• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন |

তিস্তার পানি আমাদের ন্যায্য অধিকার

Tista।।আব্দুল হাই রঞ্জু।।
তিস্তার পানি নিয়ে সংকট দীর্ঘদিনের। অথচ তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার ওপর নির্ভর করছে দেশের উত্তরাঞ্চলের মানুষের বাঁচা মরার বিষয়টি। দেশের মোট জনগোষ্ঠীর খাদ্য নিরাপত্তায় উত্তারাঞ্চলে উৎপাদিত হয় খাদ্য চাহিদার প্রায় সিংহভাগ অথচ পানির অভাবে উত্তরাঞ্চলের বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুর জেলার হাজার হাজার হেক্টর জমির সেচ সুবিধা দীর্ঘদিন যাবতই চরম সংকটের মুখে পড়ে আছে। যে সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার প্রতিবেশি দেশ ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক পর্যায়ে দরকষাকষি করে দীর্ঘদিনেও কোন সমাধানে আসতে পারেনি।
২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশ-ভারত তিস্তাচুক্তি করার প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন করেছিল।। সে সময়ের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং সে লক্ষ্য নিয়ে বাংলাদেশ সফরে আসেন। তাঁর সফর সঙ্গি হওয়ার কথা ছিল পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। আকস্মিকভাবে মমতা ব্যানার্জি বাংলাদেশ সফর বাতিল করায় সে দফায় আর তিস্তা চুক্তি করা সম্ভব হয়নি। সমপ্রতি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী প্রায় চার বছর পর বাংলাদেশ সফর করলেন এবং তিস্তা চুক্তির ব্যাপারে তাঁর ওপর আস্থা রাখার আহ্বান জানালেন। মমতা ব্যানার্জির সফরের পরপরই ঢাকা সফর করে গেলেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ড. সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর। ভারতের পররাষ্ট্রসচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্করের সহিত বৈঠক করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী ও পররাষ্ট্রসচিব শহিদুল হক। বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক বলেন, ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের সফরকে তারা ইতিবাচক হিসাব দেখছেন। তিনি জোরের সাথেই বলেন, তিস্তার পানি সংকট সমস্যার সমাধান চায় ভারত। তিনি জানান, তিস্তা নিয়ে তিন ধরণের উদ্বেগ আছে বাংলাদেশের। যেমন- তিস্তার পানি সর্বনিম্ন স্তরে নেমে যাওয়া, ২০১১ সাল থেকে চুক্তি ঝুলে থাকা এবং চুক্তির খসড়া চূড়ান্ত হওয়ার পর ‘কারিগরি’ প্রশ্ন তোলায় আরো এক ধরণের উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। তবে আশার কথা হচ্ছে, ভারতের বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার প্রতিবেশি দেশগুলোর সাথে সুসম্পর্ক স্থাপনের ওপর গুরুত্বারোপ করেছে। আমরাও আশাবাদি, নরেন্দ্র মোদী তিস্তার পানি সংকট সমাধানে তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ড. সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ করে নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফরের আগ্রহের বার্তাও পৌছে দেন। সামপ্রতিক সময়ের ঘটনা প্রবাহ দেখলেও মনে করা স্বাভাবিক, ইতিমধ্যেই তিস্তা নিয়ে জমে থাকা বরফ গলতে শুরু করেছে। গত ৪ মার্চ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পাঠানো চিঠিতে তিস্তার পানি সংকটের দ্রুত নিস্পত্তি করতে তার আগ্রহের কথাটিও তিনি জানান। এমনকি তিনি তিস্তা সংকট সমাধানে আলোচনা করতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে সাক্ষাতের আগ্রহের কথাও ঐ পত্রে উল্লেখ করেন। তবে সমপ্রতি মমতা ব্যানার্জি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দিলি্লতে সাক্ষাতের সময় তিস্তার পানি চুক্তির বিষয়ে কিছুই বলেননি। এতেই জনমনে আশংকা আদৌ কি তিস্তা চুক্তি হবে?
বাস্তবতা হচ্ছে, তিস্তা নদীতে পানির অভাবে সৃষ্টি হয়েছে বিশাল বিশাল চর। আর ভাঙ্গনে ভাঙ্গনে তিস্তাকূলের মানুষের অবস্থা আজ বিপন্ন। তিস্তার অববাহিকা এবং বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলে ঐতিহ্যবাহী জীববৈচিত্র, পরিবেশ, প্রকৃতিতে রয়েছে ভিন্নরূপ। শুধু তিস্তা নদীতে পানি না থাকায় এ অঞ্চলের ধরলা, ঘাঘট, যমুনেশ্বরী, আখিয়া, দুধকুমুরসহ প্রায় ৩৩টি ছোট বড় নদ-নদী ভরাট হয়ে যাচ্ছে। বলতে গেলে প্রতিটি শাখা নদী এখন খালে পরিণত হয়েছে। এ অঞ্চলের গরিব মৎস্যজীবিরা এখন নদীতে মাছ ধরতে না পারায় তাদের বাঁচতে হচ্ছে মানবেতর পরিবেশে। এমনকি নদীতে পানি না থাকায় নদীকেন্দ্রিক শ্রমজীবি মানুষেরা এলাকা ছেড়ে পাড়ি জমাচ্ছে শহর, বন্দর, নগরে। যারা এখন মূল পেশা ছেড়ে হয়েছে রিক্সাচালক কিম্বা কৃষি মজুর। অথচ দার্জিলিং ও জলপাইগুড়ি হয়ে পশ্চিবঙ্গের ডুয়ার্সের সমভূমি দিয়ে প্রবাহিত হয়ে নীলফামারী জেলার উত্তর খড়িবাড়ির কাছে ডিমলা উপজেলার ছাতনাই নামক স্থানে প্রবেশ করে তিস্তা নাম নিয়ে কুড়িগ্রামের উলিপুর হয়ে চিলমারীতে গিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে মিশেছে। দীর্ঘ এই ১২৫ কিলোমিটার জুড়েই তিস্তা নদীতে শুধু বালুই চকচক করছে। অথচ এক সময় তিস্তা নদী ছিল পানিতে ভরপুর। নদীর দুই কূলের কৃষকরা নদীর পানি তুলে চাষাবাদ করতো। অনেক দিন হয় সে অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। নদীতে পানি না থাকায় এ অঞ্চলের কৃষকরা ভূগর্ভস্থ পানির ওপর বহুলাংশেই নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন। ফলে বিস্তৃর্ণ উত্তরাঞ্চলের ভূগর্ভস্থ পানির স্তর অনেক নিচে নেমে গেছে। কয়েক বছর ধরে এই অঞ্চলের চাষীরা মাটিতে ১০/১৫ ফুট পর্যন্ত গর্ত করে সেখানে সেচযন্ত্র বসিয়ে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলন করে চাষাবাদ করছেন। অবস্থাটা এমন, শুধু পানির অভাবে রংপুর অঞ্চলই নয়, গোটা উত্তারাঞ্চলে ইতিমধ্যেই মরুকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। অথচ ভারতের সিকিম রাজ্যের হিমালয় পর্বত থেকে জন্ম নেয়া নদীটির পানির ন্যায্য হিস্বা পাওয়া আমাদের মৌলিক অধিকার। উজান থেকে ধেয়ে আসা পানির প্রবাহ বন্ধ করা আন্তর্জাতিক আইনেও নিষিদ্ধ। তবুও বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশি দেশ ভারত একতরফাভাবে পানি প্রত্যাহার করায় উত্তরাঞ্চলে এখন হাহাকার অবস্থা। এ অবস্থা চলতে থাকলে নিকট ভবিষ্যতে উত্তরাঞ্চলের ১৭টি জেলার কৃষি, জীববৈচিত্র যে হুমকির মুখে পড়বে, এতে কোন সন্দেহ নেই।
ভারত জলাইগুড়ির গজলডোবায় ১৯৭৭ সালে ব্যারেজ নির্মাণ করে পানি প্রবাহকে নিয়ন্ত্রণ শুরু করে। শুষ্ক মৌসুমে বাংলাদেশ অংশের তিস্তা নদীতে ৫৫ হাজার কিউসেক পানির প্রয়োজন হলেও পাই মাত্র ৩ হাজার কিউসেক। যদিও ১৯৮৩ সালের জুলাই মাসে দুই দেশের মন্ত্রী পর্যায়ে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, তিস্তার পানি বণ্টনে বাংলাদেশ ৩৬ শতাংশ, ভারত ৩৯ শতাংশ এবং নদীতে সংরক্ষিত থাকবে ২৫ শতাংশ। কার্যত অনেকটাই ‘কাজীর গরু খাতায় আছে গোয়ালে নেই’ অবস্থার মতোই। অর্থাৎ কাগজ কলমে আবারও ১৯৯৬ সালে আরেক দফায় একই পদ্ধতিতে পানির বণ্টন সুরাহা হলেও অদ্যাবধি এ সংকটের সমাধান যে হয়নি, যা বলাই বাহুল্য। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ১৯৭৩ সাল থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত তিস্তার পানির যে গতি প্রবাহ ছিল তার মাত্র ১০ শতাংশ পানিও এখন পাওয়া যাচ্ছে না। অথচ তিস্তার উজানে ভারত অংশে নদীতে পানি টইটই করছে। এ কোন ধরণের নৈতিকতা?
সুত্রমতে, ভারত একতরফাভাবে পানি সরিয়ে নেয়ার কারণে উত্তরাঞ্চলে তিস্তা সেচ প্রকল্প চরম সংকটে পড়েছে। ১৯৯০ সালে তিস্তা সেচ প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার আগে বোরো মৌসুমে প্রায় ৭ হাজার কিউসেক পানি থাকার কারণে প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে ১ লাখ ১১ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু ১৯৯৩ সালে সেচ প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার পর পানি কম থাকায় ৮০ হাজার হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করা সম্ভব হয়েছে। সর্বশেষ ২০১৩ সাল পর্যন্ত ৬৫ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ দেয়া সম্ভব হলেও বর্তমানে ১০-১২ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। পানির গতি প্রবাহ এমনভাবে কমিয়ে দেয়া হয়েছে যা গত ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে নেমে এসেছে মাত্র ১৫০ থেকে ১৬০ কিউসেকে। ফলে এ অঞ্চলের কৃষকের অবস্থা এখন খুবই সংকটাপন্ন। শুধু কৃষি চাষাবাদের সংকটই নয়, ভারতের ফারাক্কা ও তিস্তা ব্যারেজের বিরূপ প্রভাবে উত্তরাঞ্চলের প্রমত্তা করতোয়া নদীসহ অন্যান্য নদীগুলো এখন মরা নদীতে পরিণত হয়েছে। ফলে এ অঞ্চলের প্রায় আড়াই হাজার কিলোমিটার নৌপথ এখন লাখ লাখ মানুষের রুটি-রুজির বদলে মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। ইতিমধ্যেই এক হাজার ৮০০ কিলোমটিার নৌ-পথ নাব্যতা সংকটে ১৬টি জেলার ৮৫টি নৌরুটে নৌযান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এ অঞ্চলের মানুষের প্রাণের দাবী, নদী বাঁচাও, দেশ বাঁচাও। এই শ্লোগানে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বাসদের (মাক্সবাদী) নেতা শুক্রাংশু চক্রবর্তীর নেতৃত্বে তিস্তা অভিমুখে রোড মার্চ কর্মসূচী পালিত হয়। রোড মার্চ শেষে বড়ভিটা নামক স্থানে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার দাবি তুলে বলা হয়, তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্বা আমাদের অধিকার কারো দয়া নয়। উত্তারাঞ্চলসহ সারাদেশের মানুষের খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকার প্রয়োজনে তিস্তার পানি চুক্তি এখন সময়ের দাবি উল্লেখ করে নেতৃবৃন্দ বলেন, ভারতের একতরফাভাবে পানি প্রত্যাহার অন্যায্য এবং অমানবিক। সভাস্থল থেকে একতরফা পানি প্রত্যাহার বন্ধ করে পানির স্বাভাবিক গতিপ্রবাহ চালু রাখতে ভারত সরকারের প্রতি নেতৃবৃন্দ আহ্বান জানান।
সমপ্রতি বাংলাদেশ সফরে এসে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি নিজ রাজ্যে বাংলাদেশের জাতীয় মাছ ইলিশ না পাওয়ার অনুযোগ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিস্তা নদীতে পানির অভাবের কথা শুনিয়ে বলেছেন, ‘পানি এলে ইলিশ যাবে।’ এ সময় গণভবনে মমতা ব্যানার্জিকে নৌকা উপহার দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের যেন পর্যাপ্ত পানি থাকে, এ নৌকা যেন চলতে পারে।
জবাবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তিস্তার পানি বণ্টনের ব্যাপারে তাঁর ইতিবাচক ভূমিকা থাকবে বলে প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করেন। আমরা চাই, মুখ্যমন্ত্রীর এ আশ্বাস যেন কার্যত পালিত হয়। কারণ তিস্তার পানি সংকটের সঙ্গে জড়িত আছে বাংলাদেশের বৃহৎজনগোষ্ঠীর খাদ্য নিরাপত্তার স্পর্শকাতর বিষয়টি। উজানের পানির স্বাভাবিক গতি প্রবাহ চালু না হলে অদুর ভবিষ্যতে উত্তরাঞ্চল তথা সমগ্রদেশ মরুভূমিতে পরিণত হবে। এমনিতেই জলবায় পরিবর্তনজনিত কারণে বাংলাদেশের প্রকৃতি এবং আবহাওয়া বদলে গেছে। খরা, অসময়ে বন্যা, সিডর, আইলার মতো দুর্যোগে বাংলাদেশের এখন এাহি এাহি অবস্থা। অন্তত ভাটির দেশের মানুষের বেঁচে থাকার তাগিদে ভারত এ দফায় তিস্তার পানি চুক্তিতে আন্তরিক হবে, এটাই দেশের আপামর জনগোষ্ঠীর একমাত্র প্রত্যাশা।
লেখক: প্রাবন্ধিক

উৎস: করতোয়া


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ