• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৫:৪৯ অপরাহ্ন |

রংপুরে খাবার স্যালাইন তৈরিতে জনবল সংকট

oralyte_17424_8_(big)_স্বাস্থ্য ডেস্ক: উত্তরাঞ্চলের মানুষকে ডায়ারিয়ার প্রকোপ থেকে রক্ষা করতে দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে রংপুরে সরকারিভাবে উৎপাদিত হচ্ছে খাবার স্যালাইন। উৎপাদিত এই স্যালাইন বিনামূল্যে সরবরাহ করা হচ্ছে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৬ জেলার সিভিল সার্জন অফিস, উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র, মেডিকেল কলেজ ও সিটি কর্পোরেশনে। বছরের অধিকাংশ সময় স্যালাইন উৎপাদন হলেও মে থেকে জুলাই তিন মাসে এর চাহিদা আরো বেড়ে য়ায়।
স্যালাইন উৎপাদনের সাথে সংশ্লিষ্টরা জানান, লোকবল বৃদ্ধি করলে এই প্লান্ট থেকে উত্তরাঞ্চলের খাবার স্যালাইনের সব চাহিদা পূরণ করা সম্ভব। কিন্তু জনবল সংকটের কারণে অনেক সময় চাহিদা অনুযায়ী স্যালাইন উৎপাদনে হিমশিম খেতে হয়।
জানা গেছে, ১৯৮০ সালে সাবেক সদর হাসপাতালের প্রথম তলায় সিভিল সার্জনের অধীনে খাবার স্যালাইন উৎপাদন ও সরবরাহকারি প্লান্টটি যাত্রা শুরু করে। লোকবল সংকট সত্বেও প্রতিদিন ৩৩ হাজার ২৫০ প্যাকেট খাবার স্যালাইন উৎপাদন হয়। যা রংপুর এবং রাজশাহী বিভাগের মোট ১৬টি জেলার সিভিল সার্জন অফিসে চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করা হয়।
এছাড়াও উৎপাদিত স্যালাইন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং সিটি কর্পোরেশন, রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং সিটি কর্পোরেশন সহ বগুড়া মেডিকেলে প্রতিমাসে সরবরাহ করা হচ্ছে।
স্যালাইন উৎপাদন ও সরবরাহকারি প্লান্ট সূত্রে জানা গেছে, উত্তরাঞ্চলের উল্লিখিত জেলাগুলোতে বছরের তিন মাস স্যালাইন সরবরাহে ঘাটতি থাকলেও প্রতিমাসের চাহিদা পূরণ করেও বেশ কিছু স্যালাইন উদ্বৃত্ত থাকছে। ২০১৪ সালে মোট স্যালাইন উৎপাদিত হয়েছে ৬৮ লাখ ৭১ হাজার প্যাকেট। ২০১৩ সালের উদ্বৃত্ত স্যালাইনের পরিমাণ হচ্ছে ৪ লাখ ৮৫ হাজার ৬৫০ প্যাকেট।
স্যালাইন উৎপাদনকারি প্লান্টের ম্যানেজার আব্দুল্লাহিল বাকী বলেন, এখানকার খাবার স্যালাইনের গুণগত মান অন্যান্য কোম্পানিগুলোর তুলনায় অনেক ভালো। এখানে উৎপাদিত স্যালাইনে যে সব কাঁচামাল ব্যবহৃত হয় তা চীন থেকে আনা হয়। তাই এখানকার উৎপাদিত স্যালাইন ডায়ারিয়া নিয়ন্ত্রণে ব্যাপক কার্যকর।
তিনি আরো জানান, বছরের মে থেকে জুন মাসে ডায়ারিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় সাধারণত গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, বগুড়া, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ এবং রাজশাহীসহ নদী বেষ্টিত জেলাগুলোতে স্যালাইনের চাহিদা স্বাভাবিক মাসের চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি বৃদ্ধি পায়। তখন স্যালাইন সরবরাহে হিমশিম খেতে হয়। তাই যার যতো চাহিদা থাক না কেন রির্জাভের ওপর ভিত্তি করে সকলকে স্যালাইন সরবরাহ করা হয়।
আব্দুল্লাহিল বাকী বলেন, প্লান্টটি পরিচালনার জন্য সরকারিভাবে যে লোকবল থাকার কথা ছিলো তা পূরণ হলে এই প্লান্ট থেকে উত্তরাঞ্চলে খাবার স্যালাইনের চাহিদা মেটানো সম্ভব। স্যালাইন উৎপাদনে মোট ৩০ জন কর্মী থাকার কথা, সেখানে রয়েছে ১৯ জন। এদের মধ্যে ৪ জন দক্ষ শ্রমিক। ২০ জন উৎপাদন কর্মীর স্থলে কাজ করছে ১৫ জন। উৎপাদন কর্মীর মধ্যে ১১ জন কাজ করছেন দৈনিক ১৮০ টাকার হাজিরায়। এছাড়াও কেমিস্ট, ফিল্ড অফিসারসহ সহকারি মিক্সকরণ অপারেটর ৩ জনের মধ্যে ১টি পদ শূন্য রয়েছে দীর্ঘদিন থেকে।
এ বিষয়ে রংপুর সিভিল সার্জন ডা. মোজাম্মেল হক বলেন, দীর্ঘদিন থেকে প্লান্টটির উৎপাদিত স্যালাইন উত্তরাঞ্চলের ১৬ টি জেলায় ডায়ারিয়া নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।
তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিশেষ সেল থেকে খাবার স্যালাইন উৎপাদন ও সরবরাহকারি প্লান্টটি পরিচালিত হয়। তবে স্থানীয়ভাবে দেখাশুনা করার দায়িত্ব রয়েছে সিভিল সার্জন কার্যালয়ের।
তিনি আরো বলেন, লোকবলের অভাবে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে না তবে সরকারিভাবে যে লোকবল থাকার কথা ছিলো তা পূরণ হলে সংকটময় সময়েও চাহিদা মোতাবেক স্যালাইন সরবরাহ করা সম্ভব হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ