• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন |

মাসকিং কলের ফাঁদে ‘বিকাশ’ এজেন্টরা

sly6vdqoসিসি ডেস্ক : ব্র্যাক ব্যাংক প্রতিষ্ঠান বিকাশের শেরপুরের অধিকাংশ এজেন্ট নম্বরধারীরা বিভিন্ন সময়ে প্রতারক চক্রের মাসকিং কলের (ভিওআইপি) ফাঁদে পড়ে প্রায় কোটি টাকা খোয়ানোর অভিযোগ উঠেছে।

পিন কোড পরিবর্তন, অধিক কমিশন ও বিভিন্ন ধরনের প্রলোভন দিয়ে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

শহরের নিউমার্কেটে স্থাপিত বিকাশের আঞ্চলিক অফিস সূত্রে জানা গেছে, আর্থিক লেনদেন সহজ করতে বিকাশ কর্তৃপক্ষ ২০১২ সালের আগস্ট মাস থেকে শেরপুর সদরসহ পাঁচ উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম শুরু করে। বর্তমানে প্রায় ১২শ এজেন্ট তাদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে দেশের মধ্যে আর্থিক লেনদেন করছেন।

অভিযোগ উঠেছে, বেশ কিছুদিন ধরে কতিপয় অসাধুচক্র মোবাইল ফোন প্রযুক্তির অপব্যবহার করে জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের সহজ সরল বিকাশের এজেন্ট এবং পারসোনাল একাউন্টধারীদের টার্গেট করে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।

সদর উপজেলার কুসুমহাটি বাজারের রবিউল ইসলাম নামে এক বিকাশ এজেন্ট জানান, গত ১৪ মার্চ সকাল ৯টার দিকে বিকাশের স্থানীয় অফিসের ম্যানেজারের মোবাইল নাম্বার থেকে একটি ফোন আসে এবং ফোনের অপর প্রান্ত থেকে আমার বিকাশের গোপন পিন নাম্বার জানতে চাওয়া হয়। আমি সরল বিশ্বাসে গোপন পিন নাম্বারটি বলার পরপরই ফোনের অপর প্রান্তের ব্যক্তি লাইনটি কেটে দেন। পরে আমার ব্যালেন্স চেক করতে গিয়ে দেখতে পাই আমার পুরো ৫৪ হাজার টাকার ব্যালেন্স জিরো হয়ে আছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, অফিসের নির্দেশনা অনুযায়ী বিকাশ এজেন্টদের ২/৩ মাস পরপর গোপন পিন নম্বর পরিবর্তন ও নতুন পিন নম্বর গ্রহণের বিধান রয়েছে। সে অনুযায়ী আমি পুরনো পিন কোডটি বলি এবং নতুন পিন কোড মোবাইলে সেইভ করি।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, রবিউলের মতো বিকাশ এজেন্ট ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের আশরাফ হোসেন, আমজাদ শেখ, নিয়ামত মিয়া, নালিতাবাড়ী উপজেলার যোগানিয়া ইউনিয়নের নিলুফার, কসর উদ্দিন, নকলা উপজেলার ফরমান আলী প্রতারকদের ফাঁদে পড়ে খুইয়েছেন তাদের লাখ লাখ টাকার ব্যবসার পুঁজি।

এ প্রসঙ্গে কথা হয় শহরের খরমপুর মহল্লার বিকাশ ব্যবসায়ী সেলিম মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, আমি নিজেও এ ধরনের প্রতারণা ফাঁদে পড়েছি। এখন এ ধরনের ঘটনা নিত্যনৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি জানান, আমার জানামতে বছরের পর বছর ধরে শতশত মানুষ প্রতারকদের খপ্পরে পড়ে বিভিন্ন অংকের টাকা খুইয়েছেন। তিনি মনে করেন সব মিলিয়ে ক্ষতির পরিমাণ কোটি টাকার উপরে। বিষয়টি আর্থিক সম্পর্কিত হওয়ায় ঝামেলা এড়াতে প্রতারিতরা থানা পুলিশে যান না বলে তিনি দাবি করেন।

অভিযোগ প্রসঙ্গে কথা হয় বিকাশের শেরপুর শাখার টেরিটরি ম্যানেজার রাফিউল আমিনের সঙ্গে। তিনি জানান, ‘মাসকিং বা ভিওআইপি কলের মাধ্যমে প্রতারণা করাটা অস্বাভাবিক কোনো ঘটনা নয়। আমার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরটি প্রতারকরা ভিওআইপি কলের মাধ্যমে আমাদের বিকাশ এজেন্টের মোবাইল ফোনে ভাসমান করাতে সক্ষম। তাই প্রতারণা এড়াতে প্রতিটি এজেন্টকে স্বশরীরে অফিসে এসে তাদের গোপন পিন কোড পরিবর্তন এবং বিভিন্ন ধরনের প্রতারণা এড়িয়ে চলতে দিক নির্দেশনাসহ ট্রেনিং দেয়া হয়।

এছাড়াও এজেন্টদের এমন নির্দেশনাও দেয়া আছে যদি অফিস থেকে কোনো ফোন আপনাদের (এজেন্ট) কাছে যায় তাহলে সেই ফোন কেটে পুনরায় সেই নম্বরে ফোন ব্যাক করে নিশ্চিত হয়ে নিবেন সেটি আদৌ বিকাশ অফিসের কীনা। কারণ ভিওআইপি বা মাসকিং কল হলে পুনরায় ওই নম্বরে প্রবেশ করা যাবে না। জানা যাবে সেটা ভুয়া ফোন কল কিনা। এত কিছুর পরও যদি আমাদের এজেন্টরা প্রতারকদের ফাঁদে পা দেয় তাহলে আমাদের কি বা করার আছে।

শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মাহফুজার রহমান বিকাশ এজেন্টরা বিভিন্নভাবে প্রতারকদের খপ্পরে পড়ছেন বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ভুক্তভোগীরা এ ধরনের ঘটনা থানায় নথিভূক্ত করেন না। যদি কোনো ভুক্তভোগী থানায় এসে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তাহলে সে অনুযায়ী যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ