• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১০:২৬ অপরাহ্ন |

প্রাথমিকে বৃত্তি পেল ৫৪ হাজার ৪৮১ জন: সেরা দশে রংপুর বিভাগের তিন প্রতিষ্ঠান

PSCসিসি নিউজ: প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় এবার বৃত্তি পেয়েছে ৫৪ হাজার ৪৮১ জন। রোববার দুপুরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান এই তথ্য জানান।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘ট্যালেন্টপুল কোটায় ৩২ হাজার ৪৯৮ জন শিক্ষার্থী বৃত্তি পেয়েছে। এর আগে পঞ্চম শ্রেণির কিছু সংখ্যক নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের আলাদা পরীক্ষা নিয়ে বৃত্তি দেওয়া হলেও ২০০৯ সাল থেকে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে। এতে পঞ্চম শ্রেণির সকল শিক্ষার্থী বৃত্তি পাওয়ার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ পাচ্ছে। ফলে শিক্ষার গুণগত মান বাড়ছে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মোবাইলে বৃত্তির ফল জানতে DPE লিখে স্পেস দিয়ে থানা কোড লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে পাসের বছর লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসেই ফল পাওয়া যাবে। বেলা ২টা থেকে এ ফল পাওয়া যাবে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে  www.dpe.gov.bd দুপুর ২টা থেকে বৃত্তির ফল পাওয়া যাবে। এ ছাড়া এ ফলাফল মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে পাওয়া যাবে। যেকোনো Google Play Store থেকে Primary Terminal Result লিখে সার্চ দিলে অ্যাপসটি পাওয়া যাবে।

এ ছাড়া যে কোনো অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল থেকে https:/play.google.com/store/apps/details?id=com.coderainbd.primaryterminalresult এই লিংকে ক্লিক করলে ফলাফল পাওয়া যাবে।

মন্ত্রী বলেন, ‘আগে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের আলাদা পরীক্ষা নিয়ে বৃত্তি দেওয়া হলেও ২০০৯ সাল থেকে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে।’

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘মেধাবৃত্তিপ্রাপ্ত প্রত্যেক শিক্ষার্থী প্রতি মাসে ২০০ টাকা এবং সাধারণ বৃত্তিপ্রাপ্তরা মাসে ১৫০ টাকা করে পেয়ে আসছিল। এ ছাড়া বৃত্তিপ্রাপ্ত সবাইকে বছরে এককালীন১৫০ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। বৃত্তির মেয়াদ উভয় ক্ষেত্রে তিন বছর।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রাথমিকে ঝরে পড়া রোধে আনন্দ স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। আনন্দ স্কুল থেকে সমাপনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৩০ হাজার ৪৫২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৩ জন বৃত্তি পেয়েছে। সারা দেশে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন ৩ হাজার ৫৬৩ জন উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৬০ জন বৃত্তি পেয়েছে।

গত বছর প্রাথমিক সমাপনীতে ৫৪ হাজার ৪১২ জন শিক্ষার্থী বৃত্তি পায়। এর মধ্যে ২১ হাজার ৯৭৮ জনকে মেধাবৃত্তি (ট্যানেন্টপুল) এবং ৩২ হাজার ৪৩৪ জনকে সাধারণ বৃত্তি দেওয়া হয়। সর্বশেষ প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় ২৬ লাখ ৮৩ হাজার ৭৮১ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়, যার মধ্যে ২৬ লাখ ২৮ হাজার ৮৩ জন পাস করে। জিপিএ-৫ পায় ২ লাখ ২৪ হাজার ৪১১ জন।

সেরা দশে রংপুর বিভাগের তিন প্রতিষ্ঠান

ঘোষিত ফলাফলে সারা দেশের সর্বোচ্চ ১০টি বৃত্তিপ্রাপ্ত বিদ্যালয়ের মধ্যে রয়েছে ঢাকার মিরপুরের মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ ১৪৫, ডেমরা সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ ৮৫, গুলশান আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ ৭৬, ঠাকুরগাঁও সদর ঠাকুরগাঁও সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয় ৬১, ঠাকুরগাঁও সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ৫৩, সিলেটের জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ ৫২, ময়মনসিংহ জিলা স্কুল ৫০, গাইবান্ধা সদরের আহম্মদ উদ্দিন শাহ শিশু নিকেতন স্কুল ৪৯, চট্টগ্রাম বন্দর বিএন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ৪৪ এবং ময়মনসিংহ  বিদ্যাময়ী বালিকা বিদ্যালয় ৪৩।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ