• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন |

মনজুর আয় বেড়েছে তিনগুণ, সম্পদ দ্বিগুণ

Monjuসিসি ডেস্ক: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী ও সাবেক মেয়র মনজুর আলমের আয় বেড়েছে তিনগুণের বেশী। এছাড়া সম্পদ বেড়েছে দ্বিগুণ। গত পাঁচ বছরে তার আয় ও সম্পদ বাড়ার পাশাপাশি বেড়েছে ব্যাংক ঋণও।

২০১০ সালে চসিক নির্বাচনের সময় জমা দেওয়া হলফনামা ও বর্তমান হলফনামা দেখে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, ২০১০ সালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মনজুর আলম ব্যাংক ঋণ দেখিয়েছেন প্রায় ১৬৩ কোটি টাকা। এবার তা বেড়ে হয়েছে ৩৬০ কোটি ৫১ লাখ টাকা।

তিনি গত নির্বাচনে বার্ষিক আয় ৫৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকা দেখালেও এবার তার আয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৯২ লাখ ৭৫ হাজার ৯১৬ কোটি টাকা।

গত ২০১০ সালের চসিক নির্বাচনে হলফনামায় তিনি উল্লেখ করেন, তার ১৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকার অস্থাবর রয়েছে। বর্তমানে তার পরিমাণ বেড়ে হয়েছে ৩০ কোটি ১৮ লাখ ৮৩ হাজার ১২৮ টাকা।

গত নির্বাচনের সময় তার ৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকার স্থাবর সম্পত্তি ছিল। পাঁচ বছর পর তা বেড়ে হয়েছে ৬ কোটি ৭৬ লাখ ৩৪ হাজার ৮১৮ টাকা।

বিভিন্ন খাত হতে সাবেক মেয়র মনজুর আলম ও তাঁর নির্ভরশীলদের বাৎসরিক আয়ের উৎসে কৃষিখাত ৫০ হাজার টাকা, বাড়ি/এপার্টমেন্ট/দোকান বা অন্যান্য ভাড়া ৩৫লাখ ৭হাজার ৬টাকা, ব্যবসা তিন লক্ষ ২০ হাজার টাকা, শেয়ার, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংক আমানত সাত লক্ষ ১৭ হাজার ৮৫১ টাকা, পেশায় শিক্ষকতা, চিকিৎসা, আইন, পরামর্শক থেকে লভ্যাংশ আয় এক কোটি ১৪ লক্ষ ৮৯হাজার ৫১৫টাকা, চাকুরী মেয়র সম্মানী আট লক্ষ ৪৯হাজার, অন্যান্য মূলধনী লাভ ১১ লক্ষ ৮৬ হাজার টাকা ও লীজ রেন্ট ১১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৫৪৪ টাকা। এছাড়াও নির্ভরশীল আয় রয়েছে বাড়ি/ এপার্টমেন্ট/দোকান বা অন্যান্য ভাড়া ১৭ লক্ষ ২৮ হাজার ৪৬১ টাকা, অন্যান্য সুদ আয় ৬০ হাজার ৬৭৭ টাকা।

নিজ নামে ও স্ত্রীর নামে বেশকিছু অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। স্থাবর সম্পদের মধ্যে নিজ নামে অকৃষি জমিতে ছয় কোটি ৫৮ লাখ ১৬ হাজার ৫৪৩টাকা (গৃহসহ), স্ত্রীর নামে কৃষি জমি চার লক্ষ ৮৪ হাজার ২০০ টাকা ও অকৃষি জমি এক কোটি ৭৯ লাখ ২৮ হাজার ৭১টাকা।

দায়দেনা রয়েছে চার কোটি ৭০ লক্ষ ছয় হাজার ১৯৮টাকা। এছাড়াও এককভাবে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড এক কোটি ২২ লাখ টাকা, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও পরিচালক হওয়ার সুবাধে ইউসিবিএল আগ্রাবাদ শাখায় ৭৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড আগ্রাবাদ শাখায় থেকে গোল্ডেন আয়রন ওয়াক্স লিমিটেড ১৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা, আলহাজ্ব মোস্তফা হাকিম হাউজিং এন্ড রিয়েল এস্টেট লিমিটেডের নামে ৩৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা, ব্যাংক আলফালাহ লিমিটেড আগ্রাবাদ শাখায় ৬৮ লাখ টাকা, মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড দেওয়ানহাট শাখায় ৭৪ লাখ টাকা, এ.বি ব্যাংক আগ্রাবাদ শাখায় দুই কোটি ৯৩ লাখ টাকা, এনসিসিবিএল আগ্রাবাদ শাখায় আলহাজ্ব মোস্তফা হাকিম সিমেন্ট ইন্ড্রাস্ট্রির নামে ৩৮ কোটি টাকা, গোল্ডেন আয়রন ওয়াক্স লিমিটেড ৭৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা, বিআইএফসি, আগ্রাবাদ শাখায় ১২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা, সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড আগ্রাবাদ শাখায় ৪৮ লাখ টাকা, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড আগ্রাবাদ শাখায় ৩৬ কোটি ৮১ লাখ টাকা, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড অলংকার শাখায় দুটি প্রতিষ্ঠানের নামে ৬২ কোটি ২১ লাখ টাকা ঋণ রয়েছে।

১৩টি প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করছেন শিল্পপতি মনজুর আলম। এগুলো হলো- গোল্ডেন আয়রন ওয়াক্স লিমিটেড, আলহাজ্ব মোস্তফা হাকিম হাউজিং এন্ড রিয়েল এস্টেট লিমিটেড, আলহাজ্ব মোস্তফা হাকিম সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, গোল্ডেন অক্সিজেন লিমিটেড, ঈগল স্টার টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড, মিউচ্যুয়াল জুট স্পীনার্স লিমিটেড, আলহাজ্ব মোস্তফা হাকিম ব্রিক্স লিমিটেড, গোল্ডেন বিক্স ওয়াক্স লিমিটেড, তাহের এন্ড কোম্পানী লিমিটেড, গোল্ডেন স্টীল এলয় ওয়ার্ক্স লিমিটেড, এইচ.এম. স্টীল এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, স্টান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড, আলহাজ্ব মোস্তফা হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ