• সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৩ অপরাহ্ন |

‘বাজে আম্পায়ারিং’ স্বীকার করলো আইসিসি!

kamal-111সিসি ডেস্ক: ১৯ মার্চ ক্রিকেটের কালো দিন। বিষয়টা প্রকারান্তরে স্বীকার করে নিচ্ছে আইসিসি! বাংলাদেশের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতকে অনৈতিক সুবিধা দিতে বাজে আম্পায়ারিংয়ের বিষয়টা আইসিসি স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট আ হ ম  মোস্তফা কামাল।

মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ার বনাম নিউজিল্যান্ডের ফাইনালের আগেরদিন আইসিসির একটি অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে বিষয়টি উত্থাপন করেন তিনি। সেখানেই বিষয়টি স্বীকার করেছেন আইসিসি চেয়ারম্যান এন শ্রীনিবাসন। রোববার বিশ্বকাপের ফাইনাল শেষে ট্রফি দেওয়া না দেওয়া নিয়ে বাংলাদেশি মিডিয়ার কাছে ক্ষোভ ঝাড়েন আইসিসি প্রেসিডেন্ট।

সেখানেই বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে বলতে গিয়ে আ হ ম মোস্তফা কামাল, কোয়ার্টার ফাইনালে বাজে আম্পায়ারিংয়ের বিষয় নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আইসিসির অনানুষ্ঠানিক যে বৈঠক হয়েছে, সেখানে আমি বাজে আম্পায়ারিংয়ের বিষয়টা তুলে ধরেছি। বিষয়টা স্বীকার করেছেন এন শ্রীনিবাসনও। তিনি বলেছেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে বাজে আম্পায়ারিং হয়েছে। তবে, এটা তো খেলারই অংশ। আম্পায়ারদের সিদ্ধান্ত মেনেই খেলা চালিয়ে যেতে হয়।’

কলকাতার দি টেলিগ্রাফ পত্রিকার রিপোর্ট অনুসারে, ‘আইসিসির অনানুষ্ঠানিক ওই বৈঠকে মোস্তফা কামাল বাজে আম্পায়ারিংই নয় শুধু, আইসিসির অবস্থান সম্পর্কেও আলোচনার প্রস্তাব করেন। তিনি নিজের ব্যাক্তিগত মত হিসেবে (আইসিসি প্রেসিডেন্ট হিসেবে নয়) তার আগের দেওয়া বক্তব্যের সমর্থনে কথা বলে যান। কিন্তু এ বিষয়ে তার কথায় কোন কর্ণপাতই করেননি শ্রীনিবাসন। তবে বোঝাই যাচ্ছে, আগামী মাসে দুবাইতে আইসিসির পূর্ণাঙ্গ বৈঠকে বিষয়টা নিয়ে আবারও সরগরম করে তুলবেন আইসিসি প্রেসিডেন্ট।

রোববার ফাইনালের পর মিডিয়ার সঙ্গে আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, ‘তাদের বিরুদ্ধে কথা বলেছি বলে আমাদের ট্রফি দিতে দেওয়া হলো না। এটা আইসিসি সংবিধানের সুস্পষ্ট লঙ্ঘণ। এটা অন্যায়। এই অন্যায় কোনভাবে মেনে নেওয়া যায় না। আমি বাজে আম্পায়ারিংয়ের বিপক্ষে কথা বলেছি বলে। আমি বলেছিলাম, আইসিসি ইন্ডিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল হয়ে গেছে। এই আইসিসির প্রেসিডেন্ট আমি থাকতে পারি না। প্রয়োজনে পদত্যাগ করার কথা বলেছি।’

এ বিষয়ে শ্রীনিবাসনের সঙ্গে তর্কাতর্কি হয়েছে বলেও জানিয়েছেন মোস্তফা কামাল। তিনি বলেন, ‘শ্রীনিবাসন আমাকে বলে কিভাবে আইসিসিকে ইন্ডিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল বলছি। তখন, আমি বলেছি, শুধু আমি কেন পুরো অডিয়েন্সই (গ্যালারি) আইসিসি মানে ইন্ডিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল বলছিল। তখন তিমি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন, আমি শুনেছি কি না কিংবা দেখেছি কি না। তখন আমি বলেছি, গ্যালারিতেই তো দেখা গেছে শত শত প্ল্যাকার্ডে লেখা, আইসিসি মানে ইন্ডিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল।’

মোস্তফা কামাল আরও বলেন, ‘ওই দিন সবাই দেখেছে মাঠে তারা কী করেছে। মাঠে বাজে আম্পায়ারিং তো ছিলই। সঙ্গে জায়ান্ট স্ক্রিনে কেন জিতেগা ভাই জিতেগা, ইন্ডিয়া  জিতেগা- বাজানো হচ্ছিল। খেলা তো হচ্ছিল দু’দেশের। আমি এই বিষয়টা সাথে সাথে ডেভ রিচার্ডসনকে জানিয়েছি। তাকে বলেছি, এটা বন্ধ করতে। সে মার্কেটিং কোম্পানিকে ডেকে এই স্লোগান প্রচার বন্ধ করতে নির্দেশ দেয়। তবুও সেটা বন্ধ হয়নি। অথচ, সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের দিন প্রচার করা হয়েছে- জিতেগা ভাই জিতেগা, ক্রিকেট জিতেগা। সেখানে তো ইন্ডিয়া জিতেগা প্রদর্শণ করার সাহস পায়নি!’

মোস্তফা কামাল বলেন, ‘আমি বাংলাদেশের ক্রিকেটের পক্ষে, ক্রিকেট বিকশিত করার পক্ষে কথা বলেছি। তারা চাচ্ছে, ক্রিকেটকে কলঙ্তিত করতে। তারা কে কী করেছে, তা আমি দেশে ফিরে জাতির কাছে পরিস্কার করবো।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ