদানি-রফতানি হলেও হরতাল-অবরোধে বন্দরে দেখা দিয়েছে ক্রেতা সঙ্কট। আবার ক্রেতা থাকলেও ব্যবসায়ীদের ট্রাক ভাড়া দিতে হচ্ছে দ্বিগুণ। মালামাল পাঠাতে না পেরে অনেক আমদানিকারক পণ্য সামগ্রী গুদামজাত করছেন। আবার অনেকেই পুলিশ-বিজিবি প্রহরায় দ্বিগুণ ভাড়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানে কাঁচামাল পাঠাচ্ছেন।
হিলি কাচামাল আমদানিকারক গ্রুপের আহ্বায়ক হারুনুর রশীদ হারুন জানান, পুলিশ-র‌্যাব ও বিজিবির প্রহরায় পণ্য সরবরাহ করা হলেও পরিবহন সঙ্কটে অনেক পণ্যই আটকা পড়ে থাকছে বন্দরেই। ফলে লোকসান গুনছেন স্থানীয় আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা। যে পরিমাণের পণ্যবার্হী ট্রাক পুলিশ প্রহরায় দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হচ্ছে তা দিয়ে এই বন্দরের চাহিদা পুরন হচ্ছে না। ট্রাক মালিকরা নাশকতার ভয়ে তাদের গাড়ি বের না করায় দ্বিগুণ-তিনগুণ ভাড়া দিয়ে পণ্য বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হচ্ছে। পরিবহন খরচ বৃদ্ধি পাওয়ায় এর প্রভার পড়ছে খুচরা বাজারে।
চাল আমদানিকারক বিনোদ চন্দ্র জানান, ক্রেতা কমে যাওয়ায় চালের মজুদ গড়ছেন নিজেরাই। তাড়াও পড়েছেন গুদাম সঙ্কটে। সময় মতো চাল বিক্রি করতে না পারায় দিতে হচ্ছে ব্যাংক সুদ। অপরদিকে চালের গুণগত মানও নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তাই তারা নতুন করে এলসি খোলাও বন্ধ রেখেছেন।
হাকিমপুর উপজেলা নিবার্হী অফিসার আজহারুল ইসলাম জানান, যতই প্রতিকূলতা আসুক বন্দরের আমদানি-রফতানি চলবে এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থায় গন্তব্যস্থলে পণ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হবে।
হিলি কাস্টমস সহকারী কমিশনার মহিববুর রহমান জানান, বন্দরের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য স্বাভাবিক থাকায় রাজস্ব আদায়ে কোনো প্রভাব পড়েনি।
অপরদিকে বিজিবির দিনাজপুর সেক্টর কমান্ডার হলা হেনমং জানান, সেক্টরের ১২ প্লাটুন সদস্য জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিধানে মাঠে অবস্থান করছেন। তারা যৌথ বাহিনীর সাথে সমন্বয় করে বিশেষ টাস্কফোর্স অপারেশনে অংশ নিচ্ছে। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সহায়তায় দিনাজপুরের সবকটি রুটে যাত্রীবাহী গণপরিবহন চলাচল অব্যাহত রয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির নিরাপত্তায় জেলার ১১টি রুটে যাত্রীবাহী গণপরিবহন স্বাভাবিকভাবে চলাচল করায় ২০ দলের ডাকা অবরোধ ভেস্তে গেছে পণ্যবাহী ট্রাক, ট্যাংকলরী, কাভার্ডভ্যান ও কার্গো চলাচল করছে।
তিনি বলেন, গত ৬ জানুয়ারি থেকে অদ্যাবধি বিজিবির দিনাজপুর সেক্টর, জেলা সদর, হাকিমপুর. রানীরবন্দর, চিরিরবন্দর, দশমাইল, পার্বতীপুর, মোহনপুর, ফুলবাড়ী, বিরামপুর, ঘোড়াঘাট, বীরগঞ্জ, এবং জয়পুরহাট জেলা সদর ও পাঁচবিবি উপজেলায় বেসামরিক প্রশাসনের সাথে সহযোগিতা করে ২০ দলের ডাকা অনির্দিষ্টকালের অবরোধের প্রেক্ষিতে জনগণকে নিরাপত্তা প্রদানের কাজে নিয়োজিত রয়েছে। এসব মাল বহনকারী যানবাহনের নিরাপত্তায় রয়েছে যৌথ বাহিনীর সদস্যরা। ঢাকাসহ বিভিন্ন দুরপাল্লার গণপরিবহন যাতায়াতের নিরাপত্তা বিধান করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ