• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:০২ অপরাহ্ন |

পর্দা নামল ক্রিকেট মহাযজ্ঞের

downloadখেলাধুলা ডেস্ক: ক্রিকেট বিশ্বের ১৪টি দেশ নিয়ে ১৪ ফেব্রুয়ারি মাঠে গড়িয়েছিল বিশ্বকাপের একাদশতম আসর। নিউজিল্যান্ড-শ্রীলঙ্কার ম্যাচের মধ্য দিয়ে পর্দা ওঠে ২০১৫ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের। আর ২৯ মার্চ নিউজিল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া ফাইনাল ম্যাচের মধ্য দিয়ে পর্দা নামে এই ক্রিকেট মহাযজ্ঞের। নিউজিল্যান্ডকে ৭ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে রেকর্ড পঞ্চমবারের মতো শিরোপা ঘরে তোলে অস্ট্রেলিয়া।

জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-ধনী-গরিব-উঁচু-নিচু সব বিভেদ ভুলে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে বসেছিল এক মিলনমেলা। একদলের হাসি ও অন্য দলের কান্নার মধ্য দিয়ে ভাঙল সেই মিলনমেলা। অবশ্য কান্না শুরু হয়েছিল গ্রুপ পর্ব থেকেই। ১৪টি দলের ছয়টি (ইংল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, স্কটল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও আফগানিস্তান) বিদায় নিয়েছিল গ্রুপ পর্ব থেকে। এরপর কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নেয় আরো চারটি দল (শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তান)। সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারত। সবশেষ অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৭ উইকেটে হেরে রানার্স-আপ হয় নিউজিল্যান্ড।

নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার ১৩টি ভেন্যুতে এবারের এই বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়। এই বিশ্বকাপে বেশ কিছু বিশ্ব-রেকর্ড হয়েছে। ব্যাট হাতে নিউজিল্যান্ডের মার্টিন গাপটিল অপরাজিত ২৩৭ রান করে বিশ্বকাপের ইতিহাসে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের রেকর্ড গড়েন। তার আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২১৫ রান করে বিশ্বকাপে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানোর রেকর্ড গড়েছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল।

শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা টানা চার ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে গড়েন নতুন এক বিশ্ব-রেকর্ড। বাংলাদেশের মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও জিম্বাবুয়ের ব্রেন্ডন টেলর টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করে ১৯৯৬ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার মার্ক ওয়াহর করা রেকর্ড স্পর্শ করেন। এদিকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৪১৭ রান তুলে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপে দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়ে। চলতি বিশ্বকাপে ছিল রানের ফল্গুধারা। শুধু তা-ই নয়, গ্রুপ পর্বেই হয়েছে রেকর্ড ৩৫টি সেঞ্চুরি। কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালে হয় আরো তিন সেঞ্চুরি। সর্বমোট রেকর্ড ৩৮টি সেঞ্চুরি হয়েছে। যা যেকোনো বিশ্বকাপে সর্বাধিক সেঞ্চুরি। এ রকম আরো বেশ কয়েকটি রেকর্ড দেখেছে ক্রিকেট-বিশ্ব।

শুধু রেকর্ড আর রানের ফল্গুধারা নয়, ২০১৫ ক্রিকেট বিশ্বকাপ দেখেছে বিতর্কও। যেমন :

১ . গ্রুপ-পর্বে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচে জেমস অ্যান্ডারসনকে রান আউটের সিদ্ধান্ত দেওয়ার পরপরই খেলার সমাপ্তি ঘটে। এর আগে জেমস টেলরকে এলবিডব্লিউ দেওয়া হলে সিদ্ধান্ত তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে চলে যায় ও ব্যাটসম্যানের অনুকূলে আসে। ফলে টেলর অপরাজিত থাকেন। আইসিসি পরবর্তীতে দুঃখপ্রকাশ করে জানায় যে, সিদ্ধান্ত পর্যালোচনা পদ্ধতির ধারা ৩.৬-এ এর পরিশিষ্ট ৬-এর নিয়ম অনুযায়ী সেটি ডেড বল ছিল। ফলে অ্যান্ডারসনকে ভুলবশত রান-আউট দেওয়া  হয়েছে।

২ . গ্রুপ-পর্বে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার খেলার ২৫তম ওভারে ওমর আকমলের বিপক্ষে ক্যাচের আবেদন জানায় ভারতীয় ক্রিকেটাররা। অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক মহেন্দ্র সিং ধোনির মতে বলটি ব্যাটের কানায় লেগেছিল। কিন্তু ইংরেজ আম্পায়ার রিচার্ড কেটেলবরা তাকে অপরাজিত ঘোষণা করেন। পরে টিভি আম্পায়ার অস্ট্রেলীয় স্টিভ ডেভিস বেশ কয়েকবার ডিআরএস পদ্ধতি ব্যবহার করে আকমলকে আউট ঘোষণা করেন।

৩ . গ্রুপ পর্বে আয়ারল্যান্ড-জিম্বাবুয়ের মধ্যকার খেলায় শন উইলিয়ামস বাউন্ডারি হাঁকাতে গেলে জন মুনির হাতে ধরা পড়েন ও আউট হন। কিন্তু রিপ্লেতে দেখা যায় যে মুনির বাঁ পা বাউন্ডারির সীমানা স্পর্শ করেছে। ফলে জিম্বাবুয়ের কোচ ডেভ হোয়াটমোর এ সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ করেন।

৪ . বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে রুবেল হোসেনের ফুল টস বলে রোহিত শর্মা স্কয়ার লেগে ক্যাচ দেন। কিন্তু আম্পায়ারের ধারণা ছিল যে, বলটি বেশ উঁচুতে উঠেছিল; ফলে নো বল সংকেত দেওয়ায় ব্যাটসম্যান অপরাজিত থাকেন। রিপ্লেতে দেখা যায় যে বলটি  কোমর উচ্চতায় ছিল এবং বৈধ বল হিসেবে বিবেচিত ছিল।

এ ছাড়া সুরেশ রায়নার একটি আউটও আম্পায়াররা নাকচ করে দেন। সবশেষ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ছক্কা হাঁকালে সেটা ধরেন শেখর ধাওয়ান। কিন্তু তার পা বাউন্ডারি লাইন স্পর্শ করে। বিষয়টি রিপ্লেতে না দেখেই আম্পায়ার মাহমুদউল্লাহকে আউট দেন।

ম্যাচ শেষে এ ধরনের আম্পায়ারিংয়ের ব্যাপক সমালোচনা করেন বাংলাদেশ থেকে নির্বাচিত আইসিসি সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি জানান, আম্পায়াররা নির্দিষ্ট এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতেই মাঠে নেমেছিলেন। পরে আইসিসি মুস্তফা কামালের মন্তব্যের সমালোচনা করে বিষয়টিকে ‘ভিত্তিহীন’ বলে উড়িয়ে দেয়।

এক নজরে ২০১৫ বিশ্বকাপ
আয়োজক : অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড
তারিখ : ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৯ মার্চ ২০১৫
ফরম্যাট : রাউন্ড রবিন ও নক আউট
মোট অংশগ্রহণকারী দল : ১৪টি
মোট ম্যাচ : ৪৯
চ্যাম্পিয়ন : অস্ট্রেলিয়া
রানার্স-আপ : নিউজিল্যান্ড
সর্বাধিক রান : মার্টিন গাপটিল (৫৪৭ রান)
সর্বাধিক উইকেট : মিচেল স্টার্ক ও ট্রেন্ট বোল্ট (২২ উইকেট)
ফাইনালে ম্যাচ-সেরা : জেমস ফকনার
টুর্নামেন্ট সেরা : মিচেল স্টার্ক


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ