• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:২৮ পূর্বাহ্ন |

কাহারোলে ইরি-বোরো ক্ষেতে অরনেট প্রয়োগে জমির ফসল ধ্বংসের পথে!

ornntকাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের কাহারোলে ইরি-বোরো ধানে আগাছা দমনে এসএএম এগ্রো কোম্পানীর “অরনেট” ব্যবহার করে মুকুন্দপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর, বিক্রমপুর, প্রসাদপুর ও ডহন্ডা গ্রামের ৯০ জন কৃষকের প্রায় ১৪৫.২৫ একর জমির বোরো ধানের চারা ধ্বংসের পথে। কৃষকেরা কোন কুল কিনারা না পেয়ে, কোম্পানির লোকের কাছে, যোগাযোগ করে ধর্না দিয়েও বিফল হয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। কৃষকেরা তাদের কাঙ্খিত ফসল রক্ষায় কাহারোল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাসহ উপজেলা প্রশাসনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের চেষ্টায় ছুটো-ছুটি করছে। শেষ পর্যন্ত ২৭ মার্চ/১৫ ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকেরা নিরুপায় হয়ে ফসল রক্ষার জন্য আগাছা দমনে এস,এ,এম কোম্পানির কীটনাশক “অরনেট-২০ ডব্লিউ ডি জি” এর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে কাহারোল উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাহারোল, উপজেলা কৃষি অফিসার কাহারোল, প্রেস ক্লাব কাহারোল, দিনাজপুকে ৮৩ জন কৃষক স্বাক্ষরিত এক লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২৭ মার্চ/১৫ বিকাল ৪টায় কাহারোল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মামুনুর রশিদ চৌধুরী, সাংবাদিক প্রতিনিধিগন, ইউপি সদস্যসহ অনেক সচেতন মহল ঘটনা স্থলে পরিদর্শনে যান। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, এবং কৃষকের অভিযোগে জানা গেছে, এস,এ,এম এগ্রো কোম্পানীর আগাছা দমনের কীটনাশক “অরনেট” ব্যবহার করে ধানের এই বিশাল ক্ষতির স্বীকার হয়েছে। কৃষকরা জানিয়েছে, কাহারোল উপজেলার ৩নং মুকুন্দপুর ইউনিয়নের অধিবাসী বিক্রমপুর নামক স্থানে মেসার্স বুলু ট্রেডার্সের
মোস্তাফিজুর রহমান বুলুর কীটনাশকের দোকান থেকে এই আগাছা দমনের মাসখানেক আগে অরনেট কীটনাশ ক্রয় করে জমিতে প্রয়োগ করে কৃষকরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, প্রায় ১৪৫.২৫ একর ধানী জমির রোপা বোরো মারাত্মক ভাবে ক্ষতির স্বীকার হয়েছে। ধানের চারার রং হলুদে বিবর্ণ হয়ে চারা মারা যেতে শুরু করেছে। ধান রোপনের প্রায় ৫০ দিন অতিবাহিত হলেও রোপা ধানের চেহারার উন্নতির লক্ষন দেখা যাচ্ছে না। ধারণা করা হচ্ছে, কৃষকদের বোরো ধানের আশানুরুপ উৎপাদনতো দূরের কথা, প্রতি একরে ১০ মণ ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা লক্ষ্য করা যায় না। এ ঘটনা কৃষকরা তাদের পুজি হারিয়ে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। এব্যাপারে এস,এ,এম এগ্রো কোম্পানীর কাহারোল উপজেলা মার্কেটিং অফিসার নিরঞ্জন ঠাকুর এর সাথে ০১৭৮৭৯৬৯৩৯৩ তার মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি জানান, উপজেলা মোহাম্মদপুর, দেবীপুর, প্রসাদপুর, ডহন্ডা গ্রামের কৃষকদের বোরো ধানে এস,এ,এম এগ্রো কোম্পানীর আগাছা দমনে কীটনাশক অরনেট ব্যবহার করে কৃষকদের ক্ষতির কথা জেনেছেন, এবং সাংবাদিকদের কাছে তিনি তা স্বীকার করেছেন। তিনি আরো জানিয়েছেন তবে কৃষকরা এ কীটনাশক ব্যবহার করে কেন এত বড় ধরনের ক্ষতির স্বীকার হলো এব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, বছর খানেক আগে গাজীপুরে এই কোম্পানীর আবিষ্কার হয় । এ আগাছা দমনের কীটনাশকের মান সম্পর্কে তার সাথে কথা বলা হলে, তিনি জানিয়েছেন কীটনাশকটির গুনগত মান সম্পর্কে তার নিজের প্রশ্ন রয়েছে। বিষয়টি চাকুরী হারানোর ভয়ে উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে জানাতে সাহস পায়নি বলে জানিয়েছেন তিনি। এব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষি বিদ মোঃ আখেরুল রহমান জানিয়েছে, এই কোম্পানীর আগাছা দমনের কীটনাশকটি সম্পর্কে সারা বাংলাদেশেরই কৃষকদের অভিযোগ রয়েছে। তিনি আরো জানিয়েছেন, এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট বিভাগের ডিডিকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অবগত করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ