• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন |

পঞ্চগড়ে বাবা-মাকে জবাই করে হত্যা

image_1928_243322সিসি ডেস্ক: পঞ্চগড় সদর থানার ২০ গজের মধ্যে শহরের রামের ডাঙ্গা মহল্লায় প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে ও জবাই করে বাবা-মাকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে মানসিক বিকারগ্রস্ত ছেলে মঞ্জুরুল হাসান শান্ত (৩৭)। নিহতরা হলেন শান্তর বাবা পঞ্চগড় চিনিকলের অবসরপ্রাপ্ত ফিল্ডম্যান ও মুক্তিযোদ্ধা মিজানুর রহমান (৬৫) এবং মা সুলতানা বেগম (৫৫)। চিৎকার শুনে থানার এক কনস্টেবলের স্ত্রী তাদের বাঁচাতে গেলে তাকেও কুপিয়ে আহত করা হয়। খবর পেয়ে পঞ্চগড় থানা থেকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে ধরার সময় ছুরিকাঘাতে আহত হয়েছে একজন এসআই ও একজন এএসআই।
পুলিশ ও এলাকাবাসীরা জানিয়েছে, রোববার বেলা আড়াইটার দিকে প্রচন্ড চিৎকার শুনতে পান প্রতিবেশীরা। কিন্তু ভাই-ভাই মঞ্জিলের প্রধান ফটক বন্ধ থাকায় কেউ ভেতরে ঢুকতে পারেনি। প্রাচীরের ওপর দিয়ে তারা দেখতে পান বাড়িরে ভেতর রক্তাক্ত ছুরি নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করছে শান্ত। এক সময় বাড়ির ভেতর থেকে শান্তর বড় ভাই সাগর দৌড় দিয়ে থানার ভেতর দিয়ে পালিয়ে যায়। পঞ্চগড় থানা ক্যাম্পাসে বসবাসরত পুলিশ কনস্টেবল মাহবুবের স্ত্রী নাসিমা বাড়ির পেছন দরজা দিয়ে ঢুকতে গেলে তার মাথায় ছুরি দিয়ে আঘাত করলে তিনি মাটিতে পড়ে যান। খবর পেয়ে পঞ্চগড় থানা থেকে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাকে ধরতে গেলে তাদেরকেও এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে শান্ত। এতে পঞ্চগড় থানার এসআই আরিফ ও এএসআই এনামুল জখম হয়। এরপর পুলিশ তাকে আটক করে। পরে বাড়ির বারান্দায় মিজানুর রহমান ও প্রাচীরের ভেতরে একটি গর্ত থেকে নাসিমা খাতুনকে আশংকাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ ঘাতক শান্তকে আটক করে তাদের হেফাজতে পঞ্চগড় হাসপাতালে ভর্তি করেছে।
প্রতিবেশী নুর ইসলাম রতন জানান, তাদের বাড়িতে সব সময় ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকত। বেলা আড়াইটার দিকে প্রচন্ড চিৎকার শুনে বাড়ি থেকে বের হই। দরজা বন্ধ থাকায় বাড়ির ভেতর যেতে পারিনি। পুলিশ এসে পিছনের দরজা দিয়ে ভেতরে ঢোকার পর আমিও ভেতরে যাই। সম্ভবত আগে সে তার মাকে কুপিয়ে ও জবাই করে শরীর টেনে একটি গর্তে ফেলে দেয়। পরে ঘরের ভেতর অবস্থানরত তার বাবাকেও কোপায়। তিনি বলেন, তাদের হাসপাতালে নেয়ার সময়ও তারা মারা যাননি। হাসপাতালে নেয়ার পথেই তারা মারা যান। পঞ্চগড় থানার ওসি মমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শান্ত একজন উম্মাদ ও মাদকসেবী। দীর্ঘদিন ধরে মাদক সেবন করায় সে অপ্রকৃতিস্থ হয়ে গেছে। রোববার দুপুরের খাবারের পর কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সে ধারালো ছুরি দিয়ে মা ও বাবাকে হত্যা করে। খবর পেয়ে আমি থানা থেকে পুলিশ পাঠাই। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে আটক করতে গেলে তার ছুরিকাঘাতে আমার একজন এসআই ও একজন এএসআই আহত হয়েছে। তাদের পঞ্চগড় সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আমার এক কনস্টেবলের স্ত্রীর মাথায় কোপানো হয়েছে। তাকেও আশংকাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ