• বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ১১:৪৪ অপরাহ্ন |

বাল্যবিয়ে ও আমাদের করণীয়

Bia

বিয়ে কি?

(ক) বিয়ে নারী ও পুরুষের মিলিত জীবনের জন্য একটি আইনগত, সামাজিক এবং ধর্মীয় ব্যবস্থা। নারী ও পুরুষের দাম্পত্য জীবনকে সার্বিক সুন্দর করার লক্ষ্যে বিবাহ প্রথার উদ্ভব।

(খ) মুসলিম আইনে বিয়ে হচ্ছে ধর্ম কর্তৃক অনুমোদিত একটি দেওয়ানী চুক্তি। এখানে দুটি পক্ষ থাকে, এক পক্ষ প্রস্তাব পেশ করে, অপর পক্ষ তা গ্রহণ করে। উভয় পক্ষের কিছু আইনগত অধিকার ও দায়িত্ব থাকে।

(গ) হিন্দু আইনে বিয়ে একটি ধর্মীয় নির্দেশ ও পবিত্র বন্ধন। শাস্ত্র মতে, হিন্দু বিয়ে বালিত হয় না। অর্থাৎ স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক ছিন্ন করা যায় না। বৌদ্ধ ধর্মালম্বীরা হিন্দু পারিবারিক আইন অনুসারে তাদের মধ্যে বিয়ে সম্পন্ন করে।

(ঘ) ‘খ্রিষ্টানদের কোড অব ক্যানন ল’ অনুযায়ী, বিয়ে হচ্ছে একটি ধর্মীয় আচার এবং ধর্মীয় চুক্তি, যার মাধ্যমে একজন পুরুষ ও নারী সারা জীবনের জন্য দাম্পত্য সম্পর্ক স্থাপন করে। খ্রিষ্টান বিয়ে সম্পাদিত হয় খ্রিষ্টান ম্যারেজ অ্যাক্ট ১৮৭২ অনুসারে।

(ঙ) বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী বিয়ের বয়স পুরুষের ক্ষেত্রে ২১ বছর এবং নারীর ক্ষেত্রে ১৮ বছর।

বাল্যবিয়ে কি?

যখন অপ্রাপ্ত বয়স্ক নারী পুরুষের মধ্যে বিয়ে সম্পন্ন হয় তখন তাকেই বাল্যবিয়ে বলে।

বাল্যবিয়ের আর্থ-সামাজিক প্রভাব:

(ক) একজন নারীর অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে হলে সে শারীরিক ও মানুসিক দু’ভাবেই বিপদগ্রস্থ হয়ে পড়ে। কিশোর বয়সের খেলার সাথীদের ফেলে একটি পরিবারের বৌ হয়ে আসায় ঘোমটা দিয়ে অপরিচিত পরিবেশে অপরিচিত জনদের ফাইফরমায়েশ শুনে দিন কাটাতে তার খুব মনকষ্ট হয়। তার উপর বাঙালি সংস্কৃতিতে বৌ এর নানা দোষ ধরা হয় যা তাকে বিব্রত করে। যেমন বৌ জোরে কথা বলে, লাফিয়ে চলে, পর পুরুষের সাথে কথা বলে, বাড়ির বাহিরের উঠানে যাবে কেন, শব্দ করে হাসবে কেন, শ্বশুর-শ্বাশুড়ির ওজুর পানি ঠিকমত দিল না কেন, শ্বাশুড়ির পান বাটা, কাটনো কোটার কাজ ঠিকমত করে না, বৌ বড্ড ধরি, আঠারো মাসে বছর, বৌটা বেহায়া, মুরুব্বিদের সামনে জামাই এর সাথে কথা বলে ইত্যাদি। এই সকল ঘটনায় মেয়েটির কিশোর মনের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ে, যার ফলে তার নানা রকম রোগ ব্যধি দেখা দেয়।

(খ) বাল্যবিয়ের ফলে একজন কিশোরী তার অপরিনত জরায়ুতে সন্তান ধারণ করতে বাধ্য হয়। যার পরিণতি হয় ভয়াবহ। মা ও শিশু দু’জনই চরম ঝুঁকির শিকার হয়। বাড়ে মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যুর হার। জন্ম নেয় কম ওজনের অপুষ্ট শিশু, পরবর্তীতে সে বেড়ে ওঠে কম মেধা নিয়ে। পরিণতিতে বেড়ে ওঠে এক মেধাহীন জাতি ফলে আমরা বঞ্চিত হই একটি মেধাবান সফল জাতীয় ব্যক্তিত্ব প্রাপ্তি থেকে।

(গ) অল্প বয়সে বাচ্চা হওয়ার কারণে মায়ের জরায়ু সাংঘাতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যার জের হিসেবে অনেক নারীকে তালাক পেতে হয়। কোন কোন ক্ষেত্রে এটাকে কেন্দ্র করে স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করে যা ওই কিশোরী মায়ের জীবন দুর্বিসহ করে তোলে। শান্তি বিনষ্ঠ করে মা বাবাসহ আত্মীয় পরিজনের।

(ঘ) তালাক পেয়ে কিশোরী মেয়ে যখন বাবার পরিবারে ফিরে আসে তখন তারা দুশ্চিন্তাগ্রস্থ হয় এই ভেবে যে, একবার বিয়ে হওয়া মেয়ে আবার বিয়ে দেওয়া খুবই কঠিন। যৌতুক বেশি লাগবে। সামাজিকভাবে তারা অসন্মানিত হবে যে, তাদের মেয়ে স্বামীর ভাত খেতে পারেনি। মেয়েটি অযোগ্য স্বামীর সংসারে মানিয়ে নিতে পারলো না। অভাবের সংসারে আবার একটি বাড়তি মুখ কি ভাবে তার ভরণ পোষণ করবো ইত্যাদি। যার ফলে ইচছায়-অনিচ্ছায় মেয়েটির সাথে বাবা-মা খারাপ ব্যবহার করে। অনেক সময় তালাক পাওয়ার কারণে মেয়েটি আত্মহত্যা করে।

(ঙ) সংসার করতে না পারা কিশোরী মেয়েটি যখন কাজের খোঁজে বের হয় তখন যৌন নিপিড়নের স্বীকার হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পাচারকারী শিকারে পরিণত হয়ে সমাজের আস্তাকুড়ের বাসিন্দায় পরিণত হয়।

(চ) অনেক কিশোরী মা অল্প বয়সে বাচ্চা ধারণ করার ফলে জরায়ু এমনভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয় যে, পরে আর সে মা হতে পারে না।

(ছ) বাংলাদেশের প্রায় অর্ধেক নারীর যখন বিয়ে হয় তখন তাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে থাকে যার পরিণতি ভয়াবহ।

(জ) বাল্য বিয়ের ফলে অনেক মেয়েই পড়া-লেখা শেষ করতে পারে না।

(ঝ) বাল্য বিয়ের ফলে মেয়েরা অপরিণত বয়সে গর্ভধারণ করে। বাংলাদেশের ২০ শতাংশ মেয়ে ১৫ বছর বয়সের আগে সন্তান জন্ম দেয়।

(ঞ) ২০ বছর বয়সের আগে গর্ভবর্তী হওয়ার ফলে মা এবং শিশুর মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুকি দেখা দেয়, যেমন (১) নির্দিষ্ট সময়ের আগেই সন্তান ভূমিষ্ট হয়। (২) শিশু খুব কম ওজন নিয়ে জন্মায়। (৩) প্রসবের সময় মা এবং সন্তান দু’জনেই মৃত্যুর আশংকা বেশি থাকে। (৪) জন্মের প্রথম বছরে শিশুর মৃত্যুর আশংকা বেশি থাকে।

বাল্য বিয়ে নিরোধে রাষ্ট্রীয় আইন:

(ক) বাল্য বিয়ে নিরোধ আইন ১৯২৯ (সকল ধর্মাবলম্বীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য) অনুযায়ী নাবালিকা/ নাবালক বিয়ে করা অথবা বাল্য বিয়েতে সাহায্য করা অপরাধ। এই আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের কম বয়সের মেয়ে এবং ২১ বছরের কম বয়সের ছেলে শিশু হিসেবে গণ্য।

(খ) বাল্য বিয়ে নিরোধ আইনে তিন ধরণের অপরাধ চিহ্নিত করা হয়েছে। (১) প্রাপ্ত বয়সের সাথে অপ্রাপ্ত বয়স্কের বিয়ে সম্পাদন করা (৩) অপ্রাপ্ত বয়স্কের মাতা পিতা বা অভিভাবক কর্তৃক তার বিবাহ নির্ধারণ অথবা এ রকম বিবাহের সম্মতি দান করা।

(গ) এই আইনে বাল্য বিয়ে বাতিল হয় না, কিন্তু যারা এ ধরনের বিয়ে সম্পাদনে জড়িত থাকবেন (সংশ্লিষ্ট শিশু ব্যতিত) তাদের সকলেরই এক মাসের কারাদন্ড অথবা এক হাজার টাকা জরিমানা কিংবা উভয় প্রকার দন্ড হতে পারে। কোন পরিকল্পিত বাল্য বিয়ের অনুষ্ঠান বন্ধ করার জন্য আদালত থেকেও নিষেধাজ্ঞা জারি করানো সম্ভব।

(ঘ) ১৮ বছর বয়সের আগে কোন মুসলিম মেয়ের বিয়ে হলে তার সুরক্ষার জন্য মুসলিম আইনে বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এ ধরণের কোন বিয়ে হলে মুসলিম বিয়ে বাতিল আইন ১৯৩৯ অনুসারে উক্ত মেয়ে আদালত থেকে বিয়ে বাতিলের নির্দেশ লাভ করার অধিকার ভোগ করতে পারে। তবে তার জন্য নিম্নোক্ত শর্ত পূরণ করা অপরিহার্য:-

(১) ১৯ বছর বয়স হওয়ার আগে যদি তার বিয়ে অস্বীকার করে। (২) যদি সে স্বামীর সাথে সহবাস না করে থাকে।

বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে আমাদের করণীয়:

(ক) অভিভাবক হিসেবে ১৮ বছরের আগে মেয়ে এবং ২১ বছর বয়সের আগে ছেলে বিয়ে দেব না, এমন কি বিয়ে করার অনুমতি দেব না। আমার প্রতিবেশি এবং এলাকাবাসীকে এই ভাবে ভাবার জন্য উৎসাহিত করবো।

(খ) প্রতিটি নাগরিকের বিয়ের জন্য আবশ্যকীয় পূর্বশর্ত হবে বিয়ে রেজিস্ট্রেশন নিশ্চিত করা।

(গ) নিকাহ রেজিস্ট্রার হিসেবে বিয়ে রেজিস্ট্রেশনের সময় আমি নিশ্চিত হয়ে নেব যে বর এবং কনে অপ্রাপ্ত বয়স্ক নয়, বিয়ে উভয়ের সম্মতি রয়েছে।

(ঘ) নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে এলাকার জনগণকে বাল্য বিয়ের কুফল সম্পর্কে সচেতন করবো, বিভিন্ন বিচার সালিশে বাল্য বিয়ের শাস্তি সম্পর্কে অবগত করবো। এলাকায় অনুষ্ঠিত প্রতিটি বিয়ের মহিলা মেম্বারের উপস্থিতি নিশ্চিত করবো।

(ঙ) নাগরিক হিসেবে আমার কোন আত্মীয়, বন্ধু-বান্ধব অথবা প্রতিবেশি যেন অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে বা মেয়ের বিয়ে না দেন তা নিশ্চিত করার জন্য আমি সচেষ্ট থাকবো। বাল্য বিয়ের কুফল সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করবো এবং বিয়ে রেজিস্ট্রেশনে উৎসাহিত করবো।

(চ) গণমাধ্যমের প্রতিনিধি হিসেবে বাল্য বিয়ে কেন্দ্র করে ইস্যু ভিত্তিক এবং গবেষণামূলক প্রতিবেদন লিখবো। বাল্য বিয়ের কুফল, বিয়ের রেজিস্ট্রির সুফল সম্পর্কে নিবন্ধ লিখবো।

লেখক: আবু নাসের সিদ্দিক তুহিন
ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক ও উন্নয়ন কর্মী গণ-উন্নয়ন কেন্দ্র
নীলফামারী


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ