• শনিবার, ২১ মে ২০২২, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন |

ডোমারে কর্মরত পুলিশের এএসআই’র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

Songbadসিসি নিউজ: বিয়ে করে পরে অস্বীকার করায় নীলফামারীর ডোমার থানায় কর্মরত পুলিশের এক এসআই’র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্ত্রীর দাবীদার এক মহিলা। স্ত্রীর দাবী আদায়ে পুলিশের মহা-পরিদর্শক সহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কোন প্রতিকার না পাওয়া সোমবার নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম দলিরাম গ্রামের তহুজা বেগম নীলফামারী প্রেসক্লাবে এসে সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তহুজা বেগম বলেন নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থানায় কর্মরত থাকা অবস্থায় এ এসআই আব্দুর রউফের সাথে তার পরিচয় হয় ২০১১ সালে । এরপরে এ এসআই রউফ র‌্যাব-৪ এ বদলি হয়ে নবীনগরে চলে যায়। সেই থেকে মোবাইলে আমার সাথে ভালোবাসার মিথ্যা সর্ম্পক গড়ে তোলেন। একদিন সে হেমায়েতপুর মোল্লাবাড়ীর আমার বাসায় এসে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এরপর বিয়ে করার প্রলোভন দেখিয়ে সেখানে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর পরিচয়ে আমরা সাত মাস বসবাস করি। এতে করে আমি অন্তসত্তা হয়ে পড়লে তাকে বিয়ের জন্য চাপ প্রয়োগ করলে ২০১৩ সালের ২১ জুলাই হেমায়েতপুর কাজী অফিসে ৫ লাখ টাকা দেনমোহরে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় আব্দুর রউফ বলেছিল তার পূর্বের স্ত্রী মারা গেছে এবং তার ৮ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। তহুজা বলেন আরো বলেন গত ঈদুল ফিতরে আমাকে রউফ তার গ্রামের বাড়ী গাইবান্ধায় নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে দেখি তার স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। এনিয়ে তার সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে রউফ তার পূর্বের স্ত্রী আমাকে বেদম মারপিট করে। এতে আমি অসুস্থ হয়ে পড়লে ২০১৩ সালের ১৩ আগষ্ট গাইবান্ধার একটি ক্লিনিকে আমাকে ভর্তি করা হয়। ক্লিনিকে আব্দুর রউফ গোপনে আমাকে ঔষুধ সেবন করিয়ে আমার গর্ভের তিন মাসের সন্তান নষ্ট করে ফেলেন। আমি সুস্থ হয়ে ১৭ আগষ্ট গাইবান্ধা থানায় সাধারণ ডাইরী করি। জিডি নং-৮৫৯। এরপর আব্দুর রউফ আমাকে বলে তুমি বাড়ী চলে যাও আমি আমার পূর্বের স্ত্রীকে বুঝিয়ে শুনিয়ে তোমার কাছে চলে যাব। সরল বিশ্বাসে আমি বাড়ী চলে আসি। কিন্তু এর পর সে আমার সাথে কোন যোগাযোগ করে না। মোবাইল করলে মোবাইলও ধরে না। ফলে বাধ্য হয়ে আমি তার কর্মস্থল নবীনগরে চলে যাই। সেখানে গেলে সে আমাদের বিয়ের সম্পর্ক অস্বীকার করেন। ফলে নিরূপায় হয়ে স্ত্রীর মর্যাদার দাবী আদায়ে পুলিশের মহাপরিদর্শক সহ পুৃলিশের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করি। কিন্তু অদ্যাবদি কোথাও ন্যায় বিচার পাননি বলে সাংবাদিকদের জানান তহুজা । তহুজা লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন চলতি বছরে আব্দুর রউফের বর্তমান কর্মস্থল ডোমার থানায় দু’বার গিয়েছিলাম। কিন্তু আমি আসার খবর পেয়ে সে গা ঢাকা দেয়। রউফের সাথে আমার বিয়ে সহ সার্বিক বিষয়টি ডোমার থানার ওসিকে বললে ওসি সাহেব তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন বলে তিনি জানান। সংবাদ সম্মেলনে বিয়ের সময় এএসআই রউফের সাথে এক সঙ্গে তোলা একটি ছবি সাংবাদিকদের দেখিয়ে কান্না জনিত কন্ঠে তহুজা বলেন এখন আমাকে খারাপ মেয়ে বলে অপবাদ দেয়া হচ্ছে, কিন্তু আমি খারাপ মেয়ে নই, আমি ন্যায় বিচার চাই। সংবাদ সম্মেলনে তহুজার ভাই উপস্থিত ছিলেন।
এ ব্যাপারে এএসআই আবদুর রউফের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান তহুজা খারাপ মেয়ে, তার চারটি স্বামী। মানুষকে হয়রানী করাই তার পেশা বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ