• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন |

নির্বাচনে যাওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করলেন মাহবুব

Mahbubঢাকা: গত ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল সরকার একতরফা নির্বাচন করেছে বলে অভিযোগ করে দলটি। এ কারণে এ সরকারে অধীনে নির্বাচন না করার সিদ্ধান্তে অনড় ছিল। এ কারণে ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ অনিশ্চিত ছিল।

তবে এখন নেতাদের বক্তব্যে স্পষ্ট যে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। ইতিমধ্যে তাদের তিন মেয়র পদপ্রার্থী মনোনয়নপত্র জমাও দিয়েছেন।

বিএনপির এই অবস্থান পরিবর্তনের ব্যাখ্যা দিলেন দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সুপ্রিমকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সদ্য নির্বাচিত সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন।

তিনি বলেছেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলে বিদেশিদের কাছে সরকার বলতো, দেখুন আমরা আগেই বলেছিলাম বিএনপি নির্বাচন চায় না ওরা জঙ্গিবাদী।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনকে ভয় পায় না। সিটি নির্বাচনেই তা দেখা যাবে।’

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে কনফারেন্স লাউঞ্জে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৫ উপলক্ষে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ।

সরকারকে উদ্দেশ করে খন্দকার মাহবুব বলেন, ‘সিটি নির্বাচনে ৫ জানুয়ারির পুনরাবৃত্তি করে সরকার যদি আবারও সেই খেলায় মেতে ওঠে তাহলে এই খেলাই হবে শেষ খেলা। অনেক খেলা হয়েছে, আশা করি, আর সেই খেলা খেলতে যাবেন না।’

সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠু হতে হবে। কোনো প্রকার হয়রানি করলে বা সভা সমাবেশ, মিছিলে বাধা দিলে পরিণতি যা হবার তাই হবে বলেও সরকারকে হুঁশিয়ার করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘সালাহ উদ্দিন আত্মগোপনই করুক বা তাকে কেউ অপহরণ করুক তাকে উদ্ধারের দায়িত্ব আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। অন্যথায় বুঝা যাবে দেশের কোন মানুষেরই নিরাপত্তা নাই।’

‘সিটি নির্বাচনই এ সরকারের জন্য শেষ সুযোগ’ মন্তব্য করে সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক রুহুল আমিন গাজী বলেন, ‘৫ জানুয়ারি তামাশার নির্বাচন করেছেন, চলমান সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সেই রকম তামাশা করবেন না। তা তাহলে জনগন এবার আর সহ্য করবে না।’

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- ড্যাবের মহাসচিব ড. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, ইঞ্জিনিয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (এ্যাব ) সভাপতি আক্তার হোসেন, সহ-সভাপতি রিয়াজুল ইসলাম রিজু, প্রেসক্লাবের যুগ্ম-সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দলের মহাসচিব রফিকুল ইসলাম, ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ