• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন |

৫৪ শিশু ধর্ষণ করেও দায়মুক্ত মার্কিন সেনারা

0617আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ২০০৩ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত মাত্র চার বছরে কমপক্ষে ৫৪ শিশুর ওপর যৌন নিপীড়ন চালিয়েছে কলম্বিয়ায় অবস্থানরত মার্কিন সেনা ও সেনাবাহিনীর ঠিকাদাররা। তবে মার্কিন ও কলম্বিয়া সরকারের মধ্যে সম্পাদিত দায়মুক্তি চুক্তির বলে অভিযুক্ত এসব সেনার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থাই নিতে পারবে না কলম্বিয়া সরকার।

সম্প্রতি কলম্বিয়া সরকার ও বামপন্থি বিদ্রোহী ফার্ক যোদ্ধাদের সংঘর্ষের কারণ অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত কমিটি এক প্রতিবেদেনে এ তথ্য জানিয়েছে। ৫০ বছর ধরে চলা এই সংঘর্ষের বলি হয়েছে দেশটির ৭০ লাখেরও বেশি মানুষ। সম্প্রতি কলম্বিয়া সরকার ও ফার্ক বিদ্রোহীরা নিজেদের মধ্যে শান্তি চুক্তির উদ্যোগ নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে দীর্ঘ মেয়াদি গৃহযুদ্ধের কারণ ও এর জন্য কারা দায়ী সেটি অনুসন্ধানের জন্য সরকার ও ফার্ক বিদ্রোহীরা যৌথভাবে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

আটশ পৃষ্ঠার এ তদন্ত প্রতিবেদনটি তৈরীতে সাহায্য করেছেন রাজধানী বোগোতার পেডাগোজিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রেনান ভেগা। তিনি জানান, মাদাকপাচারকারী ও বামপন্থি ফার্ক গেরিলা যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মার্কিন সেনাদের সরাসরি সাহায্য করেছে কলম্বিয়া সরকার।

মার্কিন সেনাদের যৌন নির্যাতনের বিষয়ে তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘যৌন সহিংসতার প্রচুর তথ্য রয়েছে। পূর্ণ দায়মুক্তির জন্য ধন্যবাদ দ্বিপাক্ষিক চুক্তিকে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের কূটনৈতিক দায়মুক্তিকে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কলম্বিয়ার মেলগার শহরেই ৫৩ শিশুকে যৌন নির্যাতন করেছে সেখানে অবস্থানরত সেনা ও সেনা ঠিকাদাররা। শুধু তাই নয়, তারা এসব নির্যাতনের চিত্র ভিডিওতে ধারণ করে পর্ণোগ্রাফি সামগ্রী হিসেবে বিক্রিও করেছে।

কলম্বিয়ার শীর্ষ দৈনিক এল তিয়েম্প জানিয়েছে, যৌন নির্যাতনের শিকার এসব শিশুদের এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য করা হতো এবং তারা যাতে ফিরে না আসে এজন্য ওই শিশুদের পরিবারের সদস্যদের মৃত্যুর হুমকি দেয়া হতো।

মেলগার শহরের মতো তোলিমাইদা বিমানঘাটিতে অবস্থিত সেনাক্যাম্পেও শিশুদের ওপর যৌননিপীড়ন চালানো হতো।

যৌননিপীড়নের এসব ঘটনার মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত ছিল ২০০৭ সালে ১২ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের ঘটনা। ওই শিশুকে সেনাক্যাম্পে নিয়ে জোর করে মাদক সেবন করিয়ে মার্কিন সার্জেন্ট মাইকেল জে কোয়েন ও সেনা ঠিকাদার সিজার রুইজ পালাক্রমে ধর্ষণ করতেন। পরবর্তীতে তারা দুজনই কলম্বিয়া ছেড়ে পালিয়ে যান। তবে এর আগে শিশুটিসহ তার ছোট বোন ও মাকে মেলগার শহর ছাড়তে বাধ্য করা হয়। এরপরও ধর্ষকদের অনুগতরা তাদেরকে প্রাননাশের হুমকি দিত অব্যাহতভাবে। আর দায়মুক্তির বদৌলতে এসব কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারও করেনি কলম্বিয়া সরকার।

২০০৯ সালে বোগোতাতে মার্কিন দূতাবাস মায়ামির দৈনিক এল নুয়েভো হেরাল্ডকে জানিয়েছিল, কোয়েন ও রুইজের ওই মামলা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং মার্কিন সরকার এ মামলা পুনর্জীবনে জন্য কোন রুলও জারি করেনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ