• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:৪৮ অপরাহ্ন |

আত্মহত্যা নিয়ে গবেষণা করেছিলেন ওই কো-পাইলট

andriano-1428029628আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ফ্রান্সের আলপস পর্বতমালায় গত সপ্তাহে আছড়ে ফেলা জার্মানউইংসের বিমানের কো-পাইলট আন্দ্রিয়াস লুবিৎজ আত্মহত্যার পদ্ধতি এবং ককপিটের দরজার নিরাপত্তা নিয়ে গবেষণা করেছিলেন। জার্মান কৌঁসুলিরা বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছেন।

কৌঁসুলিরা বলছেন, লুবিৎজের ডুসেলডোর্ফের বাড়ি থেকে পাওয়া ট্যাবলেট কম্পিউটারের ইন্টারনেট তথ্য ঘেঁটে তার ‘আত্মহত্যা করার পদ্ধতি’ এবং ‘ককপিটের দরজার নিরাপত্তা ব্যবস্থা’ নিয়ে গবেষণা করার আলামত পাওয়া গেছে। লুবিৎজ বিমানটি বিধ্বস্ত করার আগের সপ্তাহে ইন্টারনেট থেকে এ ব্যাপারে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করেন।

কৌঁসুলিদের মুখপাত্র রাল্ফ হেরেনব্রুয়েক বলেন, একদিকে লুবিৎজ ডাক্তারি চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে চিন্তিত ছিলেন, আর অন্যদিকে, তিনি কিভাবে আত্মহত্যা করা যায় এবং এজন্য কী কী পদ্ধতি অবলম্বন করা যায় তা নিয়েও ভেবেছিলেন। এছাড়াও ককপিটের দরজা এবং এর নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে তিনি অন্তত পুরো একদিন ইন্টারনেটে ঘাঁটাঘাঁটি করেছিলেন।

লুবিৎজ কী লিখে ইন্টারনেট সার্চ করেছিলেন কৌঁসুলিরা তা না জানালেও তার ব্যক্তিগত মেইল ও অন্যান্য লেখা থেকে উপসংহার টেনে তারা বলছেন, লুবিৎজ ১৬ থেকে ২৩ মার্চ পর্যন্ত ওই কাজ করেছেন।

ইতিমধ্যে বিধ্বস্ত বিমানটির দ্বিতীয় ফ্লাইট রেকর্ডার খুঁজে পাওয়া গেছে বলেও খবর পাওয়া গেছে। ২৪ মার্চে বিধ্বস্ত বিমানটির ১৫০ আরোহীর কেউ বেঁচে নেই। লুবিৎজ ইচ্ছা করেই বিমানটি ধ্বংস করেন বলে ধারণা তদন্তকারীদের।

২৪ মার্চ স্পেনের বার্সোলোনা থেকে জার্মানির ডুসেলডর্ফে যাওয়ার পথে ফ্রান্সের আলপস পর্বতে বিধ্বস্ত হয় জার্মানউইংসের বিমান এয়ারবাস এ৩২০।

 

তথ্যসূত্র : বিবিসি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ