• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৪:৩১ অপরাহ্ন |

শ্রীলঙ্কাকে ৯ উইকেটে হারিয়ে সেমি ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকা

South Africaখেলাধুলা ডেস্ক : গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ চারটি ম্যাচেই শ্রীলঙ্কার স্কোর ছিল ৩০০ রানের ওপরে। সেই শ্রীলঙ্কা কিনা কোয়ার্টার ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে এসে ১৩৩ রানেই অলআউট!
দারুণ এক হ্যাটট্রিক করে শ্রীলঙ্কার ইনিংসের এমন ধস নামান জে পি ডুমিনি। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে এক রকম অসহায় আত্মসমর্পণ করেছে শ্রীলঙ্কা। ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে লঙ্কানরা। আর সহজ জয়ে সেমিফাইনালে উঠে গেছে এবি ডি ভিলিয়ার্সের দল।
বুধবার সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাট করতে নামে ৩৭.২ ওভারে ১৩৩ রানে ইনিংস গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। জবাবে কুইন্টন ডি ককের নৈপুণ্যে ৯ উইকেট ও ১৯২ বল হাতে রেখে জয় তুলে নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা।
টস জিতে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৪ রানের মধ্যেই দুই ওপেনার কুশাল পেরেরা ও তিলকারত্নে দিলশানের উইকেট হারায় লঙ্কানরা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে দলীয় ৩ রানে সাজঘরে ফেরেন কুশাল পেরেরা (৩)। এই ওপেনারকে উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি ককের গ্লাভসবন্দি করান প্রোটিয়া পেসার কাইল অ্যাবট। এরপর স্কোরবোর্ডে আর ১ রান জমা হতেই বিদায় নেন আরেক ওপেনার তিলকারত্নে দিলশান (০)। তাকে ফাফ ডু প্লেসির ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরের পথ দেখান ডেল স্টেইন।
দ্বিতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন কুমার সাঙ্গাকারা ও লাহিরু থিরিমান্নে। তবে থিরিমান্নেকে ফিরিয়ে তাদের ৬৫ রানের জুটি ভাঙেন ‍স্পিনার ইমরান তাহির। থিরিমান্নেকে নিজের ফিরতি ক্যাচে পরিণত করেন তিনি। ৪৮ বলে ৫ চারে ৪১ রান করেন থিরিমান্নে। দলীয় ৮১ রানে মাহেলা জয়াবর্ধনেকেও বিদায় করেন তাহির। ৪ রান করা জয়াবর্ধনেকে ডু প্লেসির তালুবন্দি করান এই লেগস্পিনার।
এরপর পঞ্চম উইকেটে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে নিয়ে এগোতে থাকেন সাঙ্গাকারা। কিন্তু দলীয় ১১৪ থেকে ১১৬, মাত্র ২ রানের ব্যবধানে ম্যাথুসসহ আরো ৩ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে মহাবিপদে পড়ে শ্রীলঙ্কা। প্রথমে ম্যাথুসকে ফিরিয়ে ৩৩ রানের জুটি ভাঙেন জে পি ডুমিনি। ১৯ রান করা ম্যাথুসকে ডু প্লেসির ক্যাচে পরিণত করেন তিনি। ম্যাথুসের বিদায়ের পর দ্রুতই ফেরেন তিশারা পেরেরা (০)। তাহিরের বলে রিলে রুশোর হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি।
দলীয় ১১৬ রানে একই ওভারে পর পর দুই বলে নুয়ান কুলাসেকারা ও অভিসিক্ত থারিন্ডু কৌশলকে বিদায় করে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন ডুমিনি। আগের ওভারের শেষ বলে ম্যাথুসকে আউট করেছিলেন তিনি। এক প্রান্ত আগলে রাখা সাঙ্গাকারাও বিদায় নেন দলীয় ১২৭ রানে। মরনে মরকেলের বলে ডেভিড মিলারের হাতে ক্যাচ দেন সাঙ্গাকারা। সাঙ্গাকারা এদিন ৯৬ বলে ৩ চারে করেন ৪৫ রান। দলীয় ১৩৩ রানে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মালিঙ্গাকে আউট করেন তাহির।
দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৫ রান করেন কুমার সাঙ্গাকারা। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন তাহির। হ্যাটট্রিকসহ ৩ উইকেট নেন  ডুমিনি।
স্বল্প লক্ষ্যে খেলতে নেমে কোনো বেগই পেতে হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকাকে। কুইন্টন ডি ককের নৈপুণ্যে সহজ জয় তুলে নেয় প্রোটিয়ারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৮ রান করে অপরাজিত থাকেন ডি কক। ২১ রানে অপরাজিত থাকেন ফাফ ডু প্লেসি। হাশিম আমলার একমাত্র উইকেটটি নেন লাসিথ মালিঙ্গা।

ম্যাচ-সেরার পুরস্কার জেতেন ইমরান তাহির।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ