• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৯:১০ অপরাহ্ন |

পাইলট তামান্নাকে উদ্ধারে কালক্ষেপণের অভিযোগ

image_122833_0সিসি নিউজ: স্বপ্ন ছিল পাইলট হওয়া। মাত্র একদিন আগে একা একা বিমান চালিয়ে সেই স্বপ্নও পূরণ হয়। সেদিনই পাইলটের স্বীকৃতি পেয়েছিলেন তামান্না রহমান হৃদি। সেই আনন্দে বুধবার সকালেই করেছিলেন উৎসব; বন্ধুদের মিষ্টি মুখ করিয়ে দোয়াও নিয়েছিলেন। আরও দক্ষতা অর্জনে দুপুরে আবারও পাখা মেলেছিলেন নীল আকাশে। কিন্তু মাত্র দুই মিনিটের মাথায় অবতরণ করতে গিয়ে রানওয়ের পাশে ছিটকে পড়ে তামান্নার বিমানটি।
অভিযোগ উঠেছে, বিমানে আগুন ধরে গেলেও দীর্ঘ সময় আসেনি বিমানবন্দরের উদ্ধারকারী কোনো দল। এ সময় স্থানীয়রা উদ্ধার করেন বিমানের প্রশিক্ষক লে. কর্নেল শাহেদ কামালকে। তারাই তার শরীরে লাগা আগুন নেভায়। কিন্তু বিমানের ভেতরে থেকে ‘বাঁচাও, বাঁচাও’ চিৎকার করে বারবার সাহায্য চাইলেও আগুনের তীব্রতায় কাছেই যেতেই পারেনি এলাকাবাসী। চোখের সামনেই পুড়ে কয়লা হয়ে যায় সম্ভাবনাময় পাইলট তামান্নার শরীর।

উদ্ধারকাজে অংশ নেয়া স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, বিমানবন্দরের দমকল বাহিনীর সদস্যরা দ্রুত উদ্ধারকাজ শুরু করলে হয়তো বাঁচানো যেত তামান্নাকে।
বিমানবন্দরের পূর্ব প্রাচীর ঘেঁসে চালিকীপাড়া গ্রাম। বুধবার দুপুরে ভ্যান চালিয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন ওই গ্রামের মোমিনুল ইসলাম ডাবলু। তিনি জানান, বাড়ির বারান্দার সামনে আসতেই বিকট শব্দ পেয়ে তিনি দৌড়ে প্রাচীর টপকে বিমানবন্দরের ভেতরে প্রবেশ করেন। দেখতে পান, বিমানটির সামনের দিকে আগুন ধরে গেছে। জানালার কাঁচ ভেঙে ভেতর থেকে প্রশিক্ষক শাহেদ কামাল বেরিয়ে এসেছেন। বিমানের ভেতরে তখন সিট বেল্টে আটকা ছিলেন তামান্না রহমান। জানালা দিয়ে বারবার তাকে উদ্দেশ করে তিনি বলতে থাকেন, ‘ভাই- বাঁচান, বাঁচান।’ কিন্তু আগুনের তাপে তার কাছেই যেতে পারেননি ডাবলু।
বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ বাড়িতে বসে তিনি আরও জানান, তখনও প্রশিক্ষক শাহেদ কামালের শরীরে আগুন জ্বলছে; তাকে মাটিতে গড়াগড়ি দিতে বলেন তিনি। কিন্তু শাহেদ কামাল মাটিতে গড়াগড়ি না দিয়ে চিৎকার করতে করতে দৌড়াতে শুরু করেন। এসময় একই গ্রামের আনারুল ইসলামকে নিয়ে তিনি শাহেদ কামালের শরীরের আগুন নেভান। তখনই প্রশিক্ষক শাহেদ বিমানের ভেতরে থাকা তামান্নাকে বাঁচানোর জন্য অনুরোধ করেন। তখন আবারও তামান্নার কাছে ছুটে যান তারা। কিন্তু আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকায় তারা আর বিমানটির কাছে যেতে পারেননি।
মোমিনুল ইসলাম ডাবলু বলেন, “বিমানের ভেতরে অন্তত তিন মিনিট বেঁচে ছিল মেয়েটি। তিন মিনিটের মধ্যে দমকল বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে আসতে পারলে মেয়েটিকে বাঁচানো যেত।”
তিনি আরও বলেন, “বিমানবন্দরের যেখানে দমকল বাহিনীর গাড়ি রাখা ছিল সেখান থেকে এক মিনিটেরও কম সময়ে দুর্ঘটনাস্থলে আসা যেত। কিন্তু সেই গাড়ি এসেছে ২০ মিনিট পর। ততক্ষণে চোখের সামনে তরতাজা জীবন্ত মেয়েটি পুড়ে কয়লা হয়ে গেল।”
ডাবলু বলেন, “মেয়েটির চিৎকার সব সময় আমার কানে ভাসছে। কিন্তু আমি ছিলাম নিরুপায়। বিমানবন্দরের প্রাচীরের কারণে পানি আনা যাচ্ছিল না। প্রাচীর না থাকলে গ্রামের লোকেরাই আগুন নেভাতে পারতেন।”
আরেক উদ্ধারকারী আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, “বিমানবন্দরের লোকজন এসে প্রাচীর টপকে ভেতরে গিয়ে উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়ায় আমাদের নামে মামলা করার হুমকি দিচ্ছে। আমাদের শিখিয়ে দেওয়া হচ্ছে যেন বলি, তারা ৫ মিনিটের মধ্যে এসে উদ্ধারকাজে অংশ নিয়েছে। কিন্তু তারা তো এসেছেন ২০ মিনিট পর।”
এ সম্পর্কে সিভিল এভিয়েশনের ফ্লাইট অপারেশন ইন্সপেক্টর ক্যাপ্টেন এইচএম আক্তার খান বলেন, “উদ্ধারকাজে অবহেলার অভিযোগটি সঠিক নয়। তারা খুব দ্রুত উদ্ধারকাজে অংশ নেয়। কিন্তু বিমানের একটি পাখা ভেঙে সব তেল ছড়িয়ে পড়লে দ্রুত আগুন ধরে যায়। তখন আর কিছুই করার ছিল না।”
এলাকাবাসীকে মামলার হুমকি দেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এলাকাবাসী উদ্ধারকাজে অংশ নিয়েছিল বলেই লে. কর্নেল শাহেদ কামালকে বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। তাদের নামে মামলা নয়, বরং তাদের চিহ্নিত করে পুরস্কৃত করা হবে।” নতুন বার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ