• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন |

ওয়াশিকুরকে প্রথম হত্যার চেষ্টা হয়েছিল ২৪ মার্চ

Wayসিসি নিউজ: রাজধানীতে ব্লগার ওয়াশিকুর রহমানকে হত্যার জন্য গত ৩০ মার্চ ছিল দ্বিতীয় দফার চেষ্টা। প্রথম অভিযানে পাঁচজন বের হয়েছিলেন গত ২৪ মার্চ। কিন্তু যাত্রাবাড়ী এলাকায় পুলিশের হাতে একজন আটক এবং একজন পালিয়ে যাওয়ায় বাকি তিনজন ফিরে যান। পরে ‘বড় ভাইদের নির্দেশে’ ৩০ মার্চ প্রকাশ্যে ওই তিনজন তেজগাঁওয়ের দক্ষিণ বেগুনবাড়ীতে ওয়াশিকুরকে হত্যায় অংশ নেন।
ওয়াশিকুর হত্যা মামলায় গ্রেফতার হওয়া জিকরুল্লাহ ও আরিফুল ইসলাম রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের কর্মকর্তারা। এ দুজনকে আট দিনের রিমান্ডে নিয়েছে ডিবি। দুই দিনের জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্য থেকে ডিবির কর্মকর্তাদের ধারণা, হত্যাকারীরা আনসারুল্লাহ বাংলা টিম বা একই মতাদর্শের কোনো জঙ্গি সংগঠনের গোপন দলের (স্লিপার সেল) সদস্য।

ওয়াশিকুর হত্যার পর ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ জিকরুল্লাহ ও আরিফুলকে ধরে ফেলে।
জানা গেছে, গ্রেপ্তার দুজনসহ ওয়াশিকুর হত্যার পরিকল্পনা ও প্রশিক্ষণে জড়িত পাঁচজন থাকতেন যাত্রাবাড়ীর কাজলা এলাকার নয়ানগরের এক বাসায়। মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারের কাজলা প্রান্তে নেমে বাঁয়ের রাস্তা দিয়ে অনেকটা গেলে নয়ানগর। বাইরে থেকে এসে ওই পাঁচজনকে প্রশিক্ষণ দিতেন আরও একজন। ছদ্ম পরিচয়ে তাঁদের দেখাশোনা করতেন একজন।
গত বৃহস্পতিবার নয়ানগরে গিয়ে জানা যায়, তারা যে বাড়িতে থাকতেন, তার মালিক পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত একজন উপপরিদর্শক। পাঁচতলায় গত ১ জানুয়ারি থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত ছিল জঙ্গিরা। বাড়ির মালিকের স্ত্রী সেলিনা বেগম মূলত বাড়িটি দেখাশোনা করেন। তিনি বলেন, ১ জানুয়ারি থেকে ইকবাল পরিচয়ে এক যুবক প্রতি মাসে ছয় হাজার টাকা ভাড়ায় বাসাটি ঠিক করেন। তবে ইকবাল সেখানে থাকতেন না, মাঝে মাঝে আসতেন। ভাড়া নেওয়ার সময় ইকবাল বলেছিলেন, তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন। তার বন্ধুরা বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়েন, তাদের চারজন এই বাড়িতে থাকবেন। তবে বাসায় আসলে কতজন থাকতেন, তার খোঁজ নেননি।
বাড়ির মালিকের স্ত্রী বলেন, তাঁর ভাড়াটেরা খুব কমই বাসা থেকে বের হতেন। নিজেরাই রান্না করতেন। তোশক ও কয়েকটি থালাবাসন ছাড়া বাসায় কোনো আসবাব ছিল না। ফ্যান, টিভিও ছিল না। তবে বাসা ভাড়া নিয়মিত দিতেন। ২৫ মার্চ জিনিসপত্র নিয়ে তাঁরা বাসা ছেড়ে চলে যান। গণমাধ্যমে আরিফুল ও জিকরুল্লাহর ছবি দেখেও তাঁরা বুঝতে পারেননি যে এঁরাই তাঁদের সাবেক ভাড়াটে। পরে ডিবির কর্মকর্তারা একজনকে সঙ্গে করে নিয়ে এলে তাঁরা চিনতে পারেন।
পাঁচতলায় জঙ্গিদের ভাড়া নেওয়া দুই কক্ষের ওই বাসায় গিয়ে দেখা যায়, একটি ঘরে কিছু ছেঁড়া কাগজ পড়ে আছে। আর কিছু নেই। বাড়ির মালিক জানালেন, ওঁরা চলে যাওয়ার পর থেকে বাসাটি তালাবদ্ধ রয়েছে। এর মাঝে ডিবির সদস্যরা এসে এক দফা তল্লাশি করেছেন।
ভাড়াটেদের তথ্য, পরিচয়পত্র বা ছবি না রাখা সম্পর্কে জানতে চাইলে সেলিনা বেগম বলেন, এই এলাকায় বাসা ভাড়া কম। ভাড়াটেদের তথ্য রাখার চল নেই।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ওই চারজনকে এলাকায় তেমন একটা দেখা যেত না। জুমার নামাজের সময় তাঁদের দেখেছেন বলে একজন জানালেন। অন্যরা বলেছেন, তাঁরা দেখলেও খেয়াল করেননি।
রিমান্ডের দুই দিন: রিমান্ডে দুই দিনের জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য থেকে ডিবির কর্মকর্তারা বলেন, ওই বাড়িতে জঙ্গিরা পাঁচজন থাকতেন। এঁরা হলেন আরিফুল, জিকরুল্লাহ, আবু তাহের, সাইফুল ও আবরার। একজন ‘মাসুল’ বা তাঁদের ভাষায় দায়িত্বশীল তাঁদের বাসা ভাড়া করে দেওয়া থেকে দৈনন্দিন সব কাজ দেখাশোনা করতেন। ওই মাসুলই নিজেকে ইকবাল পরিচয় দিয়েছিলেন। এ ছাড়া বাসায় তাঁদের চাপাতি দিয়ে হত্যা এবং পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দিতে আরেক ‘বড় ভাই’ প্রায় প্রতিদিন আসতেন। মূলত এই সাতজনই প্রশিক্ষণ, পরিকল্পনা ও হত্যাকাণ্ড বাস্তবায়নের বিভিন্ন পর্বে অংশ নেন। আড়াই মাস ধরে প্রশিক্ষণ চললেও কাকে হত্যা করতে হবে, তা ঠিক হয় ১৫ মার্চ। ওই দিন প্রশিক্ষক বড় ভাই ও মাসুল একসঙ্গে একটি ল্যাপটপ নিয়ে তাঁদের বাসায় এসে ওয়াশিকুরের কিছু লেখা ওই পাঁচজনকে দেখান। প্রশিক্ষক জিজ্ঞেস করেন, এই ব্যক্তির কী শাস্তি হওয়া উচিত? তখন সবাই একযোগে বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ড’। প্রশিক্ষক জিজ্ঞেস করেন, কে তাঁকে হত্যা করতে চান? আবু তাহের সবার আগে দাঁড়ান এবং বেশি উৎসাহ দেখান। তখনই সিদ্ধান্ত হয়, খুন করবেন তাহের। পরে ৩০ মার্চ ওয়াশিকুরকে তাহেরই কুপিয়ে হত্যা করেন বলে গ্রেপ্তার দুজন পুলিশকে জানিয়েছেন। জিকরুল্লাহ একটি কোপ দিতে পেরেছেন। আরিফুল চাপাতি ব্যবহারের সুযোগ পাননি।
ডিবির কর্মকর্তারা জানান, জিজ্ঞাসাবাদে আরিফুল ও জিকরুল্লাহ বলেছেন, হত্যার অভিযান শুরু হয় ২৪ মার্চ। ওই দিন সকালে সেই প্রশিক্ষক ‘বড় ভাই’ এসে তাঁদের শপথ করান। সিদ্ধান্ত হয়, তাঁরা পাঁচজন হাতিরঝিলে একটি নির্ধারিত জায়গায় মিলিত হবেন। পরে তাঁরা একে একে নিজের জিনিসপত্র ব্যাগে নিয়ে বাসা খালি করে ‘অপারেশনে’ বের হন। পাঁচজনের কাছে ছিল পাঁচটি চাপাতি। সাইফুলের কাছে ছিল একটি চাপাতি ও ছয়টি গুলিভর্তি একটি পিস্তল। বাসা থেকে বের হওয়ার কিছুক্ষণ পর যাত্রাবাড়ী থানার পুলিশ সাইফুলকে ধরে ফেলে। কিছুটা দূরে থাকা আবরার সাইফুলকে ধরা পড়তে দেখে পালিয়ে যান। দুপুরের পর বাকি তিনজন হাতিরঝিলে পৌঁছালেও সাইফুল ও আবরার যোগ দেননি। বিপদের আঁচ পেয়ে তাঁরা আবারও যাত্রাবাড়ীর বাসায় যান। ফোন চালু করে বিপদের ‘বার্তা’ পান। কিছুটা দমে যান তাঁরা। ওই রাত বাসাতেই কাটান তাঁরা। পরে ‘বড় ভাইয়েরা’ নির্দেশ দেন, তিনজনকেই অপারেশন করতে হবে। ২৫ মার্চ তাঁরা বাসা থেকে বের হন। তিনজন বিভিন্ন জায়গায় থাকেন। ওয়াশিকুরের বাসার এলাকা, গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করেন। ৩০ মার্চ হত্যার অভিযান চালানো হয়।
অভিজিৎ হত্যা সম্পর্কে: ডিবির কর্মকর্তারা জানান, এই জঙ্গিদের যখন চাপাতির প্রশিক্ষণ চলছিল, এর মধ্যেই ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সামনে বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিৎ রায়কে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ প্রসঙ্গে কর্মকর্তারা আরিফুল ও জিকরুল্লাহর কাছে জানতে চাইলে তাঁরা বলেছেন, ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে তাঁরা ল্যাপটপে অনলাইন সংবাদমাধ্যমগুলো থেকে অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডের কথা জানতে পারেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রশিক্ষক বড় ভাই এলে তাঁরা অভিজিৎকে কে খুন করল তা জানতে চান। তখন বড় ভাই বলেন, এটা তাঁদের জানার বিষয় নয়। এসব বিষয়ে তাঁরা যেন আর আগ্রহ না দেখান। যে যে কাজের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত, তাঁকে শুধু সেই কাজ সম্পর্কীয় তথ্যই দেওয়া হবে।
এসব বিষয়ে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, গ্রেপ্তার দুজনের অন্য সহযোগীদের ও সমন্বয়ককে খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।
ডিবির কর্মকর্তারা বলছেন, এঁরা সব জায়গাতেই ছদ্মনাম, ভুয়া ঠিকানা ব্যবহার করেছেন। তাই সূত্র ধরে তাঁদের খুঁজে বের করা খুব কঠিন হয়ে উঠেছে। স্লিপার সেলগুলোর একটির সদস্যরা অন্য সেলের খবর জানেন না। তাঁদের সমন্বয়ককে ধরতে না পারলে সাংগঠনিক কাঠামো সম্পর্কে খুব বেশি তথ্য পাওয়া যাবে না।  ।প্রথম আলো ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ