• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ন |

শিশু- কিশোরদের খাবার-দাবার

foodস্বাস্থ্য ডেস্ক:  শীত শেষ। আসছে গরম। তাই এই সময়ে চাই স্বাস্থ্যের একটু বাড়তি যত্ন। বিশেষ করে শিশু-কিশোরদের খাবারে প্রয়োজন বাড়তি একটু সচেতনতা। এ সময়ে পানি কম পান করা এবং খাবার ঠিক মতো না খাওয়ার কারণে শরীরে বাসা বাঁধতে পারে নানা রোগ ।

অ্যাপোলো হসপিটালের প্রধান পুষ্টিবিদ তামান্না চৌধুরী শিশু কিশোরদের খাবার সম্পর্কে বললেন, ‘ এই সময়ে বাচ্চাদের তরলের চাহিদা পূরণ নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য ফলের রস এবং পানি দেওয়া যেতে পারে। কিশোরদেরকে ঘরে তৈরি প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার দিতে হবে। রোগমুক্ত থাকতে বাইরের খাবার বাদ দিতে হবে এবং বেশি করে সবজি এবং দেশীয় ফলমূল খাওয়াতে হবে।’

তাদের খাওয়া-দাওয়ায় একটু অবহেলা করলেই পরে পুষ্টিহীনতার ঝুঁকিতে পড়তে পারে। তাই নিশ্চিত করতে হবে সময়ের খাবার সময়ে খাওয়ার।

গরমে শিশুর খাদ্য তালিকায় পুষ্টিকর, টাটকা এবং সহজপ্রাপ্য খাবার রাখতে হবে। সেটা হতে পারে নরম খিচুড়ি বা সবজির স্যুপ। তবে মাছ-মাংসও হতে পারে পরিমিতভাবে।

শিশুর খাবার ঘরে তৈরি করাটাই ভালো। ঘরে তৈরি টাটকা খাবার শিশুকে নানা ধরনের ঝুঁকির হাত থেকে রক্ষা করবে।

শিশুকে যথেষ্ট পরিমাণ পানি পান করাতে হবে।খুব ঠাণ্ডা বা গরম পানি দুটোই শিশুর জন্য ক্ষতিকর। সেক্ষেত্রে পরিমিত ঠাণ্ডা পানি পান করানোই ভালো।

শিশুকে মৌসুমি ফল বেশি খাওয়ানো প্রয়োজন। বিভিন্ন ধরনের ফলের রসও দিতে পারেন, তবে তা নিজেই বাসায় তৈরি করুন। বাজারের প্যাকেটজাত ফলের রস শিশুর দাঁতের ক্ষতি করে। এ ছাড়া এগুলোতে দেওয়া প্রিজারভেটিভ শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই বাইরের খাবার, কোমল পানীয় এমনকি ফলের রস ইত্যাদি থেকে শিশুকে দূরে রাখাই শ্রেয়।

কিশোরদের মধ্যে কারো কারো সকালের নাস্তা না খাওয়াটা ফ্যাশনে তৈরি হয়েছে। কিন্তু প্রয়োজন এ অভ্যাসের সমাপ্তি ঘটানোর। দুপুরের টিফিনে খাবারের বিকল্প হিসেবেও স্ন্যাকস, নুডলস দেওয়া যেতে পারে। তবে এর পুষ্টিমান নিশ্চিত করতে হবে। ঘরেই যদি সবজি দিয়ে রোল ও পাকোড়া বানিয়ে দেওয়া যায়, সেটা ভালো হয়। কৈশরের খাবারের পাশাপাশি হাড়ের বৃদ্ধির জন্য দরকার ক্যালসিয়াম ও আয়রন। এসব পাওয়া যাবে দুধ, ডিম ও ফলমূলে।

যাদের দুধ খেতে আপত্তি তাদের সরাসরি দুধ না দিয়ে দুধের তৈরি ফিরনি, দই, সেমাই, কাস্টার্ড  তৈরি করে দেওয়া যেতে পারে। ফালুদার  সঙ্গে ফলটাও খাওয়া হয়। ডিম দিয়ে পুডিং ও হালুয়ার মতো খাবার তৈরি করে বৈচিত্র আনা যায়।

আয়রনের ঘাটতি এড়াতে প্রয়োজন আয়রনসমৃদ্ধ খাবারের। ডিম, ডাল, মাছ, মাংস ও সবুজ শাকে তা পাওয়া যাবে। কিশোরীরা যদি শারীরিক গঠনের ব্যাপারে সচেতন হতে চায়, তবে লক্ষ্য রাখতে হবে, তারা যেন খাবার খাওয়া কমিয়ে না দেয়। বরং সুষম খাদ্য খেয়ে ব্যায়াম কিংবা কায়িক শ্রমের মাধ্যমে অতিরিক্ত ক্যালরি কমানো যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ