• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৫১ অপরাহ্ন |

অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আরও ৩৩ জনের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে

ictসিসি নিউজ : ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জাড়িত থাকার অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় আরও ২১টি মামলায় ৩৩ জনের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সিনিয়র সমন্বয়ক সানাউল হক এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ১৭টি মামলায় ১৮ আসামির বিচারকাজ সম্পন্ন হয়ে রায় হয়েছে। আলাদা দু’টি ট্রাইব্যুনালে বর্তমানে ৬টি মামলায় ১১ জনের বিরুদ্ধে বিচার চলছে। এছাড়াও একটি মামলায় ৮ আসামির বিরুদ্ধে গত ২৫ মার্চ পূর্ণাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। ২টি মামলার তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন ট্রাইব্যুনালে দাখিল করা হয়েছে।
সানাউল হক বলেন, ইতোমধ্যে ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার জন্য নিয়োগ বিধি ও অর্গানোগ্রাম করা হয়েছে। ভৌত অবকাঠামো ও পরিবহনসহ বিভিন্ন লজিষ্টিক সাপোর্ট নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে তদন্ত সংস্থার জন্য আরো কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলে এর কার্যক্রম বেগবান হবে। তিনি বলেন, তদন্ত সংস্থায় ৩০ জন তদন্ত কর্মকর্তা থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে রয়েছেন ১০ জন। এরাই বিভিন্ন মামলার তদন্ত সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন এবং আরো মামলা তদন্তের দায়িত্বে রয়েছেন।
সরকারের বিভিন্ন সংস্থা থেকে দক্ষদের তদন্ত সংস্থায় নিয়োগ দেয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করে সানাউল হক বলেন, এতে করে সংস্থা অনেক শক্তিশালী হবে এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মামলার সুষ্ঠু তদন্তে বিচারপ্রার্থীদের ন্যায়বিচার লাভে সহায়ক হবে।
মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামিদের গ্রেফতারের বিষয়ে সানাউল হক বলেন, মাদকদ্রব্য, কাষ্টমস ও দুর্নীতি সংক্রান্ত মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্তকালে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে পারেন। আন্তজার্তিক অপরাধ মামলায়ও এ সুযোগ সৃষ্টি করে দিলে অনেক ইতিবাচক ফল বয়ে আনত। তিনি বলেন, এখানে মামলায় ট্রাইব্যুনালে আবেদন করে গ্রেফতারের আদেশ নিতে হয়। এতে আসামি আগে থেকে তার বিষয়ে নেয়া পদক্ষেপ জেনে যায় এবং আসামি বিদেশে পালিয়ে যায় অথবা আত্মগোপনে চলে যায়। ফলে পলাতক আসামিদের বিচারে বিচারপ্রার্থীরা পুরোপুরো সন্তুষ্ট হতে পারে না।
সানাউল হক বলেন, তদন্ত সংস্থাও অভিযুক্তকে গ্রেফতারের ক্ষমতা চেয়ে লিখিতভাবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছে। আইনশংখলা বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালনকারী কর্মকর্তারা তদন্ত সংস্থার দায়িত্বে রয়েছেন। অভিযুক্তকে গ্রেফতারের ক্ষমতা দেয়া হলে সংশ্লিষ্ট আইনশংখলা বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করেই তদন্ত সংস্থা কাজ করবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ