• সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:৩০ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :

স্বর্ণ পদক পেল সাংবাদিক সোহেল

photo sohel-26-3-15চিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি : মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক রিপোটিংয়ে বিশেষ অবদান রাখায় এবার জেলা পর্যায়ে নিবার্চিত হওয়ায় স্বর্ণ পদক পেলেন দাবানল ও মানবজমিন চিলমারী প্রতিনিধি সাংবাদিক সাওরাত হোসেন সোহেল। বৃহস্পতিবার ২৬ মার্চ উলিপুর স্টেডিয়াম মাঠে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উৎযাপন অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড উলিপুর এর সৌজন্যে তাকে এই পদক প্রদান করা হয়। এছাড়াও বিটিভি ও যুগান্তর জেলা প্রতিনিধি আহসান হাবিব নিলু (স্বর্ণ পদক), মানবজমিন উলিপুর প্রতিনিধি আবু সাঈদ সরকার, রাজারহাট প্রতিনিধি রফিকুল ইসলামকে (সম্মাননা পদক), কুড়িগ্রাম খবর প্রতিনিধি ও চিলমারী প্রেস ক্লাব সভাপতি নজরুল ইসলাম সাবু এবং আজকালের খবর চিলমারী প্রতিনিধি ও সাপ্তাহিক যুগের খবর প্রকাশক সম্পাদক এস এম নুরুল আমিন সরকারকে (সম্মাননা স্বারক) প্রদান করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন উলিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ হায়দার আলী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ড. মোহাম্মদ মনছুর আলম খান, উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জমির উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এমডি ফয়জার রহমান, আওয়ামী লীগ উলিপুর সভাপতি মতি শিউলী, সাধারন সম্পাদক গোলাম হোসেন মন্টু, জেলা ইউনিট কমান্ডের কার্যকরী সদস্য ও চিলমারী মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আঃ রহিম প্রমুখ।

ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে অষ্টমীর স্নান
আজ ২৭ মার্চ/১৫, ১৩ চৈত্র বৃহস্পতি বার কুড়িগ্রামের চিলমীর ব্রহ্মপুত্র নদের তীড়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অষ্টমী স্নান। অষ্টমী ¯œানকে ঘিরে আজ ব্রহ্মপুত্র পাড়ে ঘটবে লাখো মানুষের ঢল।
ব্রহ্মপুত্র স্নান উপলক্ষ্যে গত তিন দিন পূর্ব থেকেই চিলমারীতে শুরু হয়েছে সাজ সাজ রব। দুর দুরান্ত থেকে ক্ষুদে ব্যবসায়ীরা চলে এসেছে চিলমারীতে। অষ্টমীর চরের বালুর উপর তৈরী হয়েছে ষ্টল। গত দুদিন থেকে দুর দুরান্ত থেকে আসা হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা আত্মীয় স্বজন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ¯œানের জন্য অবস্থান করছেন। গতকাল থেকে আসা শুরু করেছে বাইস কোপ, সার্কাস, নানান ধরণের খেলনার দোকান। বাঁশের বাঁশিওয়ালা, ফেরীওয়ালা। ৩ থেকে ৪ কিঃ মিঃ দীর্ঘ নদীর উপকুল ধরে বসেছে হরেক রকমের দোকান পাট। মাটির তৈরী হাড়ি, থালা, বদনা থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় পারিবারিক জিনিস পত্র তো আছেই। তার পাশাপাশি উঠেছে বিভিন্ন দেব-দেবীর মুর্তি, পুতুল, বাঘ, আম, নৌকা ইত্যাদি। এগুলোও মাটির তৈরী। ১৯৪৫ সালে মনতলা নামক নদীর উপকুল ঘেঁসে এই মেলাটি হতো। এ সময় এখানে ছিল চিলমারীর প্রাচীনতম নৌ বন্দর। চিলমারীর অষ্টমীর মেলাতে স্নান করার জন্য যারা আসতেন তাদের বিরাট অংশটি আসতো আসামের বিভিন্ন এলাকা থেকে। আসতো প্রচুর জটাধারী সাধু সন্ন্যাসীরা। প্রতি বছর নদী ভাঙ্গনের ফলে বিভিন্ন বছর ¯œানের স্থল পরির্বনের সাথে সাথে দিন দিন এর যৌলস কমে যাচ্ছে। কয়েক বছর ধরে রমনা ঘাটে উদযাপিত হলেও তা আবারো নদী ভাঙ্গনে বিলীন হওয়ায় এবারে অষ্টমীর মেলা ও স্নান উদযাপিত হবে পুটমারী এলাকায়। অপরদিকে অষ্টমীর মেলা ও স্নান উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

চিলমারীতে মহান স্বাধীনতা উদ্যাপন
কুড়িগ্রামের চিলমারীতে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস যথাযোগ্য ভাবে উদ্যাপিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষ্যে জাতীয় কর্মসূচীর সাথে সমন্বয় রেখে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহন করা হয়। রাত ১২টা ১ মিনিটে ৩১বার তোপধ্বনির মধ্যদিয়ে শহীদ মিনারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এর পরপরই বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠণ শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করে। সকাল ৯টায় থানাহাট এ ইউ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আনুষ্ঠানিক পতাকা উত্তোলন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীর বিক্রম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তবিবুর রহমান ও চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইন চার্জ রেজাউল করিম। পরে পুলিশ ,আনসার ও ভিডিপি, স্কুল কলেজ, মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীদের অংশ গ্রহণে কুচকাওয়াজ প্রদর্শন, মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও আলোচানা সভা। এছাড়াও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, জাতির শান্তি ও অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা, প্রীতি ফুটবল ম্যাচ এবং সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ