• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১১:১৪ অপরাহ্ন |

তিস্তা সেচ ক্যানেলে পানি নেই : চরম বিপাকে কৃষক

Tista-2সিসি ডেস্ক: তিস্তা সেচ ক্যানেলে পানি না থাকায় বোরোর ভরা মৌসুমে পানি না পাওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন তিস্তা পাড়ের কৃষকরা। তাই বাধ্য হয়ে বোরো ক্ষেত বাঁচাতে বোরিং ও ডিজেল চালিত শ্যালো মেশিন দিয়ে ফসল বাঁচানোর চেষ্টা করছে। তবে এতে লোকসানের আশঙ্কায় কৃষকরা আবাদ নিয়ে পড়েছেন চরম অনিশ্চয়তায়। চাষাবাদের জন্য তিন হাজার কিউসেক পানি লাগলেও নদীতে পানির প্রবাহ না থাকায় পানি শূন্য হয়ে রয়েছে তিস্তা। বর্তমানে নদীর উজানে পানি রয়েছে মাত্র তিনশ কিউসেক।
ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, তিস্তা ব্যারেজ থেকে প্রধান খাল রয়েছে ৩৪ কিলোমিটার, সেকেন্ডারি খাল রয়েছে ৭৪ কিলোমিটার, মেজর সেকেন্ডারি খাল রয়েছে ২১৪ কিলোমিটার এবং টারশিয়ারী খাল রয়েছে ৩৮৭ কিলোমিটার। খাল নির্ভর সমিতির মাধ্যমে ক্ষেতে সেচ প্রদান করতো কৃষকরা। সূত্র আরও জানায়, তিস্তা নদীর পানি দিয়ে প্রায় ৬৪ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও নদীতে পানি প্রবাহ কমে যাওয়ায় চলিত ইরি বোরো মৌসুমে ২৮ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদ হচ্ছে। নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার ১২টি উপজেলার কয়েক হাজার কৃষক তিস্তার সেচ খালের পানি ব্যবহার করে চাষাবাদ করতো কিন্তু এবার খালের পানিতে চাষাবাদ হচ্ছে না তাদের।
আবুল কালাম নামের নীলফামারী সদর উপজেলার ইটাখোলা ইউনিয়নের চৌধুরী পাড়ার এক কৃষক জানান, তিস্তার খালে পানি না থাকায় বিঘা প্রতি ঘন্টায় ৮০ টাকা দিয়েও বোরো ক্ষেতে পর্যাপ্ত সেচ দেয়া যাচ্ছে না। শাহিন আহমেদ নামের আরেক কৃষক জানান, গত বছর সেচের জন্য কিছুটা হলেও পানি পাওয়া গেছে কিন্তু এবার একদম পাওয়া যাচ্ছে না। বাধ্য হয়ে জমিতে বিকল্প পদ্ধতিতে সেচ দেয়ায় আমাদের অনেক বাড়তি খরচ গুনতে হবে।
অন্যদিকে নানা সংকটে পড়ে ভবিষ্যতে আবাদ করবেন কি না তা নিয়ে পড়েছেন দোটানায় কৃষক সিরাজুল ইসলাম। তার আক্ষেপ, কৃষকরা যদি এতো হুমকি নিয়ে উৎপাদন করে, তাহলে নির্বিঘ্নে কি উৎপাদন করতে পারব না? আর সিংদই এলাকার কৃষক তমিজুর রহমান বললেন, অন্যান্য বছর পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ টাকা বিঘাপ্রতি সেচ খরচ হলেও এবার অনেক বেশি টাকা খরচ করতে হচ্ছে। তিস্তা সেচ খালে পানি থাকলে অনেকটা নিশ্চিন্ত ভাবে আবাদ করতে পারতো তারা কিন্তু নদীতে পানি না থাকায় তিস্তা সেচ খাল নির্ভর কৃষকরা এবার পড়েছেন চরম বেকায়দায়। জমিতে সেচ আর সারে অতিরিক্ত খরচ করেও আবাদ নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন তারা।
নীলফামারী কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়, জেলায় এবারে প্রায় ৭৯ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হচ্ছে। এর মধ্যে আট থেকে ১০ হাজার হেক্টর জমি তিস্তা সেচ খাল নির্ভর। তিস্তায় পানি না থাকায় কৃষকদের এবার বাড়তি খরচ হবে স্বীকার করে নীলফামারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক গোলাম মোঃ ইদ্রিস বলেন, এবার বোরো মৌসুমে জেলায় ৭৮ হাজার ৩৯৪ হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমাত্র থাকলেও ৮০ হাজার ৫৮০ হেক্টর জমিতে বোরোর চাষ হচ্ছে। এর মধ্যে ১০/১১ হাজার হেক্টর জমি সেচ খালের আওতায়। নদীতে পানি কম থাকায় কৃষকরা শ্যালো, সেচপাম্পসহ বিকল্প পদ্ধতিতে ক্ষেতে পানি দিচ্ছেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া ডিভিশনের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সুরতুজ্জামান বলেন, ভারত পানি প্রত্যাহার করে নেয়ায় তিস্তায় পানির প্রবাহ কমেছে। সেচ কাজে ব্যবহারের জন্য পানি না পাওয়ায় দিন দিন কমে আসছে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা। ডিমলা সেচ খাল কৃষক সমিতির প্রাক্তন সভাপতি আলতাফ হোসেন বলেন, অতি দ্রুত ভারতের কাছ থেকে আমাদের তিস্তা নদীর পানির ন্যায্যহিস্যা আদায় করা উচিত। ভারত গজলডোবায় ব্যারেজ নির্মাণ করে পানি প্রত্যাহার করায় মরুভূমিতে পরিণত হচ্ছে উত্তরাঞ্চল। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষি এবং কৃষক ও প্রকৃতি। জাতীয় ক্ষেতমজুর সমিতি নীলফামারী জেলা শাখার আহবায়ক শ্রীদাম দাস বলেন, পানি শূন্যতার কারণে তিস্তা আজ ধু ধু বালুচরে পরিণত হয়েছে। আমরা যদি তিস্তার পানির ন্যায্যহিস্যা না পাই, তাহলে সরকারের উচিত আন্তর্জাতিক আদালতে যাওয়া। উৎস: করতোয়া


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ