• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন |

তাসকিনের বাজি নিউজিল্যান্ড

taskin-ahmed-1খেলাধুলা ডেস্ক: ভারতের কাছে কোয়ার্টার ফাইনালে হেরে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ মিশন শেষ হয়েছিল। এরপর দেশে ফিরে ছুটিতে আছে মাশরাফি বাহিনী। রোববার মেলবোর্নে অনুষ্ঠিত হবে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড ফাইনাল ম্যাচ। সেই সঙ্গে পর্দা নামবে একাদশ বিশ্বকাপের পর্দাও। তবে তার আগে অনুষ্ঠেয় এই ফাইনাল ম্যাচটি বাংলাদেশী ক্রিকেটারদের হৃদয় স্পর্শ করেছে ভিন্নভাবে।

যদিও এবারকার আসরের ফাইনালে নেই এশিয়ার কোন দেশ। এর আগের ১০টি বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারত,পাকিস্তান, শ্রীলংকা খেলেছে মোট সাতবার। বিশেষ করে ১৯৯২ থেকে ২০১১ পর্যন্ত প্রতিটি আসরের ফাইনালে প্রতিনিধিত্ব করেছে এশিয়ার দলগুলো। আর এই আসরের ফাইনালে খেলছে দুই স্বাগতিক দেশ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড। ফাইনালের আগ পর্যন্ত অপরাজেয় রয়েছে নিউজিল্যান্ড।

কিন্তু ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে বেশি ফেভারিট হেসেবে দেখছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। এমনকি ফাইনালে কিউইদের বিপক্ষে অসিদের জয়ের পাল্লা ভারী বলেই মনে করছেন সাব্বির রুম্মান, সৌম্য সরকার,আরাফাত সানি ও মুমিনুল হক সৌরভরা। ব্যতিক্রম শুধু ডানহাতি পেসার তাসকিন আহমেদ। তার দৃষ্টিতে এই টুর্নামেন্টের শুরু থেকে ভালো ক্রিকেট খেলে আসছে নিউজিল্যান্ড। তাই শেষটাও তাদের ভালো হবে। দেখে নেয়া যাক কে কি বলছে।

Sabber-১১সাব্বির রহমান রুম্মান : দুটো দলই পুরো টুর্মামেন্টে ভালো খেলে ফাইনালে উঠেছে। যদিও নিউজিল্যান্ড তাদের কন্ডিশনে সবগুলো ম্যাচ খেলেছে। কিন্তু ফাইনাল ম্যাচটি মেলবোর্নে হওয়ায় ব্রেন্ডন ম্যাককালামের দল হয়তো একটু বিপদে পড়লেও পরতে পারে। কারণ তারা খেলেছে ছোট মাঠে। আর সেখানে মেলবোর্নের ক্রিকেট গ্রাউন্ড (এমসিজি) অনেক বড়। যেটি নিউজিল্যান্ডের খেলোয়াড়দের জন্য কিছুটা হলেও সমস্যা হবে। কারণ এমসিজি একেতো ব্যাটিং সহায়ক উইকেট। তাই নিউজিল্যান্ডের বোলাররা হয়তো এখানে অতোটা ভালো করতে পারবে না। তাছাড়া হোম কন্ডিশনের সুবিধাটাও পাবে মাইকেল ক্লার্কের দল। সেই সঙ্গে বিগ ম্যাচের টেম্পারমেন্টেও এগিয়ে থাকবে অস্ট্রেলিয়া।

Somye-১১সৌম্য সরকার : অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ফাইনাল ম্যাচ বলেই স্বাগতিকরা এগিয়ে থাকবে। শুধুমাত্র হোম কন্ডিশনের সুবিধা বলে নয়। এমনিতে অস্ট্রেলিয়ার বোলিং ও ব্যাটিং অনেক ভালো। যদিও নিউজিল্যান্ডের বোলাররা তাদের কন্ডিশনে অনেক ভালো বল করেছে। কিন্ত মেলবোর্নের ব্যাটিং-সহায়ক উইকেটে কিউই পেসারদের ভালো বোলিং করাটাই এখন অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। তাছাড়া নিউজিল্যান্ড প্রথমবারের মতো ফাইনাল খেলছে। যা ওদের জন্য এক ধরনের বাড়তি চাপ তৈরী করতে পারে।

তাসকিন আহমেদ : বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত একমাত্র অপরাজিত দলই হচ্ছে নিউজিল্যান্ড। তাই ফাইনালে কিউইদের এগিয়ে রাখছি। বিশেষ করে এই টুর্নামেন্টে ট্রেন্ট বোল্ট ও টিম সাউদি খুবই ভালো বল করে আসছে। হয়তো ফাইনালেও সেই ধারা ধরে রাখার চেষ্টা করবে। আর প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠেই হয়তো বাজিমাত করতে পারে। তাই নিউজিল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হলে আমি খুবই খুশি হব। যদিও অস্ট্রেলিয়ার বোলিং-ব্যাটিং সাইড ভালো। তবে নিউজিল্যান্ড এই টুর্নামেন্টর শুরু থেকেই ভালো ক্রিকেট খেলছে। তাছাড়া প্রথম পর্বের ম্যাচে ওরা অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছে। তাই এদিকটাতে কিছুটা হলেও কিউইরা এগিয়ে থাকবে। তাই এবারকার বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হলে অনেক খুশি হব।

Momenul-১১মুমিনুল হক সৌরভ: অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা যে লেভেলের ক্রিকেটই খেলুক না কেন, তারা শিরোপা জেতার লক্ষ্যেই খেলে থাকে। আর ফাইনালে উঠলে ওরা আরও বিধ্বংসী হয়ে ওঠে। আগে অস্ট্রেলিয়া ছয় ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলতে। কিন্তু এখন ওরা আট ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলে। তারপর ফাইনাল ম্যাচটি অস্ট্রেলিয়ার মাঠে হওয়ায় হোম অ্যাডভান্টেজের বাড়তি সুবিধা পাবে মাইকেল ক্লার্কের দল। আর প্রথম পর্বে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে যাওয়ায় ফাইনালে তার প্রতিশোধ নেয়ারও চেষ্টা করবে অস্ট্রেলিয়া। পুরো টুর্নামেন্টে নিউজিল্যান্ড দল তাদের মাটিতে খেলেছে। কিন্তু ফাইনাল ম্যাচটা ভিন্ন কন্ডিশনে হওয়ায় এটা কিউইদের কিছুটা হলেও পিছিয়ে রাখবে।

Arafat-Sunny-১১আরাফাত সানি: নিউজিল্যান্ড এর আগে কখনও বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলেনি। যেটা তাদেরকে একাদশ আসরের ফাইনালে পিছিয়ে রাখবে বলেই আমি মনে করছি। বিগ ম্যাচের টেম্পারমেন্ট না থাকায় ফাইনালে ম্যাককালামের দলের ওপর এর বাজে প্রভাব এসে পড়লেও পড়তে পারে। আবার তারা ভালোও খেলতে পারে। তবে অস্ট্রেলিয়া এর আগে অনেকগুলো আসরের ফাইনালে খেলেছে। তাই তারা কিছুটা হলেও এগিয়ে থাকবে। যদিও গ্রুপ পর্বে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছিল কিউইরা। কিন্তু সেটি ছিল ওদের কন্ডিশনে। আর ফাইনাল ম্যাচটি নিউজিল্যান্ডকে খেলতে হবে মেলবোর্নের মাঠে। যেটি তাদের জন্য সম্পূর্ণ ভিন্ন কন্ডিশন। তবে রোববার যে দল টস জিতবে তারাই আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ