• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০১:৫০ অপরাহ্ন |

বীরগঞ্জে ইরি ধানের চারার গোড়ায় পঁচন

imagesমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলায় চলতি ইরিবোরো মৌসুমে জমিতে ঘাসনাশক বিষ প্রয়োগ করায় প্রায় ৫০ একক জমিতে রোপন করা ইরি ধানের চারা পুড়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জমিতে ধানের চারা গাছ পুড়ে যাওয়া কৃষকেরা পাগল প্রায়। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা কৃষি কর্মকতাদের সাথে যোগাযোগ করেও কোন ফল পাচ্ছেন না।
সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বীরগঞ্জের ২নং পলাশবাড়ী ইউনিয়নের বৈবাড়ীর ধানী জমিনের প্রায় সিংহভাগ জমির ধানের চারা গাছের গোড়া পঁচে যাচ্ছে। ফলে সবুজ ধানের পরিবর্তে লালচে হয়ে ধানের চারা গাছ মরে যাচ্ছে।
ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক আব্দুর রহিম জানান, অনেক কষ্ট করে এক একর জমিতে উচ্চ ফলনশীল হাইব্রীট ধান আবাদ করেছি। ধানের চারা লাগানোর প্রায় ১০দিন পর এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে অরনেট কীটনাশক বিক্রয় প্রতিনিধি মোস্তাক আহমেদের পরামর্শে তার শ্যাম কোম্পানীর অরনেট ঘাস মারার বিষ প্রযোগ করি। একর প্রতি ৬ প্যাকেট বিষ প্রয়োগ করা হয়। যার ওজন ছিল ২০ গ্রাম করে। কিন্তু এই বিষ প্রয়োগের পর ধানের চারা লাগানোর ৫০ দিন অতিবাহিত হওয়ার পর ধানের চারা পুড়ে যাচ্ছে।
অন্য কৃষক মানিকুল ইসলাম জানান, একটি মাত্র গরু ছিল যা বিক্রি করে আমি এক বিঘা জমি এক ফসলের জন্য ৭ হাজার টাকা দিয়ে লিজ নিয়ে ইরি ধান রোপন করেছি। ধানের চারা রোপন করার ১০ দিন পর এলাকার ছেলে মোস্তাক আহম্মেদের নিকট থেকে অরনেট ঘাসনাশক ক্রয় করে জমিতে প্রয়োগ করি। এর পর থেকে জমির সমস্ত ধানের চারার গোড়া পচন শুরু হয়েছে। জমির ধানের চারা দেখে দু’চোখের পানি ধরে রাখতে পারিনা ।
একই রকম কথা বলেন আয়নাল হোসেন, তিনি জানান, ধানের চারার এমন পচন দেখার পর এলাকার ছেলে মোস্তাকের নিকট পরামর্শ চাইতে গেলে তিনি জমিতে জিংক, পটাসিয়াম, পিক স্প্রে প্রযোগ করার পরামর্শ দিলে তাও প্রয়োগ করি। কিন্তু তাতেও কোন কাজ হচ্ছে না। ক্ষতিগস্থ কৃষক এনামুল হক, আইয়্যুব আলী, রোস্তম আলী, আব্দুল মালেক, মাজেদুর রহমান ,একরামুল হক এনামুল হক ,মুকুট খোরশেদ আলী ইসাহাক আলীসহ আরো অনেকেই এমন অভিযোগ করেছেন।
এদিকে অরনেট কীটনাশক বিক্রয় প্রতিনিধি মোস্তাক আহমেদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে অরনেট কীটনাশক বিষয়ে জানতে চাইলে মোবাইল ফোনের লাইন কেটে দেন।
পলাশবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মোজাহার হোসেন জানান, এলাকার বেশিরভাগ কৃষক বৈবাড়ী এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে অরনেট নামক ঘাসনাশক বিষ ক্রয় করে ধানের জমিতে প্রয়োগ করেছে বলে সত্যাতা স্বীকার করেন ।
উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা গোলাম মুর্তজা শামীম জানান, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা আমার সাথে কোন পরামর্শ না করেই অরনেট নামক ঘাসনাশক বিষ জমিতে প্রয়োগ করায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের জমি পরিদর্শন করেছি। এখন কি করনীয় বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছি ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ