• শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে ভূমিদস্যুরা নতুন কৌশল করে আবারো পৌর সম্পত্তি দখলে মরিয়া!

Picture from delwar dinajnpur 18-03-2015মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর : আবারো ভুমিদস্যু কর্তৃক দিনাজপুর পৌরসভার ময়লা-গাড্ডার জমি দখলের সকল ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিয়েছে সচেতন পৌরবাসি। গত সোমবার দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম ও সচেতন নাগরিক সমাজের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে পৌরবাসি ভুমিদস্যুদের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দেন। এর আগেও ২০১১ সালের ২৫ জুলাই কতিপয় ভুমিদস্যু কর্তৃক ময়লা-গাড্ডার এই জমিটি দখলের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিয়েছিল সচেতন পৌরবাসি।
গত সোমবার সকালে স্থানীয় লোকভবন মিলনায়তনে সচেতন নাগরিক সমাজ দিনাজপুরের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে এক সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম রবি, রোকেয়া বেগম লাইজু, এ্যাড. মেহেরুল ইসলাম, এ্যাড. লিয়াকত আলী, রবিউল আউয়াল খোকা, রেজাউর রহমান রেজু, সাংবাদিক ওয়াহেদুল আলম আর্টিষ্ট, সুলতান কামাল উদ্দীন বাচ্চু, আহমদ শফি রুবেল প্রমুখ।
সভায় মেয়রের নেতৃত্বে নাগরিক সমাজ ভুমিদস্যুদের হাত থেকে ময়লা-গাড্ডার জমি দখলের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দেয়ার আহবান জানান। উপস্থিত নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ বলেন, কোন অবস্থাতেই ময়লা-গাড্ডার জমির একচুল মাটিও ভুমিদস্যুদের দখল করতে দেয়া হবে না। বক্তারা একটি শক্তিশালী লিগ্যাল এইড কমিটি ও এ্যাডভাইজারী কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন।
আলোচনা শেষে ভুমিদস্যুদের জমি দখলের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিতে লোকভবন থেকে পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম ও সচেতন নাগরিক সমাজ দিনাজপুরের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে সচেতন পৌরবাসি এক বিশাল মিছিল নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ সেখানে সন্ধ্যা পর্যন্ত অবস্থান করেন। ভুমিদস্যুরা সচেতন নাগরিক সমাজের এই বিশাল বহর দেখে ঘটনাস্থল থেকে চম্পট দেয়।
আলোচনা সভা, মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচীতে এ্যাড. মো. মাহমুদুর রহমান বাবুল, এ্যাড. মো. লিয়াকত আলী, এ্যাড. মো. মেহেরুল ইসলাম, এ্যাড. মো. আসির উদ্দীন, এ্যাড. রফিকুল আমিন, রেজাউর রহমান রেজু, সাংবাদিক ওয়াহেদুল আলম আর্টিষ্ট, সচেতন নাগরিক সমাজের নেতা আহমদ শফি রুবেল, রবিউল আউয়াল খোকা, হবিবর রহমান, আখতার আজিজ, সুলতান কামাল উদ্দীন বাচ্চু, মঈন উদ্দীন চিশতি, প্রভাষক বদিউজ্জামান বাদল, শহিদুল ইসলাম শহিদুল্লাহ, রহমত উল্লাহ, মোল্লা মো. শাফায়েত হোসেন, পৌরসভার কাউন্সিলর মো. রবিউল ইসলাম রবি, রোকেয়া বেগম লাইজু, ফয়সল হাবিব সুমন, জিয়াউর রহমান নওশাদ, মনিরুল ইসলাম বুলু, আবু হানিফ দিলন, মো. মকবুল হোসেন, শাহিন সুলতানা বিউটি, মাসতুরা বেগম পুতুল, পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফজলুল হকসহ সচেতন নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ ও পৌরবাসি অংশগ্রহণ করেন।
উল্লেখ্য, শহরের পূর্ব পাশে মাতা সাগরস্থ রাজারামপুর মৌজার জে,এল নং-৬৭ খতিয়ানের দিনাজপুর পৌরসভার ময়লা-গাড্ডার ৮ একর ৬০ শতক জমি দীর্ঘ ৫০ বছর উর্দ্ধকাল যাবত পৌরসভার নিজ দখলে রেকর্ডভূক্ত সম্পত্তি রয়েছে। উক্ত জমিতে দিনাজপুর পৌরসভার যাবতীয় আবর্জনা ফেলে নিজ স্বত্ত্বে দীর্ঘ দ্বাদশবর্ষের বহু উর্দ্ধকাল যাবত অদ্যাবধি ভোগদখল করে আসছে। উক্ত জমিটি সরকার কর্তৃক অধিগ্রহন করে সিএস ও এসএ রেকর্ডভূক্ত হয় দিনাজপুর পৌরসভার নামে। এমনকি বাংলাদেশ জরিপের সময় মাঠ পর্চা আরএস/ বিএস খতিয়ান নং-২, আর.স দাগ নং-৩২, ৩৩, ৩৪, ৩৫, ৩৬ খতিয়ানে দিনাজপুর পৌরসভার নামে রেকর্ড হয়ে চুড়ান্তভাবে প্রকাশিত হয়েছে।
এখানে উল্লেখ্য, দিনাজপুর পৌরসভার তদানিন্তন মিউনিসিপ্যাল কমিটি এলাকার সার্ভিস লেট্রিনের ময়লা ডাম্পিং করার জন্য ১০ একরের মত জমির প্রয়োজন দেখা দেয়। যা তৎকালীন সরকার জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন নীতির আলোকে সরকার কর্তৃক তাগিদ দেয়। যার প্রেক্ষিতে রাজারামপুর মৌজার নালিশী দাগের ভূমিসহ অপরাপর ২০, ২১, ২২, ২৩, ২৪, ৩৮ ও ২৬ নং দাগের ৮ একর ৬০ শতক জমি এলএ মোকদ্দমা ৭/৪ অব ১৯৬০-৬১ রুজু হয় এবং উক্ত জমি সরকার কর্তৃক ১৯৬০ সালের ১৭ নভেম্বর হুকুম দখল করতঃ ২১-১১-৬০ তারিখে বাদী দিনাজপুর পৌরসভাকে সম্পত্তি হস্তান্তর করেন।
উক্ত সম্পত্তি অধিগ্রহনের প্রেক্ষিতে ২৯-০৮-১৯৬৩ তারিখে চুড়ান্ত গেজেট নোটিফিকেশন হয়। ১২-০৯-১৯৬৩ তারিখে ঢাকা গেজেটে গেজেট পাবলিকেশন হয়।
উক্ত অধিগ্রহনের প্রেক্ষিতে ভূমি অধিগ্রহণ অফিসার ও তৎকালীন বাদী দিনাজপুর পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত অতিরিক্ত ডেপুটি কমিশনার উক্ত চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন এবং চুক্তিপত্রের শর্ত মোতাবেক বাদী মিউনিসিপ্যাল কমিটি চালানযোগে টাকা ভূমি হুকুম দখল কর্তৃপক্ষ বরাবরে জমা করা হয়। ভূমি হুকুম দখল খরচা বাবদ কর্তৃপক্ষ ২১-১১-১৯৬০ তারিখে পৌসভার সার্ভেয়ারের উপস্থিতিতে দিনাজপুর পৌরসভাকে উক্ত জমির অপরাপর দাগের ৮ একর ৬০ শতক জমি বুঝিয়ে দেয়া হয়।
এরপর হতে যাবতীয় আবর্জনা ফেলে পৌরসভা নিজ স্বত্ত্বে নিষ্কন্টক জমি দখল ও ভোগ করে আসছে। ভূমিদস্যুরা পৌরসভার জমি দখল করার কৌশলে রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। তারা পৌরসভাকে পক্ষভূক্ত না করে জেলা প্রশাসনকে পক্ষভূক্ত করে নিজেদের মধ্যে বাটোয়ারা দেখিয়ে ৩ ভূমিদস্যু যথাক্রমে দিনাজপুর সদর, উপজেলার বড়বন্দর এলাকার মৃত সামসুদ্দীন আহম্মদের ছেলে পুশিদার রহমান, সাং-ফকিরপাড়া এলাকার মৃত হযরত আলীর ছেলে জামালউদ্দীন ও চিরিরবন্দর উপজেলার ভূষিরবন্দর, বৈকন্ঠপুর গ্রামের মৃত ছমির উদ্দীন সরকারের ছেলে আব্দুল মান্নান সরকার, শহরের বড়বন্দর এলাকার মৃত লক্ষী নারায়ন দাসের ছেলে নিরোদ মোহন দাস এর নিকট থেকে প্রত্যেকে ৩৫ শতক করে জমি ক্রয় দেখিয়ে সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করে একতরফা রায় গ্রহন করে। চার্জ কোর্টের ২ লাখ টাকার বেশি পাওয়ার নিয়ম না থাকলেও সাড়ে ৩ লাখ টাকার সম্পত্তির অবৈধ রায় গ্রহনের পাঁয়তারার আশ্রয় নেয়। অথচ ২০১১ সালে সাব-জজ আদালতে দিনাজপুর পৌরসভা বাদী হয়ে নিরোদ মোহন দাসের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। যে মামলাটি আজও বিচারাধীন।
বিচারাধীন মামলার বিরুদ্ধে নিম্ন আদালতে মামলার এখতিয়ার না থাকলেও অনেকটা কানাকে হাইকোর্ট দেখানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছিল ভূমিদস্যুরা। পৌরসভার সম্পত্তিতে পৌরসভাকে পক্ষভূক্ত না করে জেলা প্রশাসনকে পক্ষভূক্ত করে একতরফা রায় নিয়ে ভূমি দখলের অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়। যা সচেতন দিনাজপুরবাসী টের পেয়ে পুনরায় পৌর সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য উদ্যোগ গ্রহন করায় ভূমিদস্যুরা চম্পট দিয়েছে।
নিজেদের মধ্যে বাটোয়ারা দেখিয়ে পৌর সম্পত্তির উপর ডিক্রী জারির বিরুদ্ধে দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম উক্ত ৩ জন ভূমিদস্যুর বিরুদ্ধে যুগ্ম জেলা জজ-১ম আদালতে ডিক্রী রোধ মামলা দায়ের করেছেন। পাশাপাশি অপর ভূমিদস্যু পুশিদার রহমানের বিরুদ্ধে ২০১১ সালে দায়েরকৃত পৌরসভার মামলাটি উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। ভূমিদস্যুরা একেক সময় একেক কৌশল গ্রহন করে পৌরসভাসহ সরকারী ও বেসরকারী সম্পত্তি দখলের যে নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করছে তা সত্যই আশ্চর্যজনক। এদের বিরুদ্ধে সরকারের উচ্চ মহল থেকে আশু পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে ভূমিদস্যুদের কবলে স্বর্বশান্ত হতে হবে সব শ্রেণীর মানুষ তথা পৌরবাসীকে।
অবিলম্বে এদের বিরুদ্ধে জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা একান্ত আবশ্যক। ২০১১ সালের ২৫ জুলাই কতিপয় ভুমিদস্যু এই জমিটি দখলের ষড়যন্ত্র করলে সচেতন পৌরবাসি তাদের সেই ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দেয়। চলতি মার্চ মাসের প্রথম দিকে কতিপয় ভুমিদস্যু ময়লা-গাড্ডার জমির মধ্যে ১ একর ৫ শতক জমি পুনরায় দখলের উদ্দেশ্যে পৌরসভার সম্পত্তিতে পৌরসভাকে বিবাদী না করে জেলা প্রশাসককে বিবাদী করে একটি মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করে। খবর পেয়ে পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহ্ঙ্গাীর আলম ও সচেতন নাগরিক সমাজের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে সচেতন পৌরবাসি ভুমিদস্যুদের সেই ষড়যন্ত্র আবারো ব্যর্থ করে দেয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ