• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৩:২৬ পূর্বাহ্ন |

রংপুরে বিএনপির ১১৬ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

bnpরংপুর : রংপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান সামুসহ ১১৬ জন নেতা-কর্মীর নামে মামলা করেছে পুলিশ। এ ছাড়াও মহানগর বিএনপির সেক্রেটারি, যুবদল সভাপতি, সেক্রেটারি, ছাত্রদল সভাপতি ও সেক্রেটারিকে অভিযুক্ত করে পৃথক দুটি মামলা করা হয়। বুধবার সন্ধ্যায় রংপুর কোতোয়ালি থানার দুই এসআই পৃথকভাবে মামলা দুটি দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার রংপুর নগরীর রবার্টসন্সগঞ্জে যুবদল কর্মী রাসেলের ভাড়া বাড়িতে ককটেল বানানোর সময় বিস্ফোরণে যুবদলের সহ সম্পাদক ফিরোজ সরকার বিপ্লব (৩০) আহত হয়। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানার এসআই ওয়ালিউর রহমান বাদী হয়ে বুধবার সন্ধ্যায় ৬৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং বহু সংখ্যক বিএনপির অজ্ঞাত নেতা-কর্মীর নামে মামলা করেন।

মামলায় বলা হয়, ওই ঘটনার পরিকল্পনাকারী মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেন। তার নেতৃত্বে ভাড়া নিয়ে ওই বাড়িতে বিপ্লব, রাসেল ও মিন্টু ককটেল, হাতবোমা বানাত এবং হরতাল অবরোধের নামে নাশকতা করত।

মামলায় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান সামু, যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু, যুগ্ম সম্পাদক ও যুবদল সভাপতি রইচ আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পদক ও যুবদল সেক্রেটারি আনিছুর রহমান লাকু, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রাক্তন সহ-সভাপতি মাহফুজ উন নবী ডন, জেলা সভাপতি জহির আলম নয়ন, সেক্রেটারি মনিরউজ্জামান হিজবুল, যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ, শাহ জিল্লুর রহমান, প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া ইসলাম জীম, স্বেচ্ছাসেবক দল আহ্বায়ক আব্দুস সালামসহ বিএনপির মহানগর কমিটির ৬৫ নেতার নাম উল্লেখ করা হয় এবং অজ্ঞাত আরো নেতা-কর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

অন্যদিকে গত সোমবার জেলা পরিষদ গেটে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান সামুকে প্রধান আসামি করে ৫১ জনের নাম উল্লেখ করে বিস্ফোরক আইনে আরো একটি মামলা করেন কোতোয়ালি থানার এসআই ফেরদৌস আহম্মেদ।

মামলা দুটির বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল কাদের জিলানী জানান, পৃথক দুটি মামলার অভিযুক্তদের গ্রেফতার অভিযান চলছে। নাশকতাকারী কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ