• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন |

মান্নাকে জামিনে মুক্তির দাবি তার স্ত্রীর

MANNA-A-1426744874সিসি নিউজ : নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার স্ত্রী মেহের নিগার বলেছেন, সুচিকিৎসা ও আইনানুগ সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত থাকলে তার স্বামী সুস্থ হয়ে দেশসেবায় রাজনীতিতে সক্রিয় থাকতে পারবেন। এজন্য মান্নাকে জামিনে মুক্তির দাবি জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর তোপখানা রোডে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তিনি।

তিনি জানান, গত ২৩ ফেব্রুয়ারি মান্নাকে বনানীর এক আত্মীয়ের বাসা থেকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর তিনি ২১ ঘন্টা নিখোঁজ ছিলেন। সে সময় আমাদের দুঃসহ অবস্থা বলার অপেক্ষা রাখে না। বিশেষ করে যখন কর্তৃপক্ষ গ্রেফতারের কথা অস্বীকার করে। মিডিয়ার কারণে তখন সত্যতা বেরিয়ে আসে।

তিনি বলেন, র‌্যাবের পক্ষ থেকে ধানমন্ডিতে ২৪ ফেব্রুয়ারি রাতে গ্রেফতার দেখিয়ে মান্নাকে গুলশান থানায় হাজির করা হয়। এর মধ্যেই পরপর দু’টো মামলা দিয়ে তাকে ২০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। ১০ দিনের প্রথম রিমান্ডের সময় আমাদের সঙ্গে তার সাক্ষাত ও ওষুধপত্র দেওয়ার কোন সুযোগও পাইনি। আদালতে তিনি তার অসুস্থতার কথা জানিয়ে ডাক্তার ও আইনজীবীর উপস্থিতিতে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেছিলেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশমতে রিমান্ডে এ ধরনের বিধানের কথা আমিও শুনেছি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ কোনো কথায় কর্ণপাত করার প্রয়োজন বোধ করেনি।

মেহের নিগার আরো জানান, তার স্বামীর বুকে ৩টার অধিক ব্লক ধরা পড়েছে আগে করা এনজিওগ্রামে। সম্প্রতি গ্রেফতার ও মানসিক নির্যাতনের কারণে তার হার্টের পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়ে গেছে বলে আমরা অশঙ্কা করছি। আমরা সরকারের কাছে মান্নার শরীরের যথাযথ পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও সুচিকিৎসার জন্য বিনীত আবেদন জানাচ্ছি। আদালতের সর্বশেষ রায়ে মান্নাকে কারাগারে হস্তান্তরের আদেশের পর আমরা সেখানে তার ডিভিশন ও সুচিকিৎসা নিশ্চিত করারও অনুরোধ জানাচ্ছি। নিয়মিত ফিজিওথেরাপি ছাড়াও জটিল হৃদরোগ, মেরুদন্ডের হাড় ক্ষয়, উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন জটিল রোগের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষায় যেন কোন প্রকার অবহেলা না হয় তারও নিশ্চয়তা চাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, মাহমুদুর রহমান মান্না আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং যেকোন প্রকার আইনানুগ বিচারের সম্মুখীন হতে রাজি আছেন। প্রয়োজনে তাকে জেলগেটে ডাক্তারের উপস্থিতিতেও জিজ্ঞাসাবাদ করা যেতে পারে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, মাহমুদুর রহমান মান্না রাজনীতি করেন। দীর্ঘদিন ছাত্র আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন। চাকসু’র জিএস ও দু-দু’বার ডাকসু’র ভিপি ছিলেন। তিনি কখনও সন্ত্রাস-সহিংসতা, ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত বরদাশত করেননি। ফোনালাপে তার কথা বিকৃত করে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে যা আমাদের ব্যথিত করেছে। একজন অসুস্থ মানুষের প্রতি রিমান্ডের নামে কী ধরনের আচরণ করা হয়েছে তা গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি হওয়া থেকেই বোঝা যায়। আমরা বিশ্বাস করি আইনী প্রক্রিয়ায় সুষ্ঠুভাবে বিচার হলে মান্না নিরাপরাধী হিসেবে মুক্ত-স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবেন। সে সুযোগ থেকে যেন তাকে বঞ্চিত করা না হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ