• রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১২:৪৩ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুর রেলওয়ের জায়গায় চলছে অবৈধ স্থাপনার উচ্ছেদ অভিযান

Saidpurমহসিন/রকি: সৈয়দপুর রেলওয়ের জায়গায় অবৈধ স্থাপনার উচ্ছেদ অভিযান চলছে। আজ বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিনেও ওই অভিযান পরিচালিত হয়। বিমানবন্দর সড়কে এ উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। ডিভিশনাল ষ্টেড অফিসার (ভুমি পাকশি) মোস্তাক আহমেদ এর নেতৃত্বে দুই দিন ব্যাপি অভিযানে বুধবার প্রথম দিনে সৈয়দপুর রেল ষ্টেশনের উভয় প্রান্তের প্রায় দেড় শতাধিক দোকান-পাট ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। এ সময় নীলফামারী জেলা ম্যাজিষ্ট্রেড নুরে আলম, সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ডিএস নুর আহমেদ, এএসপি সার্কেল সাজেদুর রহমান, সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ইসমাঈল হোসেন এবং রেলওয়ের সহ: প্রকৌশলী আনিছুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। আর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রেলওয়ের পুলিশ, আনছার, নিরাপত্তা সদস্য ছাড়াও সৈয়দপুর থানা প্রশাসন উপস্থিত ছিলেন।
সুত্র জানায়, সৈয়দপুর শহরটিতে ২৫.৭৫ একর বাণিজ্যিক এলাকা রয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ের। যা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সৈয়দপুর রেলওয়ে এবং পৌরসভার মধ্যে মালিকানার দ্বন্দ্ব নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। এর মধ্যে সুযোগ-সন্ধানিরা শহরটি ছাড়াও ষ্টেশন এলাকার মধ্যে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় দখলের মাধ্যমে দোকান-পাট গড়েছে। এতে দিনদিন রেলের এ শহরটির অবৈধ দখলের কারণে এর আয়তন ছোট হয়ে আসছিল। তাই এটি রক্ষায় দুই দিনের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কর্মসুচি হাতে নেয়। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার রেল কর্মকর্তারা উপস্থিত থেকে সৈয়দপুর রেল ষ্টেশন এব্ং রেল লাইনের উভয় পার্শ্বের টিন শেড এর প্রায় বড়-ছোট প্রায় দুই শতাধিক দোকান-পাট স্কেবেটর দিয়ে ভাঙ্গা হয়। ডিভিশনাল ষ্টেড অফিসার(পাকশি) মোস্তাক আহমেদ বলেন সৈয়দপুর নয় সারা দেশের রেলওয়ের জায়গা অবৈধ ভাবে বেদখল হয়েছে। এগুলো দখলমুক্ত করতে সব রেলওয়ের এলাকায় ধারাবাহিক ভাবে কাজ চলছে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, রেলওয়ে এখন কাউকে এ্যালোট দেয়না তাই বৈধ্য-অবৈধ সব স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলা হবে।
এদিকে সৈয়দপুর শহরে কোন অনুমোদন ছাড়া তিনশত দোকান নির্মানের মাধ্যমে বহুতল মার্কিট নির্মাণ প্রসংঙ্গে তিনি আরো বলেন, রেলওয়ে কাউকে কোন মার্কেট নির্মানের অনুমতি দেয়নি তাই বহুতল বিশিষ্ট মার্কেটটিও ভেঙ্গে ফেলা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ