• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১০:৪২ অপরাহ্ন |

বঙ্গবন্ধু আমাদের গর্ব আমাদের অহংকার

Mojib।।রাগেবুল আহসান রিপু।। কাউকে ভালভাবে না জানলে না বুঝলে তাঁর প্রতি ভালোবাসা জন্মায় না। ভালোবাসা না থাকলে তার জন্য কথা বলা, লড়াই করা যায় না। ইতিহাস বিকৃতির এই যুগে নতুন প্রজন্মকে সত্য ইতিহাস জানানো জরুরি। সত্য ইতিহাসই পারে বাংলাদেশকে আধুনিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে। বাঙালিকে জানতে হলে বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে। বঙ্গবন্ধুকে ভালো করে জানতে পারলে বাংলাদেশকে সহজে চেনা যায়।
মানুষের প্রতি ভালবাসা
ছোটবেলা থেকেই মানুষের প্রতি ছিল তাঁর গভীর ভালোবাসা। একটি দরদী হৃদয় ছোটবেলা থেকেই তার মধ্যে ছিল। বাবা ছাতা কিনে দিয়েছিলেন স্কুলে যাওয়া-আসার জন্য। একদিন রাস্তার উপর এক বৃদ্ধ ভিক্ষা করছিল প্রখর রোদে তার শরীর পুড়ে গেছে।
গা থেকে ঘাম ঝরছিল। সমস্ত শরীর ভেজা। এই দৃশ্য দেখে বঙ্গবন্ধু মাথার ছাতাটি বৃদ্ধকে দিয়ে দিলেন। আর একদিন স্কুল থেকে ফেরার পথে দেখেন গাছের নিচে এক বৃদ্ধ হাড় কাঁপানো শীতে জবুথবু হয়ে বসে আছে। বঙ্গবন্ধুর গায়ের চাদর বৃদ্ধের গায়ে নিজ হাতে জড়িয়ে দিলেন।
বাসায় ফিরলে মা জিজ্ঞাসা করলেন, খোকা, চাদর কী করেছিস? বঙ্গবন্ধু সত্য কথাই মাকে বললেন। মা ছেলেকে বুকে জড়িয়ে ধরে দোয়া করে বললেন “বড় হও, মানুষ হও।”
ইংরেজরা বাঙালি সমাজে ধর্মের নামে প্রচন্ড দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করেছিল। সেই সময়ও বঙ্গবন্ধু জাত-পাত মানেননি। ধর্মের দৃষ্টিতে মানুষকে কখনও দেখেননি। ছোটবেলা থেকেই তিনি মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখেছেন। গোপাল নামে তার এক বন্ধু ছিল। সে খুব ভালো বাঁশী বাজাতে পারত। সব সময় হাসি-খুশী থাকত। একদিন ক্লাসে দেখেন গোপাল এক কোণায় মনমরা হয়ে বসে আছে। স্কুল ছুটির পর তিনি গোপালকে ধরে বললেন, “কী হয়েছে তোর? এত মন খারাপ করে আছিস কেন? গোপাল কোনমতে বলল, “সে দুদিন ধরে কিছু খায়নি। বাড়িতে সবাই উপোষ করে আছে।” বঙ্গবন্ধু গোপালকে নিয়ে বাড়ি এলেন। মাকে গোপালের কথা এবং তাদের বাড়ির অবস্থার কথা বললেন। সব শুনে মা তাকে খেতে দিলেন। খাওয়া-দাওয়া শেষ করে মার কাছ থেকে কিছু চাল-ডাল নিয়ে গোপালদের বাড়ির দিকে রওনা দিলেন।
ছোটবেলা থেকেই রাজনীতিকে তিনি জনসেবা হিসেবে দেখেছেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়েছে। বাংলায় তখন খুব দুর্দিন। মানুষের অভাব, পেটে খাবার নেই, অনাহারে মানুষ মরছে, চারদিকে হাহাকার। বঙ্গবন্ধু মানবতার সেবায় দলবল নিয়ে নেমে পড়েছেন। মানুষের জন্য খাবার সংগ্রহ করছেন। বঙ্গবন্ধু তার অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে দূর্ভিক্ষের এক মর্মস্পর্শী বর্ণনা দিয়েছেন।
তিনি লিখেছেন, “ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি যখন বাংলাদেশ দখল করে, মীর জাফরের বিশ্বাসঘাতকতায়, তখন বাংলার এত সম্পদ ছিল যে, একজন মুর্শিদাবাদের ব্যবসায়ী গোটা বিলেত শহর কিনতে পারত। সেই বাংলাদেশের এই দূরবস্থা চোখে দেখেছি যে, মা মরে পড়ে আছে, ছোট বাচ্চা সেই মরা মার দুধ চাটছে।” এই দুর্ভিক্ষের দিনে বঙ্গবন্ধু বাবার ধানের গোলা ভেঙ্গে সমস্ত ধান মানুষের মাঝে বিলিয়ে দিয়েছিলেন।
গোপালগঞ্জ হাইস্কুলে পড়ার সময় মুসলিম ছাত্রদের সাহায্যের জন্য একটা দল গড়ে তুলেছিলেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে মুষ্টি ভিক্ষা করতেন। নানাভাবে সাহায্য নিয়ে গরিব ছাত্রদের বই খাতা কিনে দিতেন। থাকার ব্যবস্থা করে দিতেন, অর্থ সাহায্য করতেন। ছোটবেলা থেকেই মানুষকে সংগঠিত করা আর মানুষের প্রয়োজনে মানুষের পাশে দাঁড়াবার এই যে শক্তি এটাই তাকে বাঙালির অনন্য অসাধারণ এক মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিল।
সততা জয়ী হল
খেলা-ধূলা ছোটবেলা থেকেই তাঁর প্রিয় বিষয় ছিল। খুব ভালো ফুটবল খেলতেন তিনি। ঢাকা ওয়ান্ডারস ক্লাবের হয়ে লিগ খেলেছেন একাধিকবার। ঢাকা ওয়ান্ডারস ক্লাবের জারসি গায়ে একাধিক ছবি রয়েছে তাঁর। ভলিবল, হা-ড-ুডু ভালো খেলতেন। আমরা অকারণে কত মিথ্যা কথা বলি। খেলায় জেতার জন্য কত চতুরতা করি। বঙ্গবন্ধু রাজনীতিতে কখনও মিথ্যা কৌশলের আশ্রয় নেননি। মানুষকে মিথ্যা বলেননি, তেমনি খেলা-ধূলাতেও মিথ্যার আশ্রয় নেননি। অসততা করেননি। হা-ডু-ডু খেলায় এক পয়েন্ট পেলে তার দল জিতবে এ রকম এক পরিস্থিতিতে তিনি বিপক্ষ দলের মধ্যে ঢুকে গেলেন। চারিদিকে করতালি তাকে উৎসাহ দিচ্ছে। তার দলের সবাই বিজয় উৎসব শুরু করে দিয়েছে। তিনি একজনকে প্রায় ছুঁয়ে ফিরে এসেছেন। চারিদিকে বিজয়ের আনন্দে হৈ-হৈ শুরু হয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু মাঠ থেকে বের হয়ে কমিটির কাছে গিয়ে বললেন, না আমি ছুঁতে পারিনি।” এই সত্য বলার জন্য তাঁর দল এক পয়েন্টে হেরে গেল। খেলা শেষে সবাই বলল, “তোর জন্য দল হেরে গেল, একটা মিথ্যা বললে কী এমন হতো?” বঙ্গবন্ধু বললেন, “দল হারছে সত্য, তার জন্য আমার দুঃখ হচ্ছে। অন্য দিকে আমার ভিতরে সততা জয়ী হয়েছে বলে আমার আনন্দ হচ্ছে।”
শিক্ষকদের প্রতি শ্রদ্ধা
গোপালগঞ্জ হাইস্কুলের ফুটবল দলের ক্যাপ্টেন ছিলেন বঙ্গবন্ধু। এই দলটি জেলার সব টুর্নামেন্টে জিতত। অফিসার্স ক্লাবের ম্যানেজার ছিলেন বঙ্গবন্ধুর বাবা। এই দুই দলের মধ্যে সবসময় উত্তেজনাপূর্ণ খেলা হত। একবার পাঁচদিন পর্যন্ত খেলা হয়েছিল। কেউ কাউকে হারাতে পারেনি। গোটা গোপালগঞ্জ শহরের মানুষ উৎকণ্ঠায় ছিল। কে জিতবে? কে হারবে? বাবা এসে বললেন, কাল সকালে দেখতে হবে। বঙ্গবন্ধু বললেন কোন অবস্থায়ই কাল খেলা হবে না। অনেকে খেলার জন্য পীড়াপীড়ি করল। বঙ্গবন্ধু স্পষ্ট করে একই কথা বললেন, “কাল আমরা খেলতে পারব না।” বাধ্য হয়ে বঙ্গবন্ধুর বাবা হেড মাস্টার মহাশয়ের শরণাপন্ন হলেন। বললেন, “স্যার আপনি একটু খোকাকে বলে রাজী করান নিশ্চয়ই ও আপনার কথা শুনবে।” মাস্টার মশাই বঙ্গবন্ধুকে ডেকে বললেন, কেন তোমরা খেলবে না?” বঙ্গবন্ধু বললেন, “স্যার আমরা পরপর পাঁচদিন রোজা রেখে এই খেলা খেলেছি। আমরা খুব ক্লান্ত। কাল খেললে আমরা হেরে যাব। এ বছর আমরা কোন টুর্নামেন্টে হারিনি। আমাদের একদিন বিশ্রাম দরকার। মাস্টার মশাই বললেন, “না, কালই তোমাদের খেলতে হবে।” হেডমাস্টার মশাইয়ের প্রতি সম্মান জানিয়ে খেলতে নামলেন বঙ্গবন্ধু। খেলায় বাবার দলের কাছে ১-০ গোলে হেরে গেলেন বঙ্গবন্ধু।
বঙ্গবন্ধু সারা জীবন শিক্ষকদের খুব সম্মান করতেন। তিনি তখন রাষ্ট্রপতি। বঙ্গভবন থেকে বের হয়ে গুলিস্তান পার হচ্ছেন। এমন সময় দেখেন, ফুটপাতে তার স্কুল জীবনের একজন শিক্ষক দাঁড়িয়ে আছেন। যাকে সবাই নুরুল মাস্টার নামে চিনত।
বঙ্গবন্ধু গাড়ি থামিয়ে মাস্টার সাহেবকে গাড়িতে তুলে নিলেন। মাস্টার সাহেব বললেন, “আমাকে স্টিমার ধরতে হবে।” বঙ্গবন্ধু বললেন, “আমার বাসায় খাওয়া-দাওয়ার পর আমি আপনাকে লঞ্চঘাটে পেঁৗছে দেব, কোন চিন্তা করবেন না। বাসার সবাইকে ডেকে পরিচয় করিয়ে দিলেন, বললেন সালাম কর। ইনি আমার ছোট বেলার শিক্ষক।
অসম্ভব এক সাহসী মানুষ
ছোটবেলা থেকেই দূরন্ত স্বভাবের মানুষ ছিলেন তিনি। বুকভরা ছিল তাঁর সাহস। একদিন এক মন্ত্রী মহাশয় তার স্কুল পরিদর্শনে এলেন। পরিদর্শন শেষে স্কুল মাঠে জনসভা শেষ করে মন্ত্রী মহোদয় গাড়িতে রওনা দিয়েছেন। এমন সময় বঙ্গবন্ধু দু-হাত তুলে গাড়ীর সামনে এসে দাঁড়ালেন। মন্ত্রী মহোদয় জিজ্ঞাস করলেন “কী হয়েছে? কী চাও তুমি?” বঙ্গবন্ধু নির্ভয়ে বললেন, “আমাদের স্কুলের ছাদ ফুটো হয়ে গেছে, বৃষ্টি এলে ক্লাশরুম ভিজে যায়, আমরা পড়ালেখা করতে পারি না। স্কুলের ছাদ ঠিক করে দিতে হবে।”
দাবি আদায়ের জন্য ছোটবেলা থেকেই এরকম সাহসী ছিলেন তিনি। ছোটবেলায় বন্ধুর জন্য মারামারি করে মামলায় জড়িয়ে পড়েছিলেন। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হল। সবাই তাঁকে বাড়ি থেকে পালাতে বলল। বঙ্গবন্ধু বললেন “না, আমি যাব না। পুলিশ আমাকে ধরে নিয়ে যাক। আমি সরে গেলে ওরা বলবে আমি ভয়ে পালিয়েছি।” পুলিশ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করেছিল। এটাই ছিল তাঁর জীবনের প্রথম কারাবরণ। পাকিস্তান আমলে পুলিশ অনেকবার তাঁকে গ্রেফতার করার জন্য তাঁর বাড়িতে গেছে। না পেয়ে ফিরে এসেছে। বঙ্গবন্ধু বাড়ি গিয়ে যখন শুনতেন পুলিশ বাড়ি এসেছিল, তখন তিনি নিজেই পুলিশকে ফোন করতেন, “আমি এখন বাসায় আছি। আপনারা আসতে পারেন।” মামলা-হামলা, গ্রেফতারের ভয় তাঁর কখনও ছিল না। বাঙালি জাতির অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি সবসময় প্রস্তুত থাকতেন। ঐতিহাসিক আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা-এই মামলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব প্রধান আসামী। তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ। পাকিস্তান ভেঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ষড়যন্ত্র। বঙ্গবন্ধু নিশ্চিত জানতেন এই মামলায় তাকে মৃত্যুদ প্রদান করা হবে। মৃত্যুভয়ে পাকিস্তানের শাসকদের সাথে কোন অাঁতাত বা আপোষ করেননি। বীরের মত ফাঁসির মঞ্চকেই বেছে নিয়েছিলেন।
একাত্তরের ২৫শে মার্চ। সমস্ত আয়োজন সম্পন্ন করে মৃত্যুর জন্য বাড়িতে অপেক্ষা করছিলেন। তিনি জানতেন, হয় তাকে হত্যা করা হবে। না-হয় গ্রেফতার করা হবে। সহকর্মীদের মধ্যে অনেকেই পরামর্শ দিলেন, পালাবার জন্য। ভারতে আশ্রয় নেওয়ার জন্য। তিনি বললেন, “আমি বাঙালি জাতির নির্বাচিত নেতা। আমি পালাতে পারি না। আমি পালিয়ে গেলে অথবা ভারতে আশ্রয় নিলে, পাকিস্তানীরা বলবে আমি ভারতের দালাল। সারা দুনিয়ার মানুষকে ওরা বলবে, আমি পূর্ব পাকিস্তানকে বিচ্ছিন্ন করতে চাই। আমি বিচ্ছিন্নতাবাদী। পৃথিবীর কোথাও আজ পর্যন্ত কোন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা সফল হতে পারেনি। আমি আমার জীবন দিয়ে বাঙালি জাতির স্বাধীনতার আকাঙ্খা বাঁচিয়ে রাখব। তোমরা মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করো। তোমাদের যার যা দায়িত্ব তা সঠিকভাবে পালন করো।
বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নেওয়া হল। কারাগারে তার উপর অকথ্য নির্যাতন চালানো হলো। আপোসের নানা প্রস্তাব দেওয়া হল। তারা যখন দেখল শেখ মুজিব কোন কিছুতেই রাজি নয়, তখন তার সেলের পাশেই কবর খোঁড়া হল। “তোমাকে হত্যা করে এই কবরে মাটি দেওয়া হবে।” বঙ্গবন্ধু বললেন আমি বাঙালি, আমি মুসলমান, আমি মানুষ, একবার মরে, দুবার মরে না। তোমাদের কাছে আমার একটাই অনুরোধ আমাকে হত্যা করে আমার লাশটি বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিবে।”
মৃত্যুকে জয় করে বঙ্গবন্ধু ফিরে এলেন স্বাধীন বাংলাদেশে। সাড়ে তিন বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করে ধ্বংসস্তুপ থেকে দেশকে গড়ে তুললেন। বাঙালি জাতির অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য ঘোষণা করলেন দ্বিতীয় বিপ্লবের। এরপরই শুরু হল ইতিহাসের এক কলঙ্কজনক অধ্যায়। স-পরিবারে হত্যা করা হল বঙ্গবন্ধুকে। এই হত্যাকান্ডের মধ্যেও বঙ্গবন্ধু যে সাহসের পরিচয় দিয়েছেন তা বীরের ইতিহাসের এক অমূল্য সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হবে বহুকাল ধরে।
বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীরা পৃথিবীর বহু দেশে এই হত্যাকান্ড সম্পর্কে বলেছে। রেডিও, টেলিভিশন এবং অসংখ্য পত্র-পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিয়ে তারা এই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছে। খুনীদের সকল কাহিনী লিখলে এই লেখা অনেক বড় হয়ে যাবে। তাই একটি দৃশ্যের সামান্য বর্ণনা তুলে ধরছি।
শেখ মুজিবের বাড়ি লক্ষ্য করে কামানের গোলা ছোঁড়া হচ্ছে। একদল গুলি করতে করতে বাড়ির ভিতরে ঢুকে পড়েছে। সম্ভবত শেখ কামাল বের হয়ে এসেছিল। প্রথমে তাকেই গুলি করে হত্যা করা হল। এরপর একদল দো’তলার সিঁড়ি পর্যন্ত গিয়ে থমকে দাঁড়াল। সিঁড়ির উপরে দাঁড়ানো শেখ মুজিব গর্জে উঠে বললেন, “কে তোরা কী চাস?” অগ্রগামী দলটি তার গর্জনে ভয় পেয়ে পিছু সরে এল। তখন দরজার বাইরে থাকা অন্য একটি দল শেখ মুজিবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ল। সমস্ত গুলি তার বুকে লাগল। আর তখনই সিঁড়িতে লুটিয়ে পড়লেন। তার মৃত্যু নিশ্চিত করে আমরা দোতালায় উঠলাম পরিবারের অন্য সদস্যদের খোঁজে। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীরা এবং তখনকার সেনাবাহীনি প্রধান জেনারেল শফিউল্লার বক্তব্যে একটা বিষয় স্পষ্ট যে বঙ্গবন্ধু আক্রান্ত হবার পর অনেক সময় পেয়েছিলেন। এই সময়ের মধ্যে তিনি মন্ত্রী পরিষদের অনেক সদস্য এবং আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সংগে টেলিফোনে কথা বলছিলেন। জেনারেল শফিউল্লা তার লেখায় লিখেছেন, “বঙ্গবন্ধু প্রথম ফোন করে বলেন, আমার বাড়িতে গুলি করছে, এরা কারা?
বিশ মিনিট পর আবার বঙ্গবন্ধুর ফোন আসে, তখন তিনি বলেন, “ওরা কামালকে হত্যা করেছে। দেখ তুমি কিছু করতে পার কিনা?”
সূর্যোদয়ের পূর্ব মুহূর্ত। মসজিদ থেকে ভেসে আসছে পবিত্র আজানের সুমধুর ধ্বনি। “আসসালাতু খায়রূম মিনান্নাউ।” মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। চোখের সামনে প্রিয়তম সন্তান কামাল রক্তের মধ্যে লুটোপুটি খাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বঙ্গবন্ধু কী অন্য কিছু ভেবেছিলেন? যা অন্য দেশের রাষ্ট্র প্রধানরা ভেবেছিল? বঙ্গবন্ধু ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধির কাছে ফোন করেন নাই। জীবন ভিক্ষা চাননি, সৈন্য প্রার্থনা করেননি এমনকী ঢাকায় অবস্থিত ভারতের হাইকমিশনারকে তিনি ফোন করেননি। বঙ্গবন্ধু একটি ফোন করলে ভারতের উড়োজাহাজে বাংলাদেশের আকাশ ছেয়ে যেত।
ভারতীয় সেনা বাংলাদেশে ঢুকে পড়ত। ভারত-বাংলাদেশ চুক্তি অনুযায়ী সাহায্য পাবার অধিকার বঙ্গবন্ধুর ছিল। বঙ্গবন্ধু এসব কিছুই করেননি। কারণ তিনি জানতেন একবার ভারতীয় সৈন্য ঢুকে পড়লে তাদের দেশ থেকে সরানো কঠিন হতো। তাই তিনি সবসময় যা বলতেন, “প্রয়োজনে বুকের রক্ত দিয়ে বাঙালির রক্তঋণ আমি শোধ করে যাব।” ১৫ই আগষ্ট জীবন দিয়ে বঙ্গবন্ধু এক অর্থে আর একবার বাংলাদেশকে স্বাধীন করে গেছেন এবং বাঙালির ঋণ শোধ করে গেছেন।
মাত্র পঞ্চান্ন বছর বেঁচে ছিলেন। এই স্বল্প সময়ে তিনি জাতির জন্য অনেক কাজ করে গেছেন। ২৩ বছরের পাকিস্তানের শাসন আমলে ১৪ বছর তিনি ছিলেন পাকিস্তানের কারাগারে। জীবন এবং যৌবনের সবচেয়ে সুন্দর সময়গুলো তার কারাগারের অন্ধ প্রকোষ্ঠে কেটেছে।
বঙ্গবন্ধুর পারিবারিক জীবন কেমন ছিল?
বঙ্গবন্ধু তার অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে জীবনের এক মর্মস্পর্শী ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন। এই ঘটনাই বলে দেয়, কেমন ছিল তার পারিবারিক জীবন? দীর্ঘ কারাবাসের পর মুক্তি পেয়ে ঢাকার বাসায় এসেছেন বঙ্গবন্ধু। খাওয়া-দাওয়া করে খাটের উপর বসে বেগম মুজিবের সাথে কথা বলছেন। ঘরের মেঝেতে বড় মেয়ে শেখ হাসিনা ও বড় ছেলে কামাল খেলাধূলা করছে। এক সময় বঙ্গবন্ধু লক্ষ্য করেন তার ছেলে কামাল, মেয়ে হাসিনাকে বলছেন, “হাসুবু, হাসুবু তোমার বাবাকে একটু বাবা বলতে দিবে।” বঙ্গবন্ধু বেগম মুজিবকে বললেন, “রেনু দেখ, কামাল কী বলছে? তখনও কামাল বলে চলছে হাসুবু বল না, তোমার বাবাকে একটু বাবা বলতে দিবে?” বঙ্গবন্ধু খাট থেকে নেমে কামালকে বুকে জড়িয়ে ধরে বললেন “বাবা, আমি তো তোরও বাবা।” এই ছিল বঙ্গবন্ধুর জীবন।
সততা, সাহস আর মানুষের প্রতি গভীর ভালোবাসা একজন মানুষকে অনেক বড় করে তোলে-এটাই বঙ্গবন্ধুর জীবনের শিক্ষা।
আজ বঙ্গবন্ধুর শুভ জন্মদিন-জাতীয় শিশু দিবস। বঙ্গবন্ধুর প্রতি রইল বিনম্র শ্রদ্ধা।
তথ্যসূত্র:
১. বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী
২. নিবন্ধ -অধ্যাপক মমতাজ উদ্দীন
লেখক: রাজনীতিক ও উন্নয়ন কর্মি

উৎস: করতোয়া


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ