• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৮:১৮ অপরাহ্ন |

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অষ্টমীর স্নান সম্পন্ন

chilmari photo-27-3-15হাবিবুর রহমান, চিলমারী (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলার ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে শক্রবার থেকে ব্রহ্মপুত্র নদে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পবিত্র অষ্টমী স্নান শুরু হয়েছিল। লাথো পূণ্যার্থীর পদম্ভে মূখরিত হয়ে উঠেছে চিলমারীর ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা। হে মহা ভাগ ব্রহ্মপুত্র, হে লৌহিত্য, তুমি আমার পাপ হরণ করো। মন্ত্র উচ্চারণ করে পূণ্যার্থীরা কৃপা চান ব্রহ্মার। স্নান উৎসবে মেতে উঠেন পূণ্যার্থীরা। দুই দিন আগে থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার পূণ্যার্থীরা ভিড় জমান চিলমারী বন্দর ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে সড়ক পথে বাস, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কার, নচিমনে, অটোতে ও মোটরগাড়ি করে। নদী পথে ট্রলার ও নৌকাযোগে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দলে দলে পূণ্যার্থীরা সমবেত হন চিলমারী বন্দর ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে। উৎসব কমিটির নেতারা বলেন প্রতি বছরের মত এবারও ভারতসহ ও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বিপুলসংখ্যক পূণ্যার্থী যোগ দিয়েছেন স্নান উৎসবে তারা আরো জানান তবে স্নান উৎসব যদি বুধবার পরে তখন ভারত ও নেপাল থেকে বেশি সংক্ষক হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা আসেন। চিলমারী ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে অষ্টমীর স্নান শুরু হয়েছে শুক্রবার ভোর ৫.৩২ মিনিট ৮ সেকেন্ড থেকে। শেষ হয় সেইদিন সন্ধায়। কোন নির্দিষ্ট ঘাট না থাকায় উমুক্ত স্নানঘাটের মাধ্যমে পূণ্যার্থীরা স্নানপর্ব সম্পন্ন করেছেন। স্নান উৎসবকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতি বার থেকে শুরু হয়েছে দুইদিন ব্যাপী লোকজ মেলা। এবারে ৩ দিন আগে থেকে সনাতন ধর্ম সভা অনুষ্ঠিত হয় সবুজ পাড়া মন্দির মাঠে। স্নান উপলক্ষে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হলেও বিভিন্ন স্থানে গাড়ি চালকদের নিকট থেকে জোর পূর্বক চাঁদা আদার করে কতিপয় চাঁদাবাজ। চিলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তবিবুর রহমান জানান পূণ্যার্থীদের কল্যাণে সরকারী ও বেসরকারী ভাবে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। গোসলের পর নদীর কিনারায় ঘাটের পাশেই নারী দের কাপড় বদলানোর জন্য বুধের ব্যাবস্থা করা হয়েছিল। টিউবওয়েল স্থাপন করা হয়েছে। প্রায় ৩০টি ধর্মীয় সামাজিক ও সেবা মূলক সংঘঠন ক্যাম্প খোলা হয়েছে। এসব ক্যাম্প থেকে পূণ্যার্থীদের রান্না করা খাবার ও চিকিৎসা সুবিধা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও নিয়ন্ত্রণকক্ষ খোলা হয়েছে। নিরাপত্তার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ, র‌্যাব, আনসার ও ভিডিপির পর্যাপ্ত সদস্য মোতায়েন করাসহ ঝুঁকিপূর্ণ স্থানগুলোতে পুলিশী পাহাড়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। স্নান উৎসব উপলক্ষে উপজেলা চেয়াম্যান মোঃ শওকত আলী সরকার (বীর বিক্রম), উপজেলা নিবার্হী অফিসার, স্নান উৎসব কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন। কথা হয় স্নান দিতে আসা কিঞ চন্দ্র, শ্রী লতা রানীসহ অনেকের সাথে তারা অভিযোগ করে বলেন গোছলের জন্য নিদিষ্ট কোন ঘাট না থাকায় এবং গোছলের পর মহিলাদের কাপড় বদলানোর জন্য তেমন বুদের ব্যবস্থা না থাকায় দিন দিন মহিলা পূনার্থীরা কমে যাচ্ছে। বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ, চিলমারী উপজেলা সভাপতি জানান দেশ-বিদেশের প্রায় তিন লাখ পূণ্যার্থী স্নান উৎসবে যোগ দিয়েছে বলে তারাঁ আশা করছেন তিনি আরো জানান এবারে দেশের পরিস্থিতি ভালো না থাকায় গতবারের চেয়ে পূণ্যার্থীর সংখ্যা অনেক কম হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ