• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩২ অপরাহ্ন |

পাঁচ সেকেন্ডে নিভবে পেট্রলবোমার আগুন

petrol-1423504745সিসি ডেস্ক: বাসে পেট্রলবোমা মানে মুহূর্তেই দাউ-দাউ আগুন। প্রাণহানিসহ দগ্ধ-ক্ষত অবস্থা, বিভীষিকাময় যন্ত্রণা। এ যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে আসছে অগ্নিনির্বাপক তরল গ্যাস ‘ফাইরেসকিউ’। এর মাধ্যমে পেট্রলবোমা বা আগুন নেভানো যাবে মাত্র ৫ সেকেন্ডে; দেয়া যাবে পেট্রলবোমা হামলাকারীকে সমুচিত জবাব। বাস, প্রাইভেট কার বা যেখানেই পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করা হোক না কেন, আগুন ধরলেই ব্যবহার হবে এ ‘ফাইরেসকিউ’। ছোট্ট প্লাস্টিকের বোতল (ফাইরেসকিউ) ছুড়ে মারলে মাত্র ৫ সেকেন্ডে আগুন সম্পূর্ণ নিভে যাবে। কাঠ, তেল ও বৈদ্যুতিক আগুন নেভাতেও সক্ষম হাতে বহনযোগ্য এ বোতলজাত গ্যাসীয় তরল।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় এরই মধ্যে পরীক্ষামূলকভাবে আগুন নেভাতে এটি নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। পরীক্ষায় সফলতাও মিলেছে। জাপান থেকে আমদানি করা তরল গ্যাস বোতলজাতসহ আনুষঙ্গিক সংরক্ষণ পদ্ধতি ঠিক করছে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেড (বিএমটিএফ)। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলেই বিএমটিএফ এটি বাজারজাত করবে।

রাজধানীর তেজগাঁওয়ের পুরনো বিমানবন্দর এলাকার জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে চলা সমরাস্ত্র প্রদর্শনীতে মঙ্গলবার অগ্নিনির্বাপক ‘ফাইরেসকিউ’ দেখা গেছে। এটি ব্যবহার করে কীভাবে ৫ সেকেন্ডে আগুন নেভানো যায়, তার ভিডিও ফুটেজ দেখানো হয়। বিএমটিএফের নির্দিষ্ট স্টলে দর্শনার্থীর জন্য এটি উন্মুক্ত রাখা হয়েছে। এটিকে ‘হ্যান্ডহেল্ড ফায়ার রেসকিউ’ বলা হয়।

স্টলটির দেখাশোনায় নিয়োজিত মেজর মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান জানান, বর্তমানে যেভাবে যানবাহনে পেট্রলবোমা মেরে আগুন ধরিয়ে জানমালের ক্ষতি করা হচ্ছে, সে বিষয় চিন্তা করেই হাতে বহনযোগ্য এ অগ্নিনির্বাপক তরল পদার্থ ব্যবহারের পরিকল্পনা করা হয়েছে। এটি মূলত তিন ধরনের আগুনে (কাঠ, তেল ও বৈদ্যুতিক) সমানভাবে কার্যকর। তরল গ্যাস ৫০০ থেকে ১০০০ মিলিমিটার সাইজেই প্লাস্টিকের মসৃণ বোতলে সংরক্ষণ করা হচ্ছে- বোতলটি আগুনে নিক্ষেপমাত্রই যাতে গলে বা ফেটে বের যায় এবং তরল গ্যাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ও প্রভাব বিস্তার করে।

সংশ্লিষ্টরা আরও জানান, বিএমটিএফে এটি নিয়ে গবেষণা ও পরীক্ষামূলক কাজ চলছে। জাপানি প্রযুক্তিতে উৎপন্ন তরল গ্যাস সংরক্ষণ ও ব্যবহারের নানা বিষয় নিয়ে কাজ চলছে। এটি বাজারজাত করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এরইমধ্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে এ নিয়ে প্রজেক্ট ফাইল করা হয়েছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলেই এটি বাজারজাত করা হবে।

জানা গেছে, একেকটি বোতলের দাম নির্ধারণ করা হতে পারে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা। দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখার উদ্দেশ্য, যাতে গাড়িতে বা বাসাবাড়িতে একটি করে ‘ফাইরেসকিউ’ বোতল সংরক্ষণ করা হয়। এতে আগুনের ক্ষতি থেকে তাৎক্ষণিক রক্ষা পাওয়া যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ