• সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১০:১৫ অপরাহ্ন |

পশ্চিমবঙ্গে সোয়াইন ফ্লু: আতঙ্কিত সীমান্তবর্তী জেলার মানুষ

flu-1425160808সিসি নিউজ: প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ক্রমশই বেড়ে চলেছে সোয়াইন ফ্লু আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২ সপ্তাহে ভারতের এ রাজ্যে সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩১ জন। আর এ পর্যন্ত ওই রোগে মারা গেছে ৫০ জন। শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতায় সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে ৭ জন।
সূত্র মতে, সোয়াইন ফ্লু’র রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা পদ্ধতি কেমন হওয়া উচিত সে সম্পর্কে তথ্য ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য দপ্তর। এদিকে পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্যখাতের এ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে দেশের উত্তরের জনপদ নীলফামারীসহ সীমান্ত ঘেষা জেলাগুলোর সাধারণ মানুষদের মাঝে। সোয়াইন ফ্লু’র জীবাণুর প্রধান বাহক শুকুর। এ প্রাণী থেকে সাধারণের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে সোয়াইন ফ্লু’র ভাইরাস। মুসলিম প্রধান এ অঞ্চলে শুকুর পালিত না হলেও সমাজের বাঁশফোড় সম্প্রদায়সহ বেশ কয়েকটি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী সনাতন পদ্ধতিতে শুকুর পালন করে থাকে। যার ফলে এ রোগের জীবাণু সহজেই চারদিকে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, জেলার সৈয়দপুর ও ডোমার শহরে যত্রতত্র ঘুরে বেড়াচ্ছে শুকুরের দল। এমনকি বাজারের জনসমাগম এলাকাতেও এদের রয়েছে সরব উপস্থিতি। এ যেন দেখার কেউ নেই। এ ছাড়া সোয়াইন ফ্লু’তে আক্রান্তের জীবাণু এক মানব দেহ থেকে আরেক মানব দেহে সহজে ছড়িয়ে পড়ে। তবে এখন পর্যন্ত জেলার কোথাও সোয়ান ফ্লু আক্রান্ত রোগী পাওয়া না গেলেও আতঙ্কে রয়েছে সীমান্ত এ জেলার জনসাধারণ। মন্ত্রীসভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সোয়াইন ফ্লু সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির কর্মসূচি থাকলেও জেলার সরকারি স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে সোয়াইন ফ্লু সম্পর্কে কোন প্রচার প্রচারণা লক্ষ্য করা যায়নি।

সোয়াইন ফ্লু এবং আমাদের প্রস্তুতি

ভারতে মহামাররি আকার ধারণ করেছে এইচওয়ানএনওয়ান ভাইরাস (সোয়াইন ফ্লু)। দেশটিতে এ বছর সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার, আর এ ভাইরাসে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে নয় শতাধিক মানুষের। প্রতিবেশী দেশ হওয়ায় এ ভাইরাসের ঝুঁকিতে রয়েছে বাংলাদেশও।

এর আগে ২০১০ সালে সোয়াইন ফ্লুর সংক্রমণে ভারতে প্রায় ১ হাজার ৭০০  মানুষ মারা যায়। এবার দেশটির রাজ্যগুলির মধ্যে রাজস্থান আর গুজরাটের পরিস্থিতিই সব থেকে ভয়াবহ। বাংলাদেশসংলগ্ন পশ্চিমবঙ্গ এবং আসামেও দেখা দিয়েছে সোয়াইন ফ্লুর প্রাদুর্ভাব। তবে অন্য এলাকার তুলনায় তা কম। পশ্চিমবঙ্গে সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ জনের বেশি। আর এ পর্যন্ত মারা গেছে পাঁচজন।

গত বছরের মার্চে আফ্রিকার দেশগুলোতে দেখা দিয়েছিল ইবোলা ভাইরাস। এর মধ্যে লাইবেরিয়া, সিয়েরা লিওন এবং গিনিতেই এই ভাইরাস মহামারির আকারে ছড়িয়ে পড়েছিল। ওই বছরের অক্টোবর পর্যন্ত প্রাণঘাতী ইবোলা ভাইরাসে পশ্চিম আফ্রিকায় মৃতের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়ায়। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয় প্রায় ১৪ হাজার মানুষ।

ওই সময় এ ভাইরাস ঠেকাতে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও চট্টগ্রাম বন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয় সরকার। পশ্চিম আফ্রিকার গিনি, লাইবেরিয়া ও সিয়েরা লিওন থেকে যেসব যাত্রী ওই সময় এসেছেন, তাদের জন্য আলাদা অভিবাসন ডেস্ক খোলা এবং যাত্রীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। ইবোলা ভাইরাস ঠেকাতে সরকারের ওই সময়ের সকল পদক্ষেপ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় ছিল। এবারও সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার যথাযথ পদক্ষেপ নেবে, এমনটাই প্রত্যাশা দেশবাসীর।

তবে চিন্তার বিষয় হচ্ছে, ইবোলা ভাইরাস ছড়িয়েছিল পশ্চিম আফ্রিকার দেশগুলোতে, আর সোয়াইন ফ্লু দেখা দিয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারতে। অর্থাৎ ভৌগোলিক অবস্থার কারণে উভয় দেশের মানুষের যাতায়াতব্যবস্থা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই স্থলপথে। ভারতের সঙ্গে বিস্তৃত সীমান্ত এলাকা এবং অনেকগুলো বন্দর থাকায় বাংলাদেশ সোয়াইন ফ্লুর  বিষয়ে অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠছে, আমাদের সীমান্তবর্তী এলাকা এবং দুই দেশের প্রবেশদ্বারগুলোতে ঠিকমতো নজরদারি করা হচ্ছে কি না। স্থানীয়রাই বা ভাইরাসটি সম্পর্কে কতটা সচেতন।

যদিও এ বিষয়ে এরই মধ্যে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি  বলেছেন, ‘সোয়াইন ফ্লু নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। সোয়াইন ফ্লুসহ যেকোনো সংক্রামক রোগের বিস্তার মোকাবিলায় বাংলাদেশ প্রস্তুত। এ রোগের বিস্তার প্রতিরোধে ইতিমধ্যে সীমান্ত এলাকার জেলাগুলোসহ সকল জেলা পর্যায়ে মেডিক্যাল সার্ভিলেন্স টিম গঠন করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় ওষুধ মজুত রাখতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা বিমানবন্দরসহ বিভিন্ন বন্দরে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

তবে পরিতাপের বিষয় হচ্ছে, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও অনেক স্থানেই তা মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। স্থলবন্দর এবং সমুদ্রবন্দরগুলোতে নজরদারি চলছে ঢিলেঢালাভাবে। এ ছাড়া দেশের প্রবেশদ্বারগুলোর বেশিরভাগে বিদেশি যাত্রীর রোগ পরীক্ষা-নিরীক্ষার অবকাঠামোগত ব্যবস্থা একেবারেই দুর্বল। ফলে ভারতের সঙ্গে বিস্তৃত সীমান্ত এলাকা এবং একাধিক বন্দর থাকায় বাংলাদেশ সোয়াইন ফ্লুর  বিষয়ে অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায়ই  রয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘সোয়াইন ফ্লু’ মূলত শূকরের ইনফ্লুয়েঞ্জা, যা প্রধানত শূকরের দেহে দ্রুত বংশবিস্তার করতে পারে৷ আর এটি সাধারণত শূকরের দেহ থেকেই  মানুষের দেহে সংক্রমিত হয়। ছোঁয়াচে সোয়াইন ফ্লুর ভাইরাস মূলত জনসমাগমের স্থানে ভিড় করা মানুষের হাঁচি-কাশির মাধ্যমে ছড়িয়ে থাকে।

কেবল সর্দিকাশি ও জ্বর মানেই সোয়াইন ফ্লুর লক্ষণ নয়। এসবের পাশাপাশি- গলাব্যথা, হাঁচি, নাক দিয়ে পানি পড়া এবং উচ্চমাত্রার জ্বরের সঙ্গে শ্বাসকষ্ট থাকে এ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের। এটি ছোঁয়াচে রোগ হওয়ায় এ ভাইরাস থেকে বাঁচতে হলে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত এলাকার চেকপোস্টে রোগ নির্ণয়ের যন্ত্র থার্মাল স্ক্যানার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে হবে। চেকপোস্টগুলোতে সার্বক্ষণিক চিকিৎসক টিম কাজ করার ব্যবস্থা করতে হবে। সবচেয়ে বেশি জরুরি, জনসচেতনতা বাড়ানো। হাঁচি-কাশির সময় নাক-মুখ ঢেকে রুমাল, গামছা বা কাপড় অথবা টিস্যু পেপার দিয়ে মুখ ঢাকা এবং ব্যবহৃত রুমাল-গামছা-কাপড় ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলা, আর টিস্যু পেপার ডাস্টবিনে ফেলার জন্য জনগণকে সচেতন করতে হবে। প্রয়োজনে বিভিন্ন গণমাধ্যম, পাড়া-মহল্লায় মাইকিং করে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করতে হবে।

অন্যথায় এ ভাইরাস আমাদের দেশেও আতঙ্ক সৃষ্টি করবে। কোনোভাবেই সোয়াইন ফ্লুর  বিষয়ে অবহেলা করা যাবে না। তাই সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের উচিত হবে এ ভাইরাস প্রতিরোধে এখনই যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ