• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন |

হাজি সেলিমের পক্ষে মন্ত্রিসভায় তদবির

Selim-1427097313সিসি ডেস্ক: ঢাকা সিটি করপোরেশন দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী হিসেবে হাজি সেলিমকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার জন্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তদবির করেছেন একাধিক মন্ত্রী। তারা বলেছেন, প্রার্থী হিসেবে হাজি সেলিম মন্দ নয়।

সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক সূত্র জানায়, মন্ত্রিসভার বৈঠকে আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়। বিশেষ করে ঢাকা সিটি করপোরেশন দক্ষিণের মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মত দেন একাধিক মন্ত্রী। তবে অধিকাংশ মন্ত্রী সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হাজি সেলিমকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। তবে বৈঠকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রার্থী নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।

হাজি সেলিমকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, নৌপরিবহণমন্ত্রী শাজাহান খান ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তারা ঢাকা সিটি করপোরেশন দক্ষিণ যাতে হাতছাড়া না হয় সেই জন্য হাজি সেলিমকে মনোনয়ন দেওয়ার অনুরোধ করেন।

তবে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী কোনো সিদ্ধান্ত জানাননি। ঢাকা এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিল পদে দলীয় প্রার্থীদের চূড়ান্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভার বৈঠকে বলেন, সব দল (বিএনপিসহ) আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নেবে।

এর আগে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে কাজ শুরু করার জন্য সাঈদ খোকন ও আনিসুল হককে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই দিন রাতে সাঈদ খোকন ও আনিসুল হক প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে দেখা করেন। সে সময় প্রধানমন্ত্রী তাদেরকে সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়ে লড়াই করার জন্য নির্দেশ দেন। এর পরই প্রচারণায় নেমে পড়েন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ খোকন এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে এফবিসিসিআইয়ের প্রাক্তন সভাপতি আনিসুল হক। এরপর থেকে ঢাকার সিটি করপোরেশন দক্ষিণের মেয়র  প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন পেতে জোর তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হাজি সেলিম।

এদিকে ঋণখেলাপি ইস্যুতে দলীয় সমর্থন হারাতে পারেন সাঈদ খোকন। গত ২০ মার্চ গণভবনে আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে শেখ হাসিনার বৈঠকে এ রকম সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে দলীয় সূত্র নিশ্চিত করে।

তফসিল ঘোষণার পর  দলীয় সভানেত্রীর একান্ত ইচ্ছায় বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে ইসির তফসিল ঘোষণার পর দলীয় সমর্থিত প্রার্থীদের পরোক্ষ সমর্থন ও বিভিন্ন কৌশল নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়।

বৈঠকে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী হিসেবে পূর্বেই দলীয় সমর্থন পেয়েছিলেন সাঈদ খোকন। কিন্তু পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে ডিসিসির প্রথম মেয়র মোহাম্মদ হানিফের পুত্র সাঈদ খোকনের ঋণখেলাপি নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ঘটনাটি আগেই প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রীর নজরে আনেন নেতারা। তিনি বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের চিন্তা-ভাবনা করার পরামর্শ দেন।

গত ২০ মার্চ  বৈঠকে সাঈদ খোকনের ঋণখেলাপির বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। তার সঙ্গে সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতারাও বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন।

এতে দলীয় সভানেত্রী বলেন, ‘সে (সাঈদ খোকন) ঋণখেলাপি হলে সেটা তো দল দায়িত্ব নেবে না। এর মধ্যে সে যদি ঋণখেলাপির বিষয়ে সমাধান করতে না পারে তাহলে দল বিকল্প সিদ্ধান্ত নেবে।’

গত ১৮ মার্চ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। এর এক সপ্তাহ আগে গত বৃহস্পতিবার সাঈদ খোকনের নামে প্রিমিয়ার ব্যাংকের নালিশ নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আসে। ইসিতে পাঠানো চিঠিতে প্রিমিয়ার ব্যাংক অভিযোগ করে, তারা সাঈদ খোকনের কাছে ১১৮ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে।

২০১১ সালের ২৯ নভেম্বর জাতীয় সংসদে আইন পাসের মাধ্যমে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে দুই ভাগ করা হয়। অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সর্বশেষ নির্বাচন হয় ২০০২ সালের এপ্রিলে। এরপর টানা প্রায় ১০ বছর মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন বিএনপির নেতা সাদেক হোসেন খোকা। ২০০৭ সালের ১৫ মে মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও তিনি দীর্ঘদিন মেয়রের দায়িত্বে ছিলেন। পরে সরকার সিটি করপোরেশনে প্রশাসক নিয়োগ করে। এরপর ২০১২ সালের ২৯ এপ্রিল নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করে ২৪ মে নির্বাচনের দিন ধার্য করে নির্বাচন কমিশন। ভোটার তালিকা ও সীমানা নির্ধারণ নিয়ে জটিলতা থাকায় নির্বাচনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন আদালত। এরপর ২০১৩ সালের ১৩ মে আদালত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেন। একই বছরের অক্টোবর-নভেম্বরের মধ্যে আবারও নির্বাচনের ঘোষণা দেয় কমিশন। কিন্তু ঢাকার সুলতানগঞ্জ ইউনিয়ন ঢাকা সিটি করপোরেশনের অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় আবারও দেখা দেয় জটিলতা। সম্প্রতি স্থানীয় সরকার বিভাগ নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে জটিলতা নিরসন করে।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ