• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন |

সিটি নির্বাচন দেশবাসীর সঙ্গে তামাশা

BNP-20ঢাকা: আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন দিয়ে যে তিনটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন ঘোষণা করা হয়েছে তা গোটা দেশবাসীর ইচ্ছার সঙ্গে তামাশা ছাড়া আর কিছুই নয় বলে মন্তব্য করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট।

বুধবার সন্ধ্যায় বিএনপির মুখপাত্র যুগ্ম-মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে আসন্ন সিটি নির্বাচন নিয়ে এমন মন্তব্য করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সারাদেশে বিএনপি এবং অন্যান্য বিরোধী দলগুলোর সিনিয়র নেতা, নাগরিক ও সাংবাদিক সমাজের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিবর্গসহ অগনিত বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীকে কারাগারের অন্ধপ্রকোষ্ঠে বন্দী রাখা হয়েছে। তাদেরকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় কারারুদ্ধ করে রাখা হয়েছে অথচ আইনী বিধি-বিধান পরোয়ায় না এনে তাদেরকে জামিনও দেয়া হচ্ছে না। জামিন পাওয়া একজন অভিযুক্ত ব্যক্তির সাংবিধানিক অধিকার, কিন্তু সেই অধিকারটুকুও আজ ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছা-অনিচ্ছার উপর নির্ভরশীল।’

বলা হয়, ‘সকল দল, নগরবাসী তথা দেশবাসীর কাছে সিটি করপোরেশন নির্বাচন গ্রহণযোগ্য করার মতো ইচ্ছা নির্বাচন কমিশনের থাকলে তড়িঘড়ি করে পুলিশ মহাপরিদর্শকের পরামর্শে এপ্রিল মাসেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের তফসিল ঘোষণা করা হতো না। নির্বাচন কমিশন ঠুটো জগন্নাথ বলেই আজ কোনো প্রার্থীই নির্বাচনী আচরণবিধি তোয়াক্কা করছে না। নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পূর্বে কোনো নাগরিক সমাজ, বুদ্ধিজীবী বা সুশীল সমাজের সঙ্গে পরামর্শ করা হয়নি। সরকারের নীল নক্শা অনুযায়ী তফসিল ঘোষণা করে ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনের মতো স্থানীয় সরকার ব্যবস্থায় আরেকটি প্রতারণামূলক নির্বাচনী নাটক মঞ্চস্থ করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন তথা সরকার।’

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘২০ দলীয় জোট আশা করে-সরকার অবিলম্বে বিএনপি ও বিরোধী দলগুলোর শীর্ষ নেতাসহ সকল নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত রাজনৈতিক প্রতিহিংসাপ্রসূত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করবে এবং কারান্তরীণ নেতাকর্মীদের মুক্তি দেবে। প্রত্যাশা অনুযায়ী সরকার দেশকে সংঘাত ও হানাহানির করাল গ্রাস থেকে মুক্ত করে গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিতের মাধ্যমে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে যথাযথ উদ্যোগ নেবে। আর তাতে নেতিবাচক মনোভাব দেখালে সরকারকে এরজন্য চরম মূল্য দিতে হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত চলমান অবরোধ কর্মসূচির পাশাপাশি আগামীতে দেশবাসীকে সাথে নিয়ে আরো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করতে ২০ দলীয় জোট দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। ২০ দলীয় জোট আশা করে সরকারের শুভচেতনা ও শুভবুদ্ধির উদয় হবে।’

বিএনপির অন্যতম যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের প্রসঙ্গ তুলে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘তাকে অপহরণের পনের দিন অতিবাহিত হয়েছে অথচ এখনো পর্যন্ত তার সন্ধান দিতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে। অবশ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ গতকাল বলেছেন- খুব শীগগিরই সালাহ উদ্দিন আহমেদ অপহরণ রহস্য উন্মোচিত হবে। ২০ দলীয় জোট মনে করে হানিফ সাহেবের বক্তব্যে বোঝা যায় যে, সালাহ উদ্দিন আহমেদ সরকারের গোচরেই আছেন। দেশবাসী সুস্থ অবস্থায় সালাহ উদ্দিন আহমেদকে জনসমক্ষে হাজির করার জন্য অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে। যে মাসে দেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয়েছিল সেই মাসে বিএনপিসহ বিরোধী সব দলের গুমকৃত নেতাকর্মীদের মুক্তি দিয়ে হতাশাগ্রস্ত ও উৎকণ্ঠিত পরিবারগুলোকে সরকার আশার আলো দেখাবে এটাই সবার প্রত্যাশা।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ