• মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন |

সিটির পর জাতীয় নির্বাচন চায় ২০ দল

20_dol8ঢাকা: আসন্ন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সমান সুযোগ সৃষ্টির আহ্বান জানিয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট বলেছে, “এই নির্বাচনের পর অবিলম্বে নির্দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের ব্যবস্থা করা উচিত।” শুক্রবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই দাবির কথা জানান বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু। এতে তিনি বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আওয়ামী লীগের মন্ত্রী-এমপি ও নেতাদের মিথ্যাচারের কড়া সমালোচনা করেন। বরকত উল্লাহ বলেন, “মিথ্যাচারেরও একটা সীমা-পরিসীমা আছে। ৫ জানুয়ারির তামাশার নির্বাচনে দেশ শাসনে বসে আওয়ামী লীগ। এখন তাদের মন্ত্রী-এমপিরা যেভাবে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করে বক্তব্য-বিবৃতি দিচ্ছেন, তাতে জাতি কলঙ্কিতবোধ করছে।” তিনি বলেন, “অবৈধ সরকারের একজন মন্ত্রী বলেছেন- ‘বিএনপির কার্যালয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তালাবদ্ধ করেনি; বিএনপিই তালা ঝুলিয়েছে। নেতারা চাইলে অফিসে বসতে পারেন, বাধা দেয়া হবে না।’ অথচ সাংবাদিক মহলসহ দেশবাসী জানে- বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে অসুস্থ অবস্থায় নয়াপল্টন কার্যালয় থেকে ডিবি পুলিশ ৩ জানুয়ারি গ্রেপ্তার করে।” বিএনপির এই মুখপাত্রের দাবি, “ওই রাতেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের কর্মকতা-কর্মচারীসহ অন্যান্যদের কার্যালয় থেকে বের করে প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয়।” তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, “দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে মর্মে সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বক্তব্য দেশবাসীকে ক্রমাগত হতাশ করছে। যদি আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিকই হয় তাহলে প্রতিদিন খবরের কাগজে দেশবাসী কি দেখছে? প্রতিদিন হত্যা, গুম, অপহরণের পর অস্বীকার এবং সর্বোপরি জেল কিংবা পুলিশি হেফাজতে বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের মৃত্যু কী তাহলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিকের আলামত?” বিবৃতিতে বুলু বলেন, “একমাস আগে গ্রেপ্তার নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানা শাখার ছাত্রদল নেতা রাসেল আহম্মেদ পুলিশি হেফাজতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। গ্রেপ্তারের পর রাসেলের ওপর চালানো হয়েছিল অমানুষিক নির্যাতন। গতকাল সিলেটে স্বেচ্ছাসেবক দলের মিছিলে হামলা ও গুলিবিদ্ধর ঘটনা দেশে স্বাভাবিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির নগ্ন উদাহরণ।” তিনি বলেন, “সারাদেশে যেভাবে বন্দুকযুদ্ধের নাটক সাজিয়ে ঠান্ডা মাথায় বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের হত্যা এবং অপহরণ, গুম, গ্রেপ্তার, মিথ্যা মামলা দায়েরের পর নিরীহ নাগকিদের গণগ্রেপ্তার, গ্রেপ্তার বাণিজ্য ও মামলা-হামলার হিড়িক শুরু হয়েছে, তাতে দেশবাসীর নিকট এটা পরিষ্কার যে, দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি না অবনতি ঘটেছে।” হুঁশিয়ারি দিয়ে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, “জনগণের ন্যায়সঙ্গত ও যৌক্তিক দাবি নিয়ে সরকার যেভাবে গোঁয়ার্তুমি করছে, সেটা কোনোক্রমেই ক্ষমতাসীন মহল কিংবা দেশ ও জাতির জন্য শুভলক্ষণ নয়।” তিনি বলেন, “সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের উচিৎ আসন্ন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সকল প্রার্থীর সমান সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা। পাশাপাশি সিটি করপোরেশন নির্বাচন সমাপ্তির পর অবিলম্বে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করে জাতিকে ভয়াবহ অনিশ্চয়তার হাত থেকে রক্ষা করা।” নির্বাচনে নেতিবাচক পন্থা গ্রহণ করা হলে ভবিষ্যতে উদ্ভুত যেকোনো অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির জন্য নির্বাচন কমিশন এবং সরকার তার দায় থেকে অব্যাহতি পাবে না বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করেন বরকত উল্লাহ বুলু। তিনি বলেন, “বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদসহ বিরোধীদলীয় গুমকৃত সকল নেতাকর্মীর মুক্তির জন্য দেশবাসী প্রহর গুণছে। ২০-দলীয় জোট এবং দেশবাসী আশা করে- আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গুমকৃত নেতাকর্মীদের জনসমক্ষে হাজির, বিএনপি জোটের সিনিয়র নেতাসহ গ্রেপ্তার সকল নেতাকর্মীর মুক্তি ও গণগ্রেপ্তার বন্ধ করবে। পাশাপাশি সরকার গণদাবি মেনে নিয়ে দেশকে অচলাবস্থার হাত থেকে রক্ষা করবে।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ